Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ , ৬ আশ্বিন ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.0/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)


আপডেট : ০৭-২৪-২০১৯

গাইবান্ধায় ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী-বাঙালিদের ওপর হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি

গাইবান্ধায় ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী-বাঙালিদের ওপর হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি

গাইবান্ধা, ২৫ জুলাই- গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার সাহেবগঞ্জ-বাগদা ফার্মের চুক্তিভিত্তিক অধিগ্রহণ করা জমি মূল মালিক বা উত্তরাধিকারী ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী ও বাঙ্গালিদের কাছে ফিরিয়ে দেওয়ার দাবি জানিয়েছে পাঁচটি সংগঠন। এছাড়া ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী-বাঙালিদের ওপর হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিও জানিয়েছে তারা। বুধবার (২৪ জুলাই) রাজধানীর ডব্লিউভিএ মিলনায়তনে সাহেবগঞ্জ-বাগদাফার্ম ভূমি উদ্ধার সংগ্রাম কমিটি, জাতীয় আদিবাসী পরিষদ, বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরাম, এএলআরডি ও কাপেং ফাউন্ডেশন এক আলোচনা সভায় এসব দাবি জানায়।

আলোচনা সভার শুরুতে বাগদা ফার্মের সমসাময়িক অবস্থার ওপর নির্মিত প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়। মূল আলোচনাপত্র উপস্থাপন করেন কাপেং ফাউন্ডেশনের প্রকল্প সম্বন্বয়কারী খোকন সুইটেন মুরমু।

সভায় ঐক্য ন্যাপের সভাপতি পঙ্কজ ভট্টাচার্য বলেন, ‘গাইবান্ধার বাগদা ফার্মে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী ও বাঙালিদের ওপর বেআইনীভাবে গুলিবর্ষণ, হত্যা, উচ্ছেদ ও আগুন দেওয়া হয়। সেই হত্যাকারীরা এদেশে যতদিন বিচারহীনভাবে থাকবে, ততদিন পর্যন্ত এদেশ হত্যাকারীর দেশ হিসেবে পরিচয় বহন করবে। কিন্তু, আমরা এদেশকে হত্যাকারীর দেশ হিসেবে দেখতে চাই না। এদেশকে আমরা মুক্তিযুদ্ধের দেশ হিসেবেই দেখতে চাই।’

এএলআরডির নির্বাহী পরিচালক শামসূল হুদা বলেন, ‘সাহেবগঞ্জ বাগদা ফার্মে গাইবান্ধা জেলা পরিষদের মাধ্যমে ইপিজেড স্থাপনের দাবি অনৈতিক। গাইবান্ধা জেলা পরিষদের বাগদা ফার্মের ১৮৪২.৩০ একর জমিতে ইপিজেড স্থাপনের দাবি এক গভীর ষড়যন্ত্র।’

সভাপতির বক্তব্যে সঞ্জীব দ্রং বলেন, ‘গাইবান্ধার সাহেবগঞ্জ বাগদা ফার্মের জমি যারা অবৈধভাবে লিজ নেয়, সরকারের পুলিশ বাহিনী তাদের পাহারা দেয়। অথচ জমির মূল মালিক ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী সাঁওতাল ও বাঙালি কৃষকেরা আজ  ন্যায্য দাবির জন্য সরকারের সেই পুলিশ বাহিনীর দ্বারাই খুন হতে হচ্ছে। রাষ্ট্রের উচিত দেশের প্রান্তিক আদিবাসী মানুষের প্রতি আরও মানবিক হওয়া।’

খোকন সুইটেন মুরমু তার প্রবন্ধে বলেন, ‘উত্তরবঙ্গে বসবাসকারী সাঁওতালরা ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন, তেভাগা আন্দোলনসহ মুক্তিযুদ্ধে সাহসিকতার সঙ্গে অংশগ্রহণ করলেও স্বাধীনতার পর তারা নিজভূমে পরবাসীর জীবনযাপন করতে বাধ্য হচ্ছে। সাম্প্রতিক সময়ে অন্যান্য ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর ন্যায় সাঁওতালরাও হামলা, মামলা ও নির্যাতনের  শিকার। সহজ-সরল ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর মানুষ ন্যায়বিচারের জন্য প্রশাসনের কাছে ধরনা দিলেও তারা প্রতিকার পাচ্ছেন না। তারা নীরবে দেশান্তরিত হচ্ছেন। বাংলাদেশ সরকার ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের উচিত সংবেদনশীল হয়ে বাগদা ফার্মের চলমান সংকট কাটানোর প্রক্রিয়াকে ত্বরান্বিত করা। প্রয়োজন অনতিবিলম্বে হাইকোর্টের নির্দেশে পিবিআই কর্তৃপক্ষের তদন্ত রিপোর্ট প্রকাশ এবং সে অনুযায়ী বিচার-প্রক্রিয়ার কার্যক্রম পরিচালনা করা।’

বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক সঞ্জীব দ্রংয়ের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় শুভেচ্ছ বক্তব্য রাখেন কাপেং ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক পল্লব চাকমা, জাতীয় আদিবাসী পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সবিন চন্দ্র মুন্ডা ও সাহেবগঞ্জ-বাগদা ফার্ম ভূমি উদ্ধার সংগ্রাম কমিটির সভাপতি ফিলিমন বাস্কে প্রমুখ।

সূত্র: বাংলা ট্রিবিউন
এনইউ / ২৫ জুলাই

গাইবান্দা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে