Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, রবিবার, ২৫ আগস্ট, ২০১৯ , ১০ ভাদ্র ১৪২৬

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৮-০১-২০১৯

স্বস্তি মুকুলের, ১০দিনের মধ্যে গ্রেফতার নয় বিজেপি নেতাকে

স্বস্তি মুকুলের, ১০দিনের মধ্যে গ্রেফতার নয় বিজেপি নেতাকে

কলকাতা, ০১ আগস্ট - দিল্লি হাইকোর্টের রায়ে স্বস্তি পেলেন বিজেপি নেতা মুকুল রায়৷ বৃহস্পতিবার আদালত জানিয়েছে, ১০ দিনের মধ্যে তাঁকে গ্রেফতার করা যাবে না৷ জিজ্ঞাসাবাদ করার হলে দিল্লিতে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করতে হবে৷ তদন্তের স্বার্থে মুকুল রায়কে পুলিশকে সহযোগিতা করার নির্দেশ দিয়েছে আদালত৷

দু-দিন আগেই ব্যাঙ্কশাল আদালত মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে৷ পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ২০১৮-এর ৩১ জুলাই বড়বাজার থানায় প্রতারণা ও দুর্নীতি সংক্রান্ত বিষয়ে একটা এফআইআর দায়ের হয়। এরপর একজন সরকারি কর্মীর কাছ থেকে ৯০ লক্ষ টাকা উদ্ধার করে পুলিশ। সেই মামলার তদন্তের সময়েই মুকুল রায়ের নাম উঠে আসে বলে পুলিশের দাবি। এরপর ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে ১৬০ ধারায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মুকুল রায়কে নোটিস পাঠিয়ে তলব করে কলকাতা পুলিশ।

তবে মুকুল রায় এখন দিল্লির বাসিন্দা। তিনি দিল্লিরই ভোটার। দিল্লিতে এসে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে তিনি সহযোগিতা করবেন বলেও জানিয়ে দেন মুকুল রায়। এদিকে ২০১৮ সালের ওই নোটিস অনুযায়ী মুকুল রায় হাজির না দেওয়ায় ব্যাঙ্কশাল কোর্টে আবেদন করে কলকাতা পুলিশ। সেই আবেদনের ভিত্তিতেই মুখ্য নগরদায়রা বিচারক গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

এরপরই দিল্লি হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন মুকুল রায়৷ এদিন আদালতে সরকারি আইনজীবী জানান, বিষয়টি নিয়ে মুকুল রায়কে বারবার ডেকে পাঠিয়েছিল কলকাতা পুলিশ। মুকুল সেই ডাকে সাড়া দেননি। পরে আদালতের তরফেও তাঁকে সমন পাঠানো হয়। তা সত্ত্বেও হাজিরা দেননি বিজেপি নেতা। মুকুল শিবিরের দাবি, প্রতিহিংসাপরায়ণ হয়েই এই নোটিশ পাঠানো হয়েছিল।

মঙ্গলবার পুরুলিয়ার একটি অনুষ্ঠানে মুকুল রায়ের অভিযোগ , মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশেই তাঁকে হেনস্থা করার চেষ্টা করছে কলকাতা পুলিশ। মুকুল বলেন, আমাকে ২০১৮ সালের একটি ঘটনায় সাক্ষী হিসেবে ডাকা হয়েছে। আবার সেই মামলাতে আদালতে সাক্ষী দিতে হাজির হচ্ছি না বলে আমার বিরুদ্ধে একটা মামলা হয়েছে, গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়েছে। আমি যদি সাক্ষী দিতে আদালতে হাজির হই তাহলে আমার বিরুদ্ধে তো মামলা হতে পারে না। আসলে কলকাতা পুলিশ এখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পদলেহনে ব্যস্ত। তাই আমাকে হেনস্থা করার জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে কোন কাজটা করা উচিত আর কোনটা নয়, কলকাতা পুলিশ সেটা গুলিয়ে ফেলেছে। এদিন আদালতের রায়কে স্বাগত জানিয়েছেন তিনি৷

এন এইচ, ০১ আগস্ট.

পশ্চিমবঙ্গ

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে