Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ১১ নভেম্বর, ২০১৯ , ২৭ কার্তিক ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.7/5 (31 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৯-১৬-২০১৩

চিতলমারীতে ভূমিদস্যু রুহুল-মিশকার বাহিনী অপ্রতিরোধ্য


	চিতলমারীতে ভূমিদস্যু রুহুল-মিশকার বাহিনী অপ্রতিরোধ্য

বাগেরহাট, ১৭ সেপ্টেম্বর-: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মস্থান গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়া এবং বাগেরহাট জেলার চিতলমারী সীমান্তবর্তী মধুমতি নদীর দক্ষিন পাড়, চিতলমারী উপজেলার কলাতলা ইউনিয়নের কুনিয়া গ্রাম সংলগ্ন জেগে উঠেছে বিশাল চর। জেগে ওঠা ওই চর টুঙ্গিপাড়া উপজেলার পাটগাতি গ্রামের একাংশ বিলিন হয়ে নদী ভেঙ্গে গড়ে উঠেছে। পাটগাতি গ্রামের কয়েকশ পরিবার তাদের বসত  হারিয়েছে। এমন কি আওয়ামী যুব মহিলা লীগের সভাপতি নাজমা আক্তার (এমপি) তার পিতার বসতভিটা ও হারিয়েছে মধুমতির নদী ভাঙ্গনে। এসব ভাঙ্গনে একদিকে যেমন কয়েকশ পরিবার বসত বাড়ি হারিয়ে নি:স্ব হয়েছে অন্যদিকে জেগে উঠা চরে কুনিয়া গ্রামের কয়েকটি পরিবার এবং হাতে গোনা কিছু ভূমি দস্যুরা রাখাল থেকে লাখোপতি কোটিপতি হয়েছে। আর এ চর দখলকে কেন্দ্র করে চলছে রুহুল আমীন শরীফ এবং একই গ্রামের মিশকাত সেখ ওরেফে রাখাল মিশকারের যৌথ চর দখল রাজত্ব। ভূমিদস্যু রুহুল মিশকার তার বাহিনী নিয়ে প্রায়ই গ্রামের ভূমিহীন গরীব কৃষকদের সাথে চর দখলে নামে রক্তের হলি খেলায় মেতে উঠে। এ বাহিনীর দ্বারা কুনিয়া, চিংগড়ী, মচন্দপুর গ্রামের হাজার মানুষ নির্যাতিত হয়েছে, পঙ্গুত্ব বরন করতে হয়েছে অসংখ্য এলাকাবাসীকে। এদের হাত থেকে রেহায় পায়নি পুলিশ প্রশাসনের সদস্যরাও কয়েক মাস আগে চিতলমারী থানার এএসআই বকতিয়ার আলম এ বাহিনীর দ্বারা মারাত্মক আহত হন। কুনিয়ার এ চরে ১২ মাসে ১৩টি ফসল ফলে। এখানে ধান, সব ধরনের শবজি, চিনা বাদাম সহ অনেক ফসল। অথচ এ ফসল কোন কৃষক ঘরে তুলতে পারে না। এ ফসল যায় রুহুল-মিশকারের বাড়ীতে। এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, রুহুল আমীন শরীফের কাজ এলাকার নিরাহ গরীব মানুষকে চরে জমি দেয়ার কথা বলে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়া আর হয়রানী মূলক মামলা দিয়ে ভূমিহীন কৃষকদের নিজের দাস বানিয়ে রাখা। সে প্রায় আড়াই যুগ ধরে একাজ করলে ও কেউ কোন বাধা কখনো হতে পারিনি। কেন না রুহুল আমীন শরীফ বিএনপির নেতা, মিশকাত সেখ ওরেফে রাখাল মিশকার স্ব-ঘোষিত আওয়ামী লীগ নেতা। তাই যখন যে সরকারই আসুক না কেন এরা ঠিকই উপর মহল ম্যানেজ করে দখলবাজি, দস্যুতা করে পার পেয়ে যাচ্ছে বার বার। রাখাল মিশকার এ চরে গড়ে তুলেছে বিশাল অবৈধ ইটের ভাটা। এদের অত্যাচারে এলাকার সাধারণ মানুষ অতিষ্ট। এলাকার শিক্ষিত এবং সচেতন মহলের দাবি এদের হাত থেকে এ চরকে দখল মুক্ত করে প্রকৃত ভূমিহীনদের মাঝে চরের খাস জমি বরাদ্ধ দেয়া হোক এবং এখানে কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অথবা শিল্প কলকারখানা স্থাপন করা হোক।

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে