Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, রবিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ , ৩১ ভাদ্র ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.0/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৮-২৬-২০১৯

পাবনায় শহীদ মিনার ভেঙে এমপির বাবার ম্যুরাল নির্মাণ

সুশান্ত কুমার সরকার


পাবনায় শহীদ মিনার ভেঙে এমপির বাবার ম্যুরাল নির্মাণ

পাবনা, ২৭ আগস্ট- পাবনার সুজানগরে সাতবাড়িয়া ডিগ্রি কলেজের শহীদ মিনার ভেঙে স্থানীয় এমপি আহমেদ ফিরোজ কবিরের বাবা মরহুম আহমেদ তফিজ উদ্দিনের ম্যুরাল তৈরি করা হচ্ছে। যার কাজ এখন প্রায় শেষ পর্যায়ে। বিষয়টি নিয়ে জেলা প্রশাসক এবং সুজানগরের ইউএনওর ভাষ্য, কলেজ পরিচালনা পরিষদ অনেক আগেই পুরাতন জীর্ণ শহীদ মিনারটি ভেঙে নতুন করে নির্মাণের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। ওই সিদ্ধান্ত অনুযায়ীই পুরনো শহীদ মিনারটি ভাঙা হয়েছে। আর গতকাল সোমবার থেকে কলেজে নতুন শহীদ মিনারের নির্মাণ শুরু হয়েছে।

এদিকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শহীদ মিনার ভেঙে সেখানে এমপির বাবার ম্যুরাল নির্মাণের খবরে স্থানীয় শিক্ষক, ছাত্রছাত্রীসহ বিভিন্ন মহলে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তারা বলছেন, নতুন শহীদ মিনার তৈরির পরই এমপির বাবার ম্যুরাল তৈরি করা যেত। জেলার অতি উৎসাহী কিছু কর্মকর্তা এ কাজটি

করে ক্লিন ইমেজের এমপি আহমেদ ফিরোজ কবিরের ক্যারিয়ারে কলঙ্ক লেপন করেছেন।

অভিযোগ প্রসঙ্গে কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি ফজলুল হক বলেন, শহীদ মিনারটি জীর্ণ দশায় থাকায় এটি ভেঙে নতুন করে তৈরির সিদ্ধান্ত রয়েছে। জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের পরামর্শেই জায়গা নির্ধারণ করে স্থানীয় এমপির বাবার ম্যুরালটি নির্মাণ হচ্ছে। তবে কার অর্থায়নে এটি নির্মাণ হচ্ছে সেটি আমি জানি না। সাতবাড়িয়া কলেজের অধ্যক্ষ আবদুল বাছেত বাচ্চু বলেন, পাবনা-২ আসনের এমপি আহমেদ ফিরোজ কবিরের বাবা আহমেদ তফিজ উদ্দিন তিনবারের এমপি এবং দুবার উপজেলা চেয়ারম্যান ছিলেন।

১৯৬৬ সালে সাতবাড়িয়া কলেজ প্রতিষ্ঠায় তার অবদান রয়েছে। তাই তার স্মৃতিরক্ষায় ম্যুরালটি তৈরি হচ্ছে। পুরাতন শহীদ মিনারটির ডিজাইন ভুল ছিল এবং এটি ছিল কলেজের মূল গেটসংলগ্ন। শিক্ষার্থীদের এতে ফুল দিতে সমস্যা হতো। এ জন্য ২০১৮ সালের জুন মাসের পরিচালনা পরিষদের সভায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, কলেজ ক্যাম্পাসের দক্ষিণ পাশে নতুন শহীদ মিনার নির্মাণ করা হবে। তাই আগের শহীদ মিনারটি ভেঙে সেই জায়গায় উপজেলা পরিষদের অর্থায়নে এ ম্যুরালটি নির্মাণ করা হচ্ছে। যদিও আমাদের টেকনিক্যাল ভুল হয়েছে, নতুন শহীদ মিনার নির্মাণ শুরুর পর ম্যুরাল নির্মাণ করা উচিত ছিল।

সুজানগরের ইউএনও সুজিত দেবনাথ বলেন, নতুন শহীদ মিনার নির্মাণে ইতোমধ্যে ইট-বালি কলেজ মাঠে রাখা হয়েছে। সোমবার থেকে ক্যাম্পাসে নতুন শহীদ মিনারের নির্মাণকাজ শুরু হচ্ছে।

জেলা প্রশাসক কবীর মাহমুদ বলেন, শহীদ মিনার পাবনা জেলার ব্র্যান্ডিংয়ের বিষয়। এ জেলার শতভাগ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নির্মাণ করা হয়েছে। পরিচালনা পরিষদের নেওয়া আগের সিদ্ধান্ত মোতাবেক অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সোমবারই নতুন শহীদ মিনার নির্মাণ শুরু করতে ইউএনওকে নির্দেশ দিয়েছি।

এ ব্যাপারে পাবনা-২ আসনের এমপি আহমেদ ফিরোজ কবিরের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তার সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হয়নি।

আর/০৮:১৪/২৭ আগস্ট

পাবনা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে