Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০১৯ , ৩০ কার্তিক ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.5/5 (4 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১০-১৬-২০১৯

দূরে থেকেও খুব কাছে অলকা-নীরজ

দূরে থেকেও খুব কাছে অলকা-নীরজ

মুম্বাই, ১৬ অক্টোবর- বলিউডের তুমুল জনপ্রিয় গায়িকা অলকা ইয়াগনিক। মাত্র ১৪ বছর বয়সে ইন্ডাস্ট্রিতে তার গানে অভিষেক। দুই হাজারেরও বেশি গান রেকর্ড করেছেন। অন্তত ১৬টি ভাষায় গান গেয়েছেন। নব্বইয়ের দশকে তার গানই মাতিয়ে রাখত দর্শকদের। লতা মঙ্গেশকর এবং আশা ভোঁসলের পর অলকার নামই উচ্চারিত হতো সুরের দুনিয়ায়।

১৯৬৬ সালে কলকাতার এক গুজরাটি পরিবারে জন্ম অলকার। গানের অনুপ্রেরণা পেয়েছিলেন মা শুভাদেবীর কাছ থেকে। তিনি একজন শাস্ত্রীয় সংগীতশিল্পী। মাত্র ছয় বছর বয়সে আকাশবাণী কলকাতায় গান শুরু করেন। কেরিয়ার আজ পর্যন্ত যত অর্জন অলকার, বা যে জায়গায় পৌঁছেছেন, তার পুরো কৃতিত্ব গায়িকা তার মাকে দেন।


মা শুভাদেবীই অলকাকে মুম্বাই নিয়ে যান। ১৯৮০ সালে প্রথম প্লেব্যাক করেন ‘পায়েল কি ঝঙ্কার’ ছবিতে। তার কণ্ঠ দর্শকরা এতটাই পছন্দ করেন যে, এরপর আর পেছনে ফিরতে হয়নি। তিনি এতটাই হিট করেন যে, এক সময় লতা মঙ্গেশকর এবং আশা ভোঁসলের সঙ্গে টক্কর শুরু করেন। কুমার শানু এবং উদিত নারায়ণের সঙ্গে অসংখ্য হিট গান রয়েছে তার।

গানের জগত্টা ঠিক যেভাবে গুছিয়ে, সুপরিকল্পিত ভাবে এগিয়ে নিয়ে গিয়েছেন অলকা, তেমনই তার ব্যক্তিগত জীবনটাও ভীষণ গোছানো। কেরিয়ারের চাপের ছায়া কখনও তার ব্যক্তিগত জীবনে পড়তে দেননি। তাই স্বামীর থেকে অনেক দূরে থেকেও কখনও তাদের মধ্যে দূরত্ব তৈরি হয়নি।

১৯৮৯ সালে শিলংয়ের এক ব্যবসায়ীকে বিয়ে করেন অলকা। কর্মসূত্রে বছরের বেশির ভাগ দিন অলকাকে মুম্বাইয়েই থাকতে হয়। আর ব্যবসার প্রয়োজনে তার স্বামী নীরজ কুমার রয়ে গেছেন শিলংয়ে। এ রকম পরিস্থিতিতে বেশির ভাগ সম্পর্কেই বিচ্ছেদ আসে। অলকা-নীরজের ক্ষেত্রে কিন্তু তা হয়নি। তাদের মধ্যে বোঝাপড়া এমনই।

এই দম্পতির পরিচয় অনেকটা ফিল্মের মতোই। মায়ের সঙ্গে অলকা দিল্লি গিয়েছিলেন একবার। স্টেশনে তাদের নিতে আসেন নীরজ। তারা কেউই একে অপরকে চিনতেন না। নীরজ ছিলেন অলকার মায়ের বন্ধুর আত্মীয়। প্রথম দেখাতেই ভালো লেগে গিয়েছিল একে অপরকে।


সেখান থেকে বন্ধুত্ব এবং প্রেম। ব্যবসার প্রয়োজনে মুম্বাই এলে অলকার বাড়িতেও আসতেন নীরজ। অলকা তখন তার কেরিয়ারের একবারে শীর্ষে। তার পক্ষে মুম্বাই ছেড়ে শিলংয়ে গিয়ে থাকা অসম্ভব ছিল। আর নীরজের পক্ষেও একই ভাবে ব্যবসা ছেড়ে আসা সম্ভব নয়।

তাই বাড়িতে যখন তারা বিয়ের কথা জানিয়েছিলেন, দুই বাড়িই তাতে রাজি হয়নি। এ বিয়ে টিকবে না, এমন আশঙ্কাই প্রকাশ করেছিলেন। তারা শোনেননি। সম্পর্কে বিশ্বাস রেখে আজও সবাইকে ভুল প্রমাণ করে চলেছেন অলকা-নীরজ জুটি।

আর/০৮:১৪/১৬ অক্টোবর

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে