Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বৃহস্পতিবার, ২৪ অক্টোবর, ২০১৯ , ৮ কার্তিক ১৪২৬

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৯-১৭-২০১৯

বাংলাদেশে ভোটার হয়েছেন ছয় শতাধিক রোহিঙ্গা

বাংলাদেশে ভোটার হয়েছেন ছয় শতাধিক রোহিঙ্গা

কক্সবাজার, ১৭ সেপ্টেম্বর- জালিয়াতি ও অবৈধপন্থায় বাংলাদেশে ভোটার হয়েছেন ছয় শতাধিক রোহিঙ্গা। এরই মধ্যে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে ভোটার হওয়ার বিষয়টি প্রকাশ্যে চলে এসেছে। এ নিয়ে চলছে আলোচনা-সমালোচনা।

এরই মধ্যে ৬০০ রোহিঙ্গার বিরুদ্ধে মামলা করেছে কক্সবাজার নির্বাচন অফিস। গত শুক্রবার (১৩ সেপ্টেম্বর) কক্সবাজার সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা শিমুল শর্মা বাদী হয়ে সদর মডেল থানায় ৬০০ রোহিঙ্গার বিরুদ্ধে মামলা করেন।

মামলায় নির্বাচন কমিশনের কাছে তথ্য গোপন করে নানা কৌশলে ডিজিটাল ও ইলেকট্রনিকস জালিয়াতি এবং প্রতারণার আশ্রয় নেয়ার অভিযোগ আনা হয়েছে। এ ঘটনায় তিন রোহিঙ্গাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে, চট্টগ্রামে নির্বাচন অফিসে গিয়ে তথ্য গোপন করে অবৈধভাবে ভোটার তালিকায় নাম ওঠানোর অভিযোগে সম্প্রতি কক্সবাজার পৌরসভার পশ্চিম নতুন বাহারছড়ার বাসিন্দা (পুরনো রোহিঙ্গা) ইউসুফ আলীর ছেলে নুরুল ইসলাম নুরু (৪২), মৃত শহর মুল্লুকের ছেলে ইয়াছিন (৩৭) ও টেকনাফ নয়াপাড়া মুছনি রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এইচ ব্লকের আবুল হাশেমের ছেলে আব্দুল্লাহকে (৫৩) কক্সবাজার সদর থানা পুলিশের সহায়তায় গ্রেফতার করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটকরা স্বীকার করেছেন কক্সবাজার সদর উপজেলার ইসলামাবাদ খোদাইবাড়ি এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা মৃত ওলা মিয়ার ছেলে শামসুর রহমান (৫০) ও রোহিঙ্গা ওবায়দুল্লাকে সঙ্গে নিয়ে চট্টগ্রামে গিয়ে ১৫ হাজার টাকার বিনিময়ে ভোটার হয়েছেন তারা।

মামলার বাদী শিমুল শর্মা বলেন, চট্টগ্রাম শহরের অজ্ঞাত লোকজনের মাধ্যমে দীর্ঘদিন ধরে অর্থের বিনিময়ে রোহিঙ্গাদের অবৈধ পন্থায় নানা কৌশলে ডিজিটাল বা ইলেকট্রনিকস জালিয়াতি ও প্রতারণার মাধ্যমে ভোটার নিবন্ধন করে আসছে অভিযুক্তরা। ইতোমধ্যে নুরুল ইসলাম ওরফে নুরু ও মো. ইয়াছিন টাকার বিনিময়ে ভোটার তালিকাভুক্ত হয়েছেন। এটা স্পষ্ট হওয়ার পর এই দুই রোহিঙ্গাসহ আব্দুল্লাহ নামের আরেক রোহিঙ্গাকে গ্রেফতার করা হয়।

জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার তারা করেছে, গত ১২ মে নুরু ও মো. ইয়াছিন শহরের নতুন বাহারছড়া জামে মসজিদের সামনে আব্দুল্লাহ, ওবায়দুল্লাহ ও শামসুর রহমানকে ভোটার নিবন্ধনের জন্য ১৫ হাজার টাকা দেয়। পরে তাদের ছবি তুলে ভোটার নিবন্ধনের জন্য চট্টগ্রাম শহরে নিয়ে একটি কক্ষে রাখে। যেখানে আগে থেকেই আরও অনেক রোহিঙ্গা অবস্থান করছিল। একই পন্থায় ভোটার তালিকায় নাম অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন অন্তত ৫০০ থেকে ৬০০ রোহিঙ্গা।

জেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্র জানায়, ২০১৭ সালের ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রমে প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে সিল-স্বাক্ষর জালিয়াতির মাধ্যমে তথ্য গোপন করে ভোটার তালিকায় নাম ওঠায় রোহিঙ্গারা। ডিজিটাল সিস্টেমে রোহিঙ্গাদের নাম ঠিকানা এন্ট্রি করে বায়োমেট্রিক ডাটা নিয়ে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের অনুমতিবিহীন কম্পিউটার প্রোগ্রামের মাধ্যমে এই কাজ করছে একটি জালিয়াত চক্র। অন্তত ৬০০ রোহিঙ্গাকে অবৈধভাবে নির্বাচন কমিশনের ডাটাবেজে সংযুক্ত ও কক্সবাজার সদর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় নিবন্ধনভুক্ত করে দেয় তারা।

নির্বাচন অফিসের সার্ভারের অনলাইন ডাটাবেজ পর্যালোচনা করে দেখা যায়, গ্রেফতার রোহিঙ্গাদের নাম-ঠিকানা নির্বাচন কমিশনের ভোটার নিবন্ধন তথ্যে অন্তর্ভুক্ত থাকলেও কক্সবাজার সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসের ভোটার নিবন্ধন ল্যাপটপ আইডির সঙ্গে মিল নেই। এতে নির্বাচন কমিশন ধারণা করছে, রোহিঙ্গারা চিহ্নিত ও সংঘবদ্ধ একটি চক্রের মাধ্যমে ভোটার তালিকাভুক্ত হয়েছে।

কক্সবাজার সদর মডেল থানা পুলিশের ওসি ফরিদ উদ্দিন খন্দকার বলেন, অবৈধপন্থায় বাংলাদেশি ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছে ছয় শতাধিক রোহিঙ্গা। এ ঘটনায় ৬০০ রোহিঙ্গার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। মামলার তদন্ত চলছে। কীভাবে এসব রোহিঙ্গা ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছে এবং এর পেছনে জড়িতদের চিহ্নিত করা হবে।

সূত্র: জাগো নিউজ২৪
এন কে / ১৭ সেপ্টেম্বর

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে