Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০১৯ , ৩০ কার্তিক ১৪২৬

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১০-০২-২০১৯

নাটোরে পদ্মাসহ ৩টি নদীর পানি বৃদ্ধি, দেড় হাজার পরিবার পানিবন্দি

নাটোরে পদ্মাসহ ৩টি নদীর পানি বৃদ্ধি, দেড় হাজার পরিবার পানিবন্দি

নাটোর,০২ অক্টোবর- উজান থেকে নেমে আসা পানি এবং ফারাক্কা বাঁধ খুলে দেওয়ায় নাটোরে পদ্মাসহ তিনটি নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। এ কারণে জেলার নদী তীরবর্তী উপজেলা লালপুরের এক হাজার ৫০০ পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে পানিবন্দি মানুষদের জন্য তিনটি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হলেও বুধবার (২ অক্টোবর) সন্ধ্যা পর্যন্ত কোনও আশ্রয়কেন্দ্রে কেউ আসেননি। তবে নিরাপদ আশ্রয়ে চলে গেছে প্রায় ৫০ ভাগ পরিবার। এখনও পর্যন্ত পানিবন্দি বহু মানুষ রয়েছে চরাঞ্চলে।

নাটোর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মাহবুবুর রহমান ও সহকারী প্রকৌশলী আল আসাদ জানান, রাজশাহীর চারঘাট পয়েন্টে পদ্মা নদীর পানি বুধবার সন্ধ্যা ৬টায় প্রবাহিত হয়েছে ৮৫ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে। গত ২৪ ঘন্টায় পদ্মার নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে ৫ সেন্টিমিটার। এর প্রভাব পড়েছে নাটোরের লালপুরসহ অন্যান্য উপজেলায়। সিংড়া পয়েন্টে আত্রাই নদীর পানি এবং নলডাঙ্গা উপজেলায় বারনই নদীর পানি বুধবার সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ১০ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে, বড়াইগ্রাম উপজেলার আটঘরিয়া পয়েন্টে বড়াল নদীর পানিপ্রবাহে গত ১২ ঘণ্টায় কোনও পরিবর্তন হয়নি।

পানিবন্দি পরিবারের অধিকাংশই নৌকার অভাবে কলাগাছের ভেলায় যাতায়াত করছেন। গবাদিপশুকে রেখেছেন মাচা করে কিংবা উঁচু জায়গায়। তাদের জন্য ত্রাণ সহায়তা দেওয়া শুরু করেছে প্রশাসন। বুধবার সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত ১৯০টি পরিবারের মধ্যে নৌকাযোগে ত্রাণ পৌঁছে দেয় প্রশাসন।

পানিবন্দি মানুষদের জন্য ১৮ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ পাওয়া গেছে বলে নিশ্চিত করেছেন লালপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মুল বানীন দ্যুতি। তিনি বলেন, ‘বুধবার সকাল থেকে বিকাল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক শরিফুন্নেসা উপজেলার চারটি ইউনিয়নের পানিবন্দি মানুষদের মধ্যে ১৯০ জনকে নৌকাযোগে ত্রাণ হিসেবে চালসহ বিভিন্ন শুকনো খাবার পৌঁছে দিয়েছেন।’

তিনি জানান,  জেলা প্রশাসন থেকে পানিবন্দি চারটি ইউনিয়নের জন্য ১৮ মে.টন চাল বরাদ্দ পাওয়া গেছে। এর মধ্যে দূরদূরিয়া ইউনিয়নে ১ টন, বিলমারিয়া ইউনিয়নে ৮ টন, লালপুর ইউনিয়নে ৭ টন এবং ঈশ্বরদী ইউনিয়নে ২ টন চালের ডিও সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানদের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে।  বৃহস্পতিবার থেকে এই চাল বিতরণ শুরু হতে পারে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

বিলমারিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিন্টু জানান, বিলমারিয়া ইউনিয়ন এলাকায় এখন পর্যন্ত ৬শ’ পরিবার পানিবন্দি। এছাড়া প্রায় ২শ’ বিঘা জমির আম, লিচু, কলা, বড়ইসহ বিভিন্ন ফলের বাগান ছাড়াও প্রায় ৩০ হেক্টর জমির সবজি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

নর্থবেঙ্গল সুগার মিলের এজিএম (কৃষি) মাজহারুল ইসলাম জানান, সবশেষ হিসেব মতে ২৫০ একর জমির আখ সম্পূর্ণ তলিয়ে গেছে। এছাড়া প্রায় ৩ হাজার ৫শ’ একর জমির আখ আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। অবস্থার অবনতি হতে থাকলে এই ক্ষতির পরিমাণ আরও বাড়বে। আখ তলিয়ে যাওয়ায় প্রায় ৫ হাজার মেটন চিনি উৎপাদন ইতোমধ্যেই কমে গেছে।

সূত্র : বাংলা ট্রিবিউন
এন কে / ০২ অক্টোবর

নাটোর

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে