Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বৃহস্পতিবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ , ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.9/5 (11 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১০-১৭-২০১৯

দুদকের সবাই ‘সাধু’ নন: অ্যাটর্নি জেনারেল

দুদকের সবাই ‘সাধু’ নন: অ্যাটর্নি জেনারেল

ঢাকা, ১৮ অক্টোবর- দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) কর্মরতদের সবাই ‘সাধু’ তা মানতে নারাজ অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। তবে এর ব্যাখ্যা দিয়ে তিনি বলেছেন, ‘দুদকের যে কর্মচারীরা আছেন, এদের মধ্যে আগের অনেক লোক আছেন। সরকার চেয়েছিল সম্পূর্ণ নতুন লোক দিয়ে এই দুর্নীতি দমন কমিশন গঠিত হবে। তখন নানারকম মামলা মোকদ্দমার কারণে সেটি সম্ভব হয়নি।’ 

বৃহস্পতিবার (১৭ অক্টোবর) সুপ্রিম কোর্টে অ্যাটর্নি জেনারেলের নিজ কার্যালয়ে বেসিক ব্যাংক কেলেঙ্কারির বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন। 

মাহবুবে আলম সাংবাদিকদের বলেন, ব্যাংক নানারকম ক্ষতির সম্মুখীন হলে ব্যাংক পরিচালনায় যারা থাকেন সবাই দায়ী হতে বাধ্য। সবার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়া উচিত।

‘শুধু দুর্নীতি দমন কমিশন কেন? আমি মনে করি এ ব্যাপারে আমাদের আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর যারা আছেন পুলিশ, র‌্যাব, এনবিআর সবার এটা আলাদা আলাদা তদন্ত করা দরকার, দায়ী কে, কতখানি।

এর আগে গত ১৪ অক্টোবর বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের সদস্য সচিব ও সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হলে দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যানের অবশ্যই পদ থেকে সরে যাওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেছিলেন। ওই বক্তব্য প্রসঙ্গে মতামত জানতে চাওয়া হলে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, ‘আমিও আমাদের সংসদ সদস্যের (ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস এমপি) সঙ্গে একমত হয়ে বলবো অনতিবিলম্বে পদক্ষেপ নেওয়া উচিত।’

তিনি আরও বলেন, যে ব্যাংকই নানারকম ক্ষতির সম্মুখীন হবে ওই ব্যাংকের যে বোর্ড অথবা পরিচালনায় যারা থাকবেন তারা দায়ী হবেন। অন্ততপক্ষে তাদের ব্যাখ্যা দিতে হবে।

অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, ‘দুদকের মধ্যে যে সব সাধু বসে আছে, এটা বলার কারণ নেই। কারণ হলো, দুদকের যে কর্মচারীরা আছেন, এদের মধ্যে আগের অনেক লোক আছেন। সরকার চেয়েছিল সম্পূর্ণ নতুন লোক দিয়ে এই দুর্নীতি দমন কমিশন গঠিত হবে। তখন নানারকম মামলা মোকদ্দমার কারণে সেটি সম্ভব হয়নি।’

বেসিক ব্যাংকের দুর্নীতির বিষয়ে তিনি বলেন, কোনও অলৌকিক কারণে এই ব্যাংকটি বসে যায়নি। মানবঘটিত নানারকম দুর্নীতির জন্য এই ব্যাংকটি বসে গেছে।

বেসিক ব্যাংকের দুর্নীতির বিরুদ্ধে দুদকের গাফিলতি আছে কিনা তা জানতে চাওয়া হলে মাহবুবে আলম বলেন, এককভাবে কাউকে দায়ী করা ঠিক হবে না। তার কারণ এই চেয়ারম্যান (দুদক) আসার পরে অনেকগুলো সিদ্ধান্ত হয়েছে, অনেকগুলো কাজ হয়েছে আমরা দেখেছি। সবচেয়ে বড় কথা হলো উনি অভ্যন্তরীণ অনেকগুলো বিষয় সংস্কার করেছেন। উনি উনার ঘরের ভেতরটাকে সাফ করার জন্য বা এটিকে সুষ্ঠু করার জন্য, একটা স্বচ্ছতা আনার জন্য চেষ্টা করেছেন। আমার কাছে মনে হয়েছে উনি যথেষ্ট কর্মঠ।

এসময় কোনও মামলার ক্ষেত্রে সব রকমের তদবির ও ফোন অগ্রাহ্য করতে হবে এবং এ ধরনের দুর্নীতি দমনে আমাদের সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে বলেও মন্তব্য করেন অ্যাটর্নি জেনারেল।

সূত্র : বাংলা ট্রিবিউন
এন কে / ১৮ অক্টোবর

আইন-আদালত

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে