Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ , ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.1/5 (59 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১০-০৮-২০১৩

পঞ্চগড়ে চায়ের উপর আমদানি শুল্ক প্রত্যাহারের প্রতিবাদে চা চাষীদের আন্দোলন


	পঞ্চগড়ে চায়ের উপর আমদানি শুল্ক প্রত্যাহারের প্রতিবাদে চা চাষীদের আন্দোলন

পঞ্চগড়, ০৮ অক্টোবর- পঞ্চগড়ে চা চাষীদের চায়ের উপর আমদানি শুল্ক প্রত্যাহারের প্রতিবাদে আন্দোলন শুরু করেছে। পঞ্চগড়ের চা চষীরা সকলে পঞ্চগড় স্মল টি গার্ডেন ওনার্স এসোসিয়েশন উদ্যেগে তারা পঞ্চগড়-ঢাকা জাতীয় মহাসড়কের শেরে বাংলা পার্ক ঘন্টাব্যাপি মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে। পরে তারা জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীকে একটি স্বারকলিপি প্রদান করেন।
স্বারকলিপিতে বলা হয়, ২০১২ সাল দেশে চায়ের আমদানির পরিমান ছিল ১.৯ মিলিয়ন কেজি। আর চলতি বছর এ পর্যন্ত আমদানির পরিমান মাত্র ৯ মিলিয়ন কেজি। ২০১১ সালে চা আমদানি শুরু হলে দেশীয় চা শিল্প রক্ষা এবং চা আমদানি নিরুৎসাহিত করতে অর্থ মন্ত্রানলায় ২৫ শতাংশ আমদানি শুল্ক আরোপ করে। কিন্তু চলতি বছরে জুনের পর ২০১৩-১৪ অর্থ বছরের বাজেট পাশের পূর্বে ২০ শতাংশ আমদানি শুল্ক প্রত্যাহার করা হয়। চায়ের উপর আমদানি শুল্ক প্রত্যাহার করায় দিন দিন দেশে নিম্নমানের চা আমদানি বাড়ছে। বর্তমানে জেলায় ২৫ টাকা কেজি দরে কারখানা মালিকরা ক্ষুদ্র চাষীদের কাছ থেকে চায়ের কাঁচাপাতা ক্রয় করছেন। এর সাথে চা চাষীরা পরিবহন খরচ বাবদ আরও দেড় টাকা পান এ জেলায় বর্তমানে প্রায় ২০ হাজার শ্রমিক বিবিন্নভাবে চা শিল্পের সাথে জড়িত। কিন্তু কম দামে বিদেশ থেকে নিম্নমানের চা আমদানির ফলে চট্রগ্রামের অকশন মার্কেটে দেশীয় চায়ের দাম পড়ে গেছে। ফলে জেলার চা কারখানা মালিকরা কাঁচাপাতার দাম কমিয়ে দেয়ায় পরিকল্পনা করছেন। এতে পঞ্চগড়ে ক্ষুদ্র চা শিল্প হুমকির মুখে পড়বে।
স্বারকলিপিতে তারা পঞ্চগড়ে চা শিল্পের অস্তিত্ব রক্ষায় আমদানি শুল্ক পুর্ণবহালের দাবি জানান। মানববন্ধনে পঞ্চগড় স্মল টি গার্ডেন ওলার্স এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল জব্বার, সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ার সাদ্দাত, ক্ষুদ্র চা চাষী জহিদুল ইসলাম, শাহা-আলম, আব্দুস সালাম, কাজী মাহাবুবার রহমান ডাবলু, জাহাঙ্গীর আলম, মতিয়ার রহমান প্রমূখ বক্তৃতা করেন। এতে জেলার বিভিন্ন উপজেলা পাঁচ শতাধীক বিভিন্ন পর্যায়ের চা চাষী অংশ নেয়।
জানাগেছে, পঞ্চগড় এবং ঠাকুরগাঁওয়ের প্রায় ৪০ হাজার একর জমি চা চাষের উপযোগি হলেও এখন পর্যন্ত মাত্র তিন হাজার একর জমি চা চাষের আওতায় এসেছে। এ পর্যন্ত চারশ জন ক্ষুদ্র, পনের জন ক্ষুদ্রায়তন এবং নয়জন স্টেট পর্যায়ে চাষী চা বোর্ডের তালিকাভুক্ত হয়েছে। গত উৎপাদন মৌসুমে চার টি চা কারখানায় ১১ লাখ ৪১ হাজার ৪৫০ কেজি চা উৎপাদন হয়েছে। চলতি মৌসুমে ছয়টি চা কারখানায় প্রায় ১৪ লাখ কেজি চা উৎপাদন হবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা। বাংলাদেশ স্মল টি গার্ডেন ওলার্স এসোসিয়েশনের সাংগঠনিক সম্পাদক মো: আনোয়ার সদাত বলেন, বর্তমানে কারখানা মালিকরা আমাদের কাছ থেকে ২৫ টাকা কেজি দরে কাঁচা পাতা কিনছেন। আমরা পরিবহন খরচ বাবদ আরও দেড় টাকা পাই। তারা ১৫ টাকা কাঁচা পাতার মুল্য নির্ধারণের পরিকল্পনা করছে বলে আমরা জানতে পেরেছি। এ হলে পঞ্চগড় জেলায় বিকশিতমান চা শিল্পের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখা মুশকিল হয়ে দাড়াবে।

পঞ্চগড়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে