Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ , ৭ আশ্বিন ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.0/5 (10 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৭-০৫-২০১৯

সেনাবাহিনীতে চাকরি দেয়ার নামে অর্থ আদায়, প্রতারক আটক

সুজন কৈরী


সেনাবাহিনীতে চাকরি দেয়ার নামে অর্থ আদায়, প্রতারক আটক

ঢাকা, ০৫ জুলাই - সেনাবাহিনীতে চাকরি দেয়ার নামে অর্থ হাতিয়ে নেয়া প্রতারক চক্রের এক সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) ঢাকা মেট্রো (উত্তর)। আটক ব্যক্তির নাম সোহেল শিকদার (৪৮)। বৃহস্পতিবার তাকে আটক করা হয়। তার কাছ থেকে চাকরি দেয়ার বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্রসহ বিভিন্ন ধরনের আলামত উদ্ধার করেছে পিবিআই।

শুক্রবার পিবিআই জানায়, শিপন প্রতাব নামে একজন ভুক্তভোগী পিবিআই কার্যালয়ে গিয়ে অভিযোগ করেন যে, চাকরি খোঁজার একপর্যায়ে প্রতারক সোহেল শিকদার ও তার স্ত্রী সেলিনা বেগমের সঙ্গে পরিচয় হয়। ওই সময় সোহেল নিজেকে এমইএস-এর ঠিকাদার হিসেবে পরিচয় দিয়ে চাকরি পেতে সহায্যের প্রতিশ্রুতি দেন। সেইসঙ্গে ভুক্তভোগী শিপনের এইচএসসি, এসএসসি এবং অন্যান্য কাগজপত্রের মূলকপি রেখে দেন। পরে দেখা হলে সোহেল চাকরি হয়ে গেছে জানিয়ে শিপনের কাছে ৩ লাখ টাকা দাবি করেন।

চাকরি পাওয়ার আশায় শিপন তার মা, বোন এবং ভাবির স্বর্ণ গহনা বিক্রি করে চলতি বছরের ৭ ফেব্রুয়ারি সোহেলের উত্তর ভাসানটেক ১৬০/সি নম্বরস্থ বাসায় গিয়ে সন্ধ্যায় দাবিকৃত টাকা দেন। এরপর সোহেল সেনা সদর, ইইন সি’র শাখা পূর্ত পরিদপ্তর, ঢাকা সেনানিবাসের অফিস সহকারী পদে একটি নিয়োগপত্র শিপনকে দেন। ওই পত্রে যোগদানের জন্য ২৪ ফেব্রুয়ারি উল্লেখ ছিল। শিপন ওই তারিখে সোহেলের সঙ্গে যোগাযোগ করলে আবারো ৯ মার্চ যোগদানের জন্য একই পদে একই অফিসের ভিন্ন একটি নিয়োগপত্র দেন এবং আবারো শিপনের কাছে আরো ৩ লাখ টাকা দাবি করেন। পরে শিপন আত্মীয়-স্বজন, পরিবার ও বন্ধু-বান্ধবদের কাছ থেকে ধার দেনা করে ৯ মার্চ সোহেলের বাসায় গিয়ে দাবিকৃত আরো ৩ লাখ টাকা দেন। এরপর শিপন নিয়োগ পত্রে উল্লেখিত তারিখে যোগদান করতে গেলে সোহেল তাকে ঢাকার সিএমএইচ হাসপাতালে মেডিকেল টেষ্ট করতে বলে। এজন্য শিপনকে মিরপুর-১০ নম্বরস্থ একটি আবাসিক হোটেলে থাকতে বলে। সেখানে থাকাকালীন একটি মোবাইল নম্বর থেকে শিপনের ব্যবহৃত মোবাইলে নম্বরে গত ১৭ মার্চ সকালে মেডিকেল টেষ্ট করানো সংক্রান্ত ম্যাসেজ যায়। নির্দিষ্ট তারিখে সোহেল মেডিকেল টেষ্ট করাতে শিপনকে ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট এলাকার মাটিকাটা চেকপোষ্টে অপেক্ষা করার কথা বলে চলে যায়। ওইদিন রাত ১০ টা পর্যন্ত দাড়িয়ে থাকার পর আবারো একই নম্বর থেকে মেডিকেল টেষ্ট করানো কথা বলে নতুন তারিখ সম্বলিত শিপনের মোবাইলে ম্যাসেজ আসে। এরপর শিপন প্রতারনার বিষয়টি বঝুতে পেরে সোহেলের কাছে ৬ লাখ টাকা ও জমাকৃত সকল কাগজপত্র ফেরৎ চইলে সোহেল আত্মগোপন করেন। এরপর পিবিআই প্রধান ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদারের নির্দেশে পিবিআই ঢাকা মেট্রোর (উত্তর) বিশেষ পুলিশ সুপার মো. আবুল কালাম আজাদের দিক-নির্দেশনায় একটি টীম অভিযান চালিয়ে উত্তর ভাসানটেকের রূপালী হাউজের সামনে থেকে সোহেলকে আটক করে।

এ বিষয়ে পিবিআই ঢাকা মেট্রোর বিশেষ পুলিশ সুপার আবুল কালাম আজাদ বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে সোহেল জানিয়েছেন, সোহেল তার স্ত্রী এবং খলিলুর রহমান নামের একজনের সহযোগীতায় শিপনের কাছ থেকে ৬ লাখ ও অপর ভুক্তভোগী দেবাশীষ বিশ্বাসের কাছ থেকে ৬ লাখ টাকা প্রতারণার মাধ্যমে নিয়ে আত্মসাৎ করেছেন। এছাড়া আরো অনেকের কাছ থেকে টাকা ও চাকরির আবেদনপত্র এবং অন্যান্য কাগজপত্র নিয়েছেন তিনি। যা তিনি তার বাসা থেকে বের করে পুলিশকে দেন।

পিবিআই কর্মকর্তা জানান, সোহলের সঙ্গে অজ্ঞাত আরো ৪/৫ জন রয়েছে। যারা পরস্পর যোগসাজশে জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে ভুয়া নিয়োগপত্র তৈরি করে নিজের কাছে রেখে ও ভিকটিমদের ভয়-ভীতি দেখিয়ে প্রতারণার করতো। এ ঘটনায় ভাষানটেক থানায় মামলা হয়েছে। ওই মামলায় সোহেলকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

সুত্র : আমাদের সময়
এন এ/ ০৫ জুলাই

অপরাধ

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে