Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০১৯ , ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৬-২০-২০১৯

স্ত্রীর সঙ্গে পরকীয়ার জেরে মুয়াজ্জিনকে খুন!

স্ত্রীর সঙ্গে পরকীয়ার জেরে মুয়াজ্জিনকে খুন!

ঝিনাইদহ, ২০ জুন - ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলায় মসজিদের মুয়াজ্জিন সোহেল রানাকে গলাকেটে ও কুপিয়ে হত্যাকাণ্ডের মুলহোতা রাজু আহম্মেদকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গতকাল বুধবার সকালে সদর উপজেলার বাগুটিয়া গ্রামে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত চাপাতি ও নিহতের মুঠোফোন উদ্ধার করা হয়।

গ্রেপ্তারের পর পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে রাজু স্বীকার করেছেন যে, তার স্ত্রীর সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িত থাকায় সোহেলকে কুপিয়ে ও গলাকেটে হত্যা করেছেন তিনি।

গত মঙ্গলবার সকালে সদর উপজেলার বাঘুটিয়া গ্রামের একটি পাটক্ষেত থেকে ওই লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এরপর দুপুরে পুলিশ হত্যার তদন্তে নেমে বলরামপুর গ্রাম থেকে রাজুর স্ত্রী জুলিয়া, তার বাবা ইয়াকুব হোসেন সহ পাঁচজনকে আটক করে।

এ ঘটনায় নিহতের ভাই রিংকু হোসেন বাদী হয়ে অজ্ঞাতদের আসামি করে সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

রাজুকে আটকের পর সংবাদ সম্মেলন করেন ঝিনাইদহ পুলিশ সুপার মো. হাসানুজ্জামান। তিনি জানান, কালীগঞ্জের বলরামপুর গ্রামের হাকিম আলীর মেয়ে জুলিয়া ও কোটচাঁদপুর উপজেলার লক্ষীপুর গ্রামের বকতিয়ার আলীর ছেলে সোহেল রানা চাপালী মাদ্রাসায় লেখাপড়া করতেন। এ সময় তাদের মাঝে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এক পর্ষায়ে বিষয়টি পরিবারের লোকজন জানতে পেরে চার মাস আগে জুলিয়ার বাবা-মা তাকে সদর উপজেলার বাগুটিয়া গ্রামের চাঁদ আলীর ছেলে রাজু আহম্মেদর সঙ্গে বিয়ে দেন। কিন্তু বিয়ের পরও জুলিয়ার সঙ্গে সোহেলের সম্পর্ক অটুট ছিল। তাদের দুজনের মধ্যে মুটোফোনে আলাপ ও দেখা সাক্ষাত ছাড়াও অনৈতিক সম্পর্ক চলছিল।

তিনি আরও জানান, এ বিষয়টি স্বামী রাজু টের পেয়ে গত সোমবার তার স্ত্রী জুলিয়ার মাধ্যমে মুঠোফোনে মুয়াজ্জিন সোহেল রানাকে তাদের বাড়িতে আসতে বলেন। প্রেমিকার ফোন পেয়ে দেখা করতে আসলে রাত ৮টার দিকে রাজু ও তার দুই সহযোগী মিলে সোহেল রানাকে ধরে পাটক্ষেতে নিয়ে কুপিয়ে ও গলাকেটে হত্যা করে পালিয়ে যান।

গত মঙ্গলবার এ হত্যাকাণ্ডে একটি মামলা দায়েরের পরই ঝিনাইদহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কনক কুমার দাস ও সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান অভিযান চালিয়ে জুলিয়া খাতুনকে আটক করেন। পরে তিনি আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেন। এর ভিত্তিতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে বুধবার সকালে রাজু আহম্মেদকে গ্রেপ্তার করে।

সুত্র : আমাদের সময়
এন এ/ ২০ জুন

ঝিনাইদহ

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে