Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, রবিবার, ২৫ আগস্ট, ২০১৯ , ১০ ভাদ্র ১৪২৬

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৭-২৮-২০১৯

ডেঙ্গু আতঙ্ক: জ্বর হলে শুরুতেই যা করতে হবে

ডেঙ্গু আতঙ্ক: জ্বর হলে শুরুতেই যা করতে হবে

জ্বর কোনো রোগ নয়; এটি রোগের উপসর্গ। কারো দেহের তাপমাত্রা ৯৯ ডিগ্রি ফারেনহাইটের ওপরে গেলেই ধরে নিতে হবে তার জ্বর হয়েছে। বর্তমানে অবশ্য ডেঙ্গুর প্রভাব খুব বেশি। তবে ডেঙ্গু হোক বা অন্য কোনো জ্বর হলেই যে চিকিৎসকের কাছে ছুটতে হবে বা ওষুধ খেয়ে কমাতে হবে, ব্যাপারটি কিন্তু তা নয়। বেশির ভাগ জ্বরই ভাইরাসজনিত, যাতে কোনো ওষুধ লাগে না। এমনিতেই পাঁচ থেকে সাত দিন পর সেরে যায়। যেকোনো জ্বর হলে কিছু করণীয় রয়েছে। তা হলো-

বয়স্কদের ক্ষেত্রে:

জ্বর হওয়ার প্রথম তিন দিন শুধু সঠিক পরিমাণে প্যারাসিটামলজাতীয় ট্যাবলেট খান। জ্বর কমানোর জন্য প্যারাসিটামলের পরিবর্তে এনএস এইড বা ব্যথানাশক ওষুধ যেমন—আইবুপ্রোফেন, অ্যাসপিরিন বা কোনো ধরনের অ্যান্টিবায়োটিক সেবন করবেন না। এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসেবে রোগীর মৃত্যুও হতে পারে।

একেবারে প্রথম থেকেই শরীরে যেন তরলের জোগান ঠিক থাকে সে জন্য তেষ্টা কম পেলেও পর্যাপ্ত পানি বা তরলজাতীয় খাবার গ্রহণ করুন।

জ্বরের সময় বিশ্রাম নিলে রোগ সংক্রমণের আশঙ্কা কমে এবং রোগীর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। তাই জ্বরের লক্ষণ দেখা দিলে বা জ্বর হওয়ার প্রথম দিন থেকেই পূর্ণ বিশ্রামে চলে যান। এই সময় কোনো ধরনের কায়িক পরিশ্রম করবেন না বা শরীরের ওপর কোনো চাপ দেবেন না।

যারা ডায়াবেটিস, হার্ট, কিডনি, লিভার বা অন্য জটিল অসুখে ভুগছেন বা আগেও কখনো ডেঙ্গু হয়েছে, তাঁরা খুব সাবধানে থাকুন।

রাতে এসির ব্যবহার কমিয়ে দিন। ঘর ঠাণ্ডা হওয়ার পর এসি বন্ধ করে ঘুমাতে যান।

দাঁতের মাড়ি, মল বা মূত্রের মধ্য দিয়ে রক্তপাত হলে খুব সাবধান হোন। রোগীর প্লাটিলেট কাউন্ট কমে গেলেই তেমনটা হয় সাধারণত।

কারো ডেঙ্গু হলে মশারি ব্যবহার করে রোগীকে আলাদা রাখুন। এতে অন্যরাও রক্ষা পাবে।

যদি মনে হয় পরিস্থিতি ক্রমেই নাগালের বাইরে যাচ্ছে, তাহলে দেরি না করে চিকিৎসকদের পরামর্শ নিন বা হাসপাতালের দ্বারস্থ হোন।

শিশুদের ক্ষেত্রে:

জ্বরের সময় পানিশূন্যতা প্রতিরোধে দুধ পান করে এমন শিশুদের ঘন ঘন মায়ের দুধ চুষতে দিন। এ সময় দুগ্ধবতী মাকেও সাবধানতার সঙ্গে চলাফেরা ও খাওয়াদাওয়া করতে হবে।

হালকা গরম পানিতে দ্রুত সময়ের মধ্যে গোসল করাতে পারেন।

শিশুর ওজন ও ব্যবস্থাপত্র অনুযায়ী প্যারাসিটামল সিরাপ বা ট্যাবলেট খাওয়ান। ছোট শিশুকে সর্দি-কাশির সিরাপ, যাতে জ্বর কমানোর উপাদান আছে, তা সেবন করানো উচিত নয়। এতে জ্বরের ওষুধের ‘ওভার ডোজ’ হয়ে যেতে পারে।

শিশুর ঘরের তাপমাত্রা আরামদায়ক (১৮ থেকে ২৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস) রাখুন। জানালা খুলে রাখুন, যথেষ্ট বাতাস চলাচলের ব্যবস্থা রাখুন। প্রয়োজনে ফ্যান ছেড়ে দিন।

অতিরিক্ত কাপড়চোপড়, কাঁথা বা চাদরের প্রয়োজন নেই। বিশেষত, মাথা ঢেকে রাখবেন না, কারণ ছোট্ট শিশুদের তাপ মাথা থেকেই বেশি নির্গত হয়।

জ্বরের সময় খেলাধুলা বা অত্যধিক পরিশ্রম পরিহার করতে হবে। প্রয়োজনে স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে কিছুদিন বিশ্রাম নিতে হবে।

এনইউ / ২৮ জুলাই

সচেতনতা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে