Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বুধবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ , ৭ ফাল্গুন ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.0/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৮-০২-২০১৯

জামালপুরে ডাবের খোসায় মশার লার্ভা, পরিচ্ছন্নতা অভিযান নেই পৌরসভার (ভিডিও)

জামালপুরে ডাবের খোসায় মশার লার্ভা, পরিচ্ছন্নতা অভিযান নেই পৌরসভার (ভিডিও)

জামালপুর, ০২ আগস্ট - সারাদেশের মতো জামালপুরেও এডিস মশাবাহিত ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। তবে জামালপুর পৌর এলাকায় মশার প্রজননের উৎসস্থল ধ্বংস এবং ময়লা-আবর্জনা পরিষ্কার করা হচ্ছে না। এসব আবর্জনার স্থান ছাড়াও অনেক জায়গায় শুধুমাত্র ডাবের খোসার পাহাড় জমে আছে। জামালপুর শহরের ফুলবাড়িয়া এলাকায় ওই সব ডাবের খোসায় জমে থাকা বৃষ্টির পানিতে মশার লার্ভার সন্ধান পাওয়া গেছে। তবে লার্ভাগুলো এডিস মশার কিনা তা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখার মতামত দিয়েছেন একজন চিকিৎসক।

এদিকে আজ শুক্রবার পর্যন্ত জামালপুর সদর হাসপাতালে আরো পাঁচজন নতুন ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। বর্তমানে এই হাসপাতালের নারী ও পুরুষ মেডিসিন ওয়ার্ডে এবং জরুরি বিভাগের অস্থায়ী ওয়ার্ডে সর্বমোট ৩০ জন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছেন। গত ২২ জুলাই থেকে গতকাল শুক্রবার পর্যন্ত জামালপুর সদর হাসপাতালে ৪৮ জন রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। এ ছাড়াও জেলার বিভিন্ন বেসরকারি ক্লিনিক ও হাসপাতালেও ডেঙ্গু রোগীরা চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

জামালপুর সদর হাসপাতালে শনাক্ত হওয়া ডেঙ্গু রোগীদের মধ্যে একজন ঝেটন বণিক। তার গ্রামের বাড়ি জেলার ইসলামপুর পৌর এলাকায়। তিনি নিজ বাড়িতে জ্বরে আক্রান্ত হন। পরে পরীক্ষা করার পর ডেঙ্গু শনাক্ত করা হয়। বাকি রোগীদের সবাই ঢাকা থেকে জ্বর নিয়ে জামালপুরে এসেছেন। ঝোটন বণিক জানান, তিনি ইসলামপুরে জুয়েলারি ব্যবসা করেন। গত ছয় মাসেও তিনি ঢাকায় জাননি। তারপরও তার ডেঙ্গু শনাক্ত হয়েছে। তার অবস্থা খুবই গুরুতর। তার ধারণা এডিস মশা জামালপুরেও বিস্তার লাভ করছে।

এডিস মশাবাহিত ডেঙ্গু জ্বর প্রতিরোধে সরকারি নির্দেশনা উপেক্ষা করে মশার প্রজনন ক্ষেত্রগুলো ধবংস করতে কার্যকর কোনো উদ্যোগ নেয়নি জামালপুর পৌরসভায়। এতে এডিস মশা ছড়িয়ে পড়ার শঙ্কায় রয়েছেন পৌরবাসীরা। পৌরসভার বিভিন্ন মহল্লা, প্রধান সড়কের পাশে এবং অলিতে-গলিতে ময়লা আবর্জনার স্তূপে পড়ে থাকা ডাবের খোসা ও অন্যান্য পরিত্যক্ত পাত্রগুলোতে মশার প্রজনন ক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে।

জামালপুর শহরের বিভিন্ন স্থানে রিকশা-ভ্যানে ফেরি করে ডাব বিক্রি করতে দেখা যায়। এসব ডাব বিক্রেতাদের অধিকাংশই শহরের বাইরে থেকে আসেন। শহরের ব্যস্ততম জেলা জজ আদালত এলাকা, জামালপুর সদর হাসপাতাল এলাকা, রেলওয়ে স্টেশন, দয়াময়ী মোড়, রেলগেট, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, বিসিক ও সিএনজি গ্যাস স্টেশন এলাকায় প্রচুর ডাব বিক্রি করা হয়ে থাকে। ডাব কেটে পানি বিক্রির পর বিক্রেতারা ডাবের খোসাগুলো রাস্তার পাশ বা খোলা স্থানে ফেলে দেন। জামালপুর শহরের ফুলবাড়িয়া এলাকায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের সীমানা দেয়াল ঘেঁষে প্রধান সড়কের পাশে, কাছারিপাড়া মুসলিমাবাদ, শহীদ হারুন সড়কের সরকারি গণগ্রন্থাগারের দেয়ালের পাশের রাস্তায়, ফায়ার সার্ভিসের সীমানা দেয়ালের পাশে, সিংহজানী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে একটি বেসরকারি ক্লিনিকের সামনে, বাস টারমিনাল এলাকায় এবং শহরের বিভিন্ন অলিগলির রাস্তায় পৌরসভার ড্রেনে অসংখ্য ডাবের খোসা পড়ে থাকতে দেখা যায়। শুধু ডাবের খোসাই নয়, দীর্ঘদিন ধরে ময়লা-আবর্জনা অপসারণ না করায় এসব স্থানের আবর্জনার স্তূপ থেকে বিষাক্ত দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ছে। এতে করে মশার প্রজনন বাড়তে থাকার পাশাপাশি জনস্বাস্থ্য হুমকির মুখে পড়েছে।

সরজমিনের গিয়ে দেখা যায়, কয়েক’শ ডাবের খোসায় জমে থাকা বৃষ্টির পানিতে মশার লার্ভা কিলবিল করছে। লার্ভাগুলো দেখতে অনেকটা এডিস মশার লার্ভার মতো। দেখতে বেশ লম্বা, সাদাকালো ডোরাকাটা। কিছু কিছু লার্ভা প্রায় পূর্ণাঙ্গ মশায় পরিণত হতে চলেছে। বৃষ্টির পানি জমে প্রতিটি ডাবের খোসা যেন মশার উর্বর প্রজনন ক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে। শহরের প্রধান সড়কের পাশে এভাবে ডাবের খোসা জমে থাকতে দেখা গেলেও জামালপুর পৌরসভা কর্তৃপক্ষ এগুলো পরিষ্কার করছে না।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের দেয়ালের পাশে ডাবের খোসায় কিলবিল করা মশার লার্ভার স্থিরচিত্র ও ভিডিওচিত্র ধারণ করে আজ শুক্রবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে জামালপুর সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. আল্লামা ইকবালকে দেখান এ প্রতিবেদক। ডা. ইকবাল ডাবের খোসার ভেতরে জমে থাকা পানিতে মশার লার্ভাগুলো দেখে বিস্ময় প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, লার্ভাগুলো দেখতে অনেকটা এডিস মশার লার্ভার মতো দেখালেও, এডিস মশা তো বেশ কয়েক প্রজাতির রয়েছে। এই লার্ভাগুলো প্রকৃতপক্ষে ক্ষতিকর এডিস মশার লার্ভা কিনা তা পরীক্ষা-নিরীক্ষা না করে নিশ্চিত কিছু বলা যাচ্ছে না।

জামালপুর পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র মো. ফজলুল হক আকন্দ বলেন, জামালপুর পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ঢাকায় আন্দোলনে অংশ নেওয়ার কারণে ময়লা-আবর্জনা অপসারণে কিছুটা ভাটা পড়েছে এ কথা ঠিক। তবে মাস্টার রুল শ্রমিক দিয়ে কিছু কিছু এলাকায় ড্রেন ও ময়লা-আবর্জনা পরিষ্কার করা হচ্ছে। ডেঙ্গু প্রতিরোধে গত ২৫ জুলাই থেকে কিছু কিছু এলাকায় স্প্রে করা হয়েছে। ডাবের খোসার স্তূপগুলো যেখানে যেখানে আছে সেগুলো দ্রুত সময়ের মধ্যে অপসারণ ও ধ্বংস করা হবে।

সূত্র : কালের কণ্ঠ

এন এইচ, ০২ আগস্ট.

জামালপুর

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে