Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ , ৫ আশ্বিন ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.9/5 (57 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১২-০৯-২০১১

নিউইয়র্কে তিন মিলিয়ন ডলার ক্ষতিপূরন পেলেন এক বাংলাদেশী

নিউইয়র্কে তিন মিলিয়ন ডলার ক্ষতিপূরন পেলেন এক বাংলাদেশী
সম্প্রতি নিউইয়স্থ দূর্ঘটনায় তিন মিলিয়ন ডলার ক্ষতিপূরন পেলেন এক বাংলাদেশী। তার এই মামলাটি পরিচালনা করেন যুক্তরাষ্ট্র সুপ্রীম কোর্টের অভিজ্ঞ বাংলাদেশী আমেরিকান এটর্নী এট ল জনাব মঈন চৌধুরীর আরেক সহযোগী নিউইয়র্কের বিখ্যাত ল ফার্ম এবং এর সহযোগী এটর্নী জুইস এটর্নী জনাব লিবম্যান।

মামলার ঘটনায় প্রকাশ ব্যক্তিগত তথ্য ও ছবি প্রকাশ করতে অনিচ্ছুক এক বাংলাদেশী ২০০৬ সালে প্রায় একটি বিল্ডিং এ ভিতরে অন্ধকারে দূর্ঘটনায় আঘাতপ্রাপ্ত হলে মারাত্মকভাবে আহত হন। তাৎক্ষনিকভাবে তাকে এ্যাম্বুলেন্সে করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালে ভর্তি থাকা অবস্থায় আহত ব্যক্তির আত্মীয় স্বজন বিভিন্ন এটর্নীর সাথে যোগাযোগ করলে তারা মামলা হবে কিনা বলে দ্বিধা দ্বন্ধ করলে তিনি নিরাশ হয়ে প্রায় এক সপ্তাহ পর এটর্নী মঈন চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করলে জনাব চৌধুরী সাথে সাথে ঘটনা শুনে তার ইনভেস্টিগেটর ও সহযোগী এটর্নীকে সঙ্গে নিয়ে আহত ব্যক্তিকে হাসপাতালে দেখতে যান এবং মামলা পরিচালনা করবেন বলে নিশ্চিত করেন।

জনাব চৌধুরীর সহযোগী এটর্নী মি: লিবম্যানের মাধ্যমে মামলা শুরু করেন এবং বাদীকে বিশেষজ্ঞ অর্থোপেটিক ডাক্তারের দ্বারা চিকিৎসার মাধ্যমে সম্পূর্ণ সুস্থ্য হতে সহযোগিতা করেন। মামলা চলাকালে প্রাথমিক পর্যায়ে ইন্স্যুরেন্স কোম্পানীর প্রতিনিধি মামলায় তাদের দায় দায়িত্ব অস্বীকার করার চেষ্টা করেন। এবং পরবর্তীতে এক পর্যায়ে ইন্স্যুরেন্স কোম্পানীর এটর্নী ৫০০ হাজার ডলারের বিনিময়ে মামলা নিষ্পত্তি করার প্রস্তাব দেন। কিন্তু বাদী পক্ষের এটর্নী লিবারম্যান ও মইন চৌধুরী বিবাদির এই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেন। এটর্নী লিবারম্যান ও মঈন চৌধূরী তাদের অভিজ্ঞতা ও বিচক্ষণতা প্রয়োগ করে এবং ইকোনোমিষ্টের সহযোগিতায় মামলার একটি মূল্য নির্ধারণ করতে সক্ষম হন।

যথারীতি মামলা ট্রায়ালের তারিখ পড়ে। ট্রায়ালের কার্যক্রম শুরু হওয়ার পূর্বক্ষণে অনেক যুক্তি তর্কের পরে বিবাদীপক্ষের এটর্নীরা বাদীর শর্ত মেনে নেয় এবং তিন মিলিয়ন ডলার ক্ষতিপূরন দিতে সম্মত হলে বাদীর সম্মতি ও সন্তুষ্টির পরিপ্রেক্ষিতে এটর্নীরা আদালতের মাধ্যমে মামলা নিষ্পত্তি করেন এবং দুই চেকে তিন মিলিয়ন ডলার প্রদান করেন।

এক প্রশ্নের জবাবে এটর্নী মঈণ চৌধুরী বলেন, মামলায় ইনজুরি যত বড় হবে মামলার মূল্য তত বেশি হয়। উল্লেখ্য যে, যুক্তরাষ্ট্রের মিশিগান স্টেট থেকে সর্বপ্রথম লাইসেন্স প্রাপ্ত এবং পরবর্তীতে আমেরিকার সর্বোচ্চ আদালত যুক্তরাস্ট্র সুপ্রীম কোর্টের লাইসেন্সপ্রাপ্ত গর্বিত বাংলাদেশী আমেরিকান এটর্নী জনাব মঈন চৌধুরীর সহযোগী লাইসেন্সপ্রাপ্ত এটর্নীরা নিউইয়র্ক, নিউজার্সী, কানেকটিকাট, পেনসেলভেনিয়া, মিশিগান, জর্জিয়া ও ভার্জিনিয়াতে এক্সেডেন্ট কেইসেস যথা কার এক্সিডেন্ট, কনস্ট্রাকশন কাজে এক্সিডেন্ট ও হাসপাতালের ভূল চিকিৎসার ক্ষেত্রে ইতিমধ্যে ক্লায়েন্টের জন্য মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার আদায় করতে সক্ষম হয়েছেন।

জনাব চৌধুরী বলেন, আমি মানুষের অধিকার নিয়ে কাজ করি। দূর্ঘটনা ও হাসপাতালে ভূল চিকিৎসার জন্য ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের হাতে সর্বোচ্চ ক্ষতিপূরন হিসাবে বড় অংকের চেক হাতে তুলে দিতে পারলে খুবই ভাল লাগে। যদি কোন ব্যক্তি তার বর্তমান এটর্নীর আইনগত সেবার সন্তুষ্টি না থাকেন তাহলে সে মামলার যে কোন পর্যায়ে এটর্নী পরিবর্তন করতে পারেন। এতে ক্লায়েন্টের কোন ধরনের আর্থিক ক্ষতি হয় না। দূর্ঘটনায় আঘাতপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের আইনজীবি নিয়োগ করার পূর্বেই ল? ফার্মের সাথে ভালভাবে অধিকার বুঝে নেয়া উচিত।

এক প্রশ্নের জবাবে এটর্নী লিবম্যান বলেন, মামলা পরিচালনায় বাদীর সহযোগিতা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। উল্লেখ্য মামলায় বাদী খুবই আন্তরিক ছিল এবং সব সময় আমাদের পরামর্শ গ্রহণ করতো। বিশেষ করে এটর্নী মঈন চৌধুরী তার মক্কেলের জন্য কখনো ছোট অংকে সন্তুষ্ট হয় না। সে সব সময় নিশ্চিত করতে চায় সর্বোচ্চ সম্ভব ক্ষতিপূরন। তার প্রচেষ্টায় এবং বিল্ডিং এর পর্যাপ্ত পরিমান ইন্স্যুরেন্স থাকায় এত বড় অংকের সমঝোতা করা সম্ভব হয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে বাদী বলেন, আমি মামলায় জয়ী হতে পেরে খুবই সন্তুষ্ট এবং গর্ববোধ করি যে, আমাদের বাংলাদেশী আমেরিকান এটর্নী এট ল জনাব চৌধুরী সর্বোচ্চ ক্ষতিপূরন পেতে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সহযোগিতা করেছেন।

যূক্তরাষ্ট্র

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে