Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শুক্রবার, ২৪ জানুয়ারি, ২০২০ , ১১ মাঘ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.1/5 (57 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৯-৩০-২০১১

জেদ্দা বিমানবন্দরে বিড়ম্বনায় ৫০৩ হজযাত্রী

জেদ্দা বিমানবন্দরে বিড়ম্বনায় ৫০৩ হজযাত্রী
বাংলাদেশি হজযাত্রীদের ৫০৩ জনের প্রথম দলটি গতকাল বৃহস্পতিবার জেদ্দায় পৌঁছেই ভোগান্তির মুখে পড়ে। সৌদি অভিবাসন কর্তৃপক্ষ তাঁদের সেখানে আটকে দেয়। ঢাকা ও জেদ্দায় অনেক দেনদরবারের পর তাঁরা ছাড়া পান।
তবে জেদ্দায় বিমানের ব্যবস্থাপক (কান্ট্রি ম্যানেজার) আশরাফ আলী হজযাত্রীদের আটকে দেওয়া ও কয়েক ঘণ্টা ধরে ভোগান্তির কথা অস্বীকার করেন। টেলিফোনে তিনি প্রথম আলোকে বলেন, যাত্রীদের চাপ বেশি থাকলে হজযাত্রীদের জেদ্দা বিমানবন্দরে আনুষ্ঠানিকতার জন্য কয়েক ঘণ্টা এমনিতেই অপেক্ষা করতে হয়।
গতকাল ভোর পাঁচটায় বেসামরিক বিমান পরিবহনমন্ত্রী জি এম কাদের হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে হজ ফ্লাইটের উদ্বোধন করেন। বিমান সূত্র জানায়, উদ্বোধনী ফ্লাইটে ৫০৩ জন হজযাত্রী নিয়ে বিমানের জাম্বো জেট উড়োজাহাজটি সৌদি আরবের স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে নয়টায় জেদ্দা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছায়।
সংশ্লিষ্ট অরেকটি সূত্র জানায়, জেদ্দা বিমানবন্দরে নামার পর হজযাত্রীদের আটকে দেয় সৌদি অভিবাসন কর্তৃপক্ষ। পরে বিমান কর্তৃপক্ষ জানতে পারে, সৌদি আরবের নাস এয়ারের কারণে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। চলতি বছর ২৪ হাজার বাংলাদেশি হজযাত্রী পরিবহন করার কথা নাস এয়ারের। এ জন্য নাস বাংলাদেশের বেসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে। কিন্তু তাদের এই হজযাত্রী পাওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হয়। এ কারণে সৌদি কর্তৃপক্ষ গতকাল বাংলাদেশি হজযাত্রীদের আটকে দেয় বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র দাবি করেছে। অনেক দেনদরবার শেষে কয়েক ঘণ্টা পর হজযাত্রীরা আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে জেদ্দা বিমানবন্দর পার হন।
এ নিয়ে গতকাল দিনভর ঢাকায় বিমানের প্রধান কার্যালয়ে বিমানের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মুহাম্মদ জাকীউল ইসলাম ও বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ এবং নাস এয়ারের প্রতিনিধিদের মধ্যে দফায় দফায় বৈঠক হয়।
অবশ্য জাকীউল ইসলাম দাবি করেন, জেদ্দা বিমানবন্দরে হজযাত্রীদের তেমন কোনো সমস্যায় পড়তে হয়নি।
তাহলে দিনভর বৈঠক করতে হলো কেন?এ প্রশ্নের জবাবে জাকীউল ইসলাম বলেন, পর্যাপ্তসংখ্যক হজযাত্রী পাওয়ার ব্যাপারে নাস এয়ার সরকারের কাছ থেকে নিশ্চয়তা চায়। গতকাল দিনভর আলোচনার পর এর সুরাহা হয়েছে।
মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, চলতি বছর বাংলাদেশ থেকে পবিত্র হজ পালন করতে যাবেন মোট এক লাখ সাত হাজার ৩৪৫ জন। এর মধ্যে বিমান বাংলাদেশ ৩৬ হাজার ২২০ জন হজযাত্রী বহন করবে। বাকি হজযাত্রী পরিবহন করবে সাউদিয়া, নাস এয়ারলাইনস, এমিরেটস, জিএমজিসহ ১৫টি বিমান সংস্থা। এর মধ্যে সাউদিয়া ২০ হাজার, নাস ২৪ হাজার ৬২৪, জিএমজির ১৪ হাজার হজযাত্রী পরিবহন করার কথা রয়েছে।
বাংলাদেশ বিমান হজ ফ্লাইট শুরু করেছে। গতকাল প্রথম দিনে চারটি ফ্লাইট ছিল। এর মধ্যে রাত ১১টার ফ্লাইটটি যেতে পারেনি। বিমান কর্তৃপক্ষ বলছে, অনিবার্য কারণে সেটি বিলম্বিত হচ্ছে।
এ ছাড়া গতকাল বিমানের দ্বিতীয় হজ ফ্লাইটটি ৩১০ জনকে নিয়ে বেলা একটায় এবং একই সংখ্যক যাত্রী নিয়ে তৃতীয় ফ্লাইটটি সন্ধ্যা ছয়টায় ঢাকা ছেড়ে যায়।

এশিয়া

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে