Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, রবিবার, ১৭ নভেম্বর, ২০১৯ , ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.1/5 (8 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১০-১৬-২০১৯

মাকে ফ্রিজ কিনে দিতে ১২ বছরে ৩৫ কেজি কয়েন জমিয়েছে ছেলে

মাকে ফ্রিজ কিনে দিতে ১২ বছরে ৩৫ কেজি কয়েন জমিয়েছে ছেলে

জন্মদিনে মাকে ফ্রিজ উপহার দিতে চেয়েছিল ছেলে। সেজন্য ১২ বছর ধরে এক, দুই, পাঁচ ও ১০ টাকার কয়েন জমিয়েছে ভারতের যোধপুরের সাহারানপুরের ১৭ বছরের যুবক রাম সিং। অবশেষে কলেজ ছাত্রের স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। চলতি বছরে মায়ের জন্মদিনে ফ্রিজ কিনেছে সে।

জানা গেছে, ২০০৭ সালে রাম সিংয়ের বয়স মাত্র পাঁচ। তখন থেকেই কয়েন জমানো শুরু করে রাম সিং। ১২ বছর পর সব কয়েনের ওজন গিয়ে দাঁড়ায় ৩৫ কেজিতে। সেই ৩৫ কেজি কয়েন নিয়ে রাম সিং সোজা হাজির হয় ফ্রিজের শোরুমে।

মায়ের জন্মদিনের দিন রাম সিং সংবাদপত্রে বিজ্ঞাপন দেখেছিল, ফ্রিজ কেনার ওপর ছাড় দেওয়া হচ্ছে। সেটা দেখে আর সময় নষ্ট করেনি রাম সিং। সোজা ফোন করে শোরুম মালিককে জানায় ফ্রিজ কেনার কথা।

কিন্তু মূল্য চোকাবে কয়েনের মাধ্যমে। তখন শোরুম মালিক বুঝতে পারেননি যে ফ্রিজের গোটা দামটাই সে কয়েনের মাধ্যমে দেবে। শোরুমে আসার পর দেখা যায়, রাম সিংয়ের কাছে রয়েছে ১৩ হাজার পাঁচশ টাকা।

পছন্দমতো ফ্রিজ কিনতে হলে আরো দুই হাজার টাকা দরকার। কিন্তু শোরুম মালিক যুবকের সব কথা শুনে অভিভূত হয়ে পড়েন। আরো বেশি ছাড় দিয়ে ১৩ হাজার পাঁচশ টাকায় ফ্রিজটি তুলে দেন রাম সিংয়ের হাতে। মায়ের প্রতি ভালোবাসা দেখে শোরুম মালিক হরিকৃষ্ণাণ খাতরি সব কয়েন নিয়ে নেন।

রাম সিং বলেন, আমাদের পুরনো ফ্রিজটি খারাপ হয়ে গিয়েছিল। দীর্ঘদিন ধরে মা নতুন ফ্রিজ কেনার কথা বলছিল। তাই আমি কয়েন জমাতে শুরু করি। জানা গেছে একটি বড় পাত্রের মধ্যে কয়েন জমাতো রাম। যখনই পাত্রটি ভরে যেত, তখনই টাকা বের করে মায়ের হাতে দিত সে। কিন্তু কয়েনগুলো রেখে দিত।

রামের কথায়, একটা বড় পাত্রে কয়েন রাখতাম। এক টাকা, দুই টাকা, পাঁচ টাকা, ১০ টাকার কয়েন আলাদা করে রাখা থাকত। ঘটনার দিন একটা বস্তায় কয়েন ভরে শিবশক্তিনগরের শোরুমে যাই। সব কয়েন গুনতে আমার প্রায় চার ঘণ্টা লেগেছিল।

আর/০৮:১৪/১৭ অক্টোবর

বিচিত্রতা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে