Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ , ১ আশ্বিন ১৪২৬

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৮-২৪-২০১৯

'ফাঁসির আদেশ সই করে পাঠাতেন জিয়া, ট্রাইব্যুনাল শুধু পড়ে শোনাতো'

'ফাঁসির আদেশ সই করে পাঠাতেন জিয়া, ট্রাইব্যুনাল শুধু পড়ে শোনাতো'

ঢাকা, ২৪ আগস্ট- 'ইতিহাসের অবরুদ্ধ অধ্যায় :১৯৭৫-৯৬' শীর্ষক আলোচনা সভায় বক্তারা বলেছেন, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলের পর মুক্তিযোদ্ধা সৈনিকদের হত্যা করতে লোক দেখানো ট্রাইব্যুনাল গঠন করেন। যেখানে ফাঁসির আদেশে সই করে পাঠাতেন জিয়া। আর ট্রাইব্যুনালের কাজ ছিল শুধু পড়ে শোনানো।

শনিবার রাজধানীর ধানমণ্ডি ৩২ নম্বরের বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর মিলনায়তনে আওয়ামী লীগের গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই) এ আলোচনা সভার আয়োজন করে।

তরুণদের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত সভায় পঁচাত্তরে বঙ্গবন্ধু হত্যা ও পরবর্তীকালে সেনাবাহিনীর অভ্যন্তরে মুক্তিযোদ্ধা সৈনিকদের বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডে জিয়াউর রহমানের ভূমিকা নিয়ে আলোকপাত করা হয়। বক্তারা বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে দেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে অবরুদ্ধ করতে চেয়েছিলেন জিয়াউর রহমান।

প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার শাহ আলী ফরহাদের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন সাবেক প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট তারানা হালিম, শহীদ বুদ্ধিজীবী ডা. আলীম চৌধুরীর মেয়ে ডা. নূজহাত চৌধুরী, ঢাকা ট্রিবিউনের সম্পাদক জাফর সোবহান, সাংবাদিক জাহিদুল হাসান পিন্টু, ব্লগার ও কলামিস্ট মারুফ রসুল প্রমুখ।

তারানা হালিম বলেন, জিয়াউর রহমান ক্ষমতা বজায় রাখতে এবং মুক্তিযুদ্ধবিরোধী শক্তিকে স্থান করে দিতে সেনাবাহিনীর মধ্যে নির্বিচারে হত্যাকাণ্ড চালান। এ সময় ১১ হাজার ৪৩ জনকে মৃত্যুদণ্ড প্রদান করা হয়। আরো সাড়ে ৪ হাজার সেনা সদস্যের ওপর নির্যাতন চালানো হয়। সৈনিকদের দ্রুত ফাঁসি কার্যকরের জন্য পায়ে বালির বস্তা বেঁধে ঝোলানো হতো। একই নামের দু'জনের একজনের যাবজ্জীবন ও অন্যজনের ফাঁসির আদেশ দেওয়া হলেও দ্রুত কার্যকর করার জন্য দু'জনকেই ফাঁসিতে ঝোলানো হয়েছে।

নূজহাত চৌধুরী বলেন, জিয়া ক্ষমতা নিয়ে তার বাবার হত্যাকারী আত্মস্বীকৃত খুনি দৈনিক ইনকিলাবের মাওলানা এম এ মান্নানকে প্রতিমন্ত্রী করেন। এরশাদ তাকে পূর্ণমন্ত্রী করেন। মুক্তিযোদ্ধাদের হত্যা করে যুদ্ধাপরাধীদের পুনর্বাসন কেন করেছিলেন জিয়া? কেন যুদ্ধ চলাকালে তাকে সেক্টর কমান্ডার পদ থেকে বহিষ্কার করেছিলেন জেনারেল ওসমানী? তিনি কী আইএস-এর এজেন্ট হিসেবে বাংলাদেশকে আবারো পাকিস্তান বানানোর এজেন্ডা হাতে নিয়েছিলেন? এই প্রশ্নগুলো করার সময় এসেছে।

জাফর সোবহান বলেন, বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে গবেষণার জন্য ফান্ড প্রদান করা উচিত। এখনো উইকিপিডিয়াতে বাংলাদেশের ইতিহাস নিয়ে বেশ কিছু ভুল তথ্য দেওয়া আছে। যা রেফারেন্সের অভাবে ঠিক করা যাচ্ছে না। আর সে জন্য প্রচুর গবেষণা ও প্রতিবেদন প্রয়োজন।

সূত্র: সমকাল
এনইউ / ২৪ আগস্ট

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে