Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, রবিবার, ১৭ নভেম্বর, ২০১৯ , ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.8/5 (11 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৭-২৭-২০১৯

গৃহবধূকে নির্যাতন: ‘হাতাহাতি’ দাবি করে সংবাদ সম্মেলন  

গৃহবধূকে নির্যাতন: ‘হাতাহাতি’ দাবি করে সংবাদ সম্মেলন  

শেরপুর, ২৭ জুলাই- শেরপুরের নকলায় ডলি খানম (২২) নামে এক অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে গাছে বেঁধে নির্যাতনের চাঞ্চল্যকর ঘটনাকে মিথ্যা ও নিছক হাতাহাতি দাবি করে দীর্ঘ দেড়মাস পর সংবাদ সম্মেলন করেছে আসামি পক্ষের স্বজনরা।

শনিবার (২৭ জুলাই) দুপুরে শহরের নিউমার্কেট এলাকায় শ্রমিক সংগঠনের কার্যালয়ে প্রেসক্লাবের কর্মকর্তা ও দায়িত্বশীলদের পাশ কাটিয়ে স্থানীয় ৭/৮ জন গণমাধ্যম কর্মীর উপস্থিতিতে আয়োজিত ওই সম্মেলনে করেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে মামলার অন্যতম আসামি নির্যাতিতা গৃহবধূর ভাসুর আবু সালেহর মেয়ে মরিয়ম আক্তার ওই দাবি করে বলেন, প্রকৃতপক্ষে ওই মামলার ঘটনা মিথ্যা এবং তার পিতা আবু সালেহ ও চাচা নেছার উদ্দিনসহ সকল আসামি নির্দোষ।

তার অভিযোগ, এখন চাচা শফিউল্লাহ ক্রমাগত তাদেরকে বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছেন। এতে তারা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।

অন্যদিকে সংবাদ সম্মেলনে দেওয়া মরিয়ম আক্তারের অভিযোগ অস্বীকার করে নির্যাতিতা গৃহবধূ ডলির স্বামী শফিউল্লাহ বলেন, ওই সব অভিযোগ মিথ্যা, ভিত্তিহীন ও বানোয়াট। প্রকৃতপক্ষে তাদের করা মামলা থেকে বাঁচার জন্যই প্রভাবশালীদের ইন্ধনে তার বিরুদ্ধে ওই মিথ্যা অভিযোগ আনয়ন করা হয়েছে। তার মতে, ডলিকে কি অমানসিকভাবে নির্যাতন করা হয়েছে, তার প্রমাণ ভিডিও চিত্রেই রয়েছে। ভিডিওতে দেখা যায়, মরিয়মের পিতাই ঘটনাস্থলে থেকে অন্যান্যদের নির্যাতনে উৎসাহিত করে মোবাইলে কথা বলছেন। তার ধারণা, ওই সময় তিনি ঘটনার বিষয়ে সার্বিক নির্দেশনা নিতে নেছার উদ্দিনের সাথেই কথা বলছিলেন। আর ওই সময় নির্যাতনের ভিডিওটিও নিজের হাতে থাকা মোবাইলে ধারণ করেছিলেন নেছার উদ্দিনের স্ত্রী লাখী আক্তার।

এছাড়া থানায় মামলা গ্রহণের পরপরই ওই ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলার কারণে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও এক এসআইকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। ডলির অন্তঃসত্ত্বা সংক্রান্তে সকল রিপোর্ট পজেটিভ থাকার পরও চিকিৎসকদের প্রভাবিত করার ঘটনায় স্বাস্থ্যমন্ত্রীসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। হুমকির অভিযোগ অস্বীকার করে উল্টো প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন, বসতবাড়িতে ২ শিশুসন্তানসহ আমরা (স্বামী-স্ত্রী) ছাড়া আর কেউ নেই।

অন্যদিকে আসামিপক্ষের বসতবাড়িতে এখনও তাদের সন্তান-সন্ততিসহ ২৫-৩০ জন লোক বসবাস করছে। এক্ষেত্রে আমাদের তরফ থেকে হুমকির অভিযোগ অবান্তর নয় কি?

সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়, ডলির স্বামী ও তার চাচা কায়দা গ্রামের মৃত হাতেম আলীর ছেলে শফিউল্লাহর সঙ্গে তার আরেক চাচা নেছার উদ্দিনের মধ্যে জমিজমা নিয়ে বিরোধসহ মামলা-মোকদ্দমা চলে আসছিল। এর জের ধরে গত ১০ মে তার চাচা নেছার উদ্দিনের মালিকানাধীন জমির ধান কাটতে গেলে শফিউল্লাহর স্ত্রী ডলি খানম দা উচিয়ে বাধা দিতে গেলে তাকে নিবৃত্ত করার সময় দু’পক্ষের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। ওইসময় তার চাচা সেনাসদস্য নেছার উদ্দিন টাঙ্গাইলের ঘাটাইল সেনানিবাসে কর্মরত ছিলেন। তার দাবি, ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ডলির স্বামী ডলিকে অন্তঃসত্ত্বা দাবি করে নেছার উদ্দিনকে হুকুমদাতার আসামি ও অন্যান্যদের বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ তুলে আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন।

পরবর্তীতে ডলি খানম বাদী হয়ে নেছার উদ্দিনসহ ১৩জনকে আসামি করে থানায় একটি পৃথক মামলা দায়ের করেন। তবে সম্মেলনে উপস্থিত একাধিক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে মরিয়ম আক্তার গৃহবধূ ডলি খানমকে গাছে বাধার কথা স্বীকার করেন। তবে তাকে নির্যাতনের অভিযোগ অস্বীকার করেন। সংবাদ সম্মেলনে মরিয়ম আক্তারের বড়বোন মনিরা ইয়াসমিন, মামলার অন্যতম আসামি আমিরুল ইসলামের বড়ভাই আজিজুল হক ও আসামি তোফাজ্জল হোসেনের ছেলে রুবেল মিয়া উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, গত ১০ মে নকলা উপজেলার কায়দা গ্রামে জমিসংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ওই অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে গাছে বেঁধে বর্বরোচিত নির্যাতন এবং নির্যাতনে গৃহবধূর গর্ভের সন্তান নষ্টের ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনায় ৩ জুন আদালতে একটি নালিশী মামলা দায়ের করেন নির্যাতিতা গৃহবধূর স্বামী। এরপর নির্যাতনের একটি ভিডিও ভাইরাল হলে তোলপাড় শুরু হয়। এর প্রেক্ষিতে পুলিশ সুপার কাজী আশরাফুল আজীমের দ্রুত পদক্ষেপে গত ১১ জুন এক সেনা সদস্যসহ ওই গৃহবধূর ৩ ভাসুর ও জাসহ ৯ জনকে স্বনামে ও অজ্ঞাতনামা আরও ৩/৪ জনের বিরুদ্ধে থানায় একটি মামলা গ্রহণ করা হয়। ওই মামলায় মরিয়মের বাবা আবু সালেহসহ ৬ আসামি হাজতবাসে থাকলেও এখনও পলাতক রয়েছে সেনাসদস্য নেছার উদ্দিন, পৌর কাউন্সিলর রূপালী বেগম ও তার স্বামী আমিরুল ইসলাম।

এমএ/ ১১:৪৪/ ২৭ জুলাই

শেরপুর

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে