Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শুক্রবার, ১৯ জুলাই, ২০১৯ , ৪ শ্রাবণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)


আপডেট : ০৬-১৬-২০১৯

ওসি মোয়াজ্জেমের গ্রেফতারে যা বলছে নুসরাতের পরিবার

ওসি মোয়াজ্জেমের গ্রেফতারে যা বলছে নুসরাতের পরিবার

ফেনী, ১৬ জুন- ফেনীর সোনাগাজী মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাতকে উত্তক্ত করার অভিযোগে দায়ের করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের পরোয়ানাভুক্ত আসামি সাবেক ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনকে গ্রেফতারের পর শাহবাগ থানায় রাখা হয়েছে। রোববার (১৬ জুন) দুপুরে তাকে শাহবাগ থানাধীন কাদল ফোয়ারার সামনে থেকে গ্রেফতার করা হয়।

মোয়াজ্জেম হোসেনকে গ্রেফতারে নুসরাতের পরিবারসহ ফেনীতে স্বস্তি বিরাজ করছে। তার গ্রেফতারের খবরে নুসরাতের পরিবারের সদস্যরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ব্যারিস্টার সুমনসহ সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে নুসরাতের মা শিরিন আক্তার বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমার মেয়ে হত্যার বিচারের দায়িত্ব নিয়েছেন। উনার কারণে নুসরাত হত্যা মামলার কার্যক্রম দ্রুত এগিয়ে চলছে। ব্যারিস্টার সুমনের করা মামলায় ওসি মোয়াজ্জেম গ্রেফতার হয়েছেন।

তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমনসহ সমগ্র দেশবাসীর কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

নুসরাতের মা বলেন, ওসি মোয়াজ্জেম আমার মেয়ের হত্যাকে আত্মহত্যা হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে সব ধরনের প্রচেষ্টা চালিয়েছেন। আমি তার সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করছি।

মামলার বাদী ও নুসরাতের বড় ভাই নোমান বলেন, ওসি মোয়াজ্জেম তার অফিসে নুসরাতকে নিয়ে নাজেহাল করেছেন, সেটা অত্যন্ত দুঃখজনক। এ গ্রেফতারের মধ্য দিয়ে পুলিশের গ্রহণ যোগ্যতা আরও বেড়ে গেছে।

ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন গ্রেফতারে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে নুসরাতের ছোট ভাই রাশেদুল হাসান রায়হান বলেন, তার বিচার শুরুর মধ্য দিয়ে তাকে সর্বোচ্চ শাস্তি প্রদান করা হোক।

উল্লেখ্য, এর আগে ফেনীতে হত্যাকাণ্ডের শিকার মাদরাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির জবানবন্দির ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়ানোয় অভিযোগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে সোনাগাজী থানার সাবেক ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়।

মাদরাসাছাত্রী নুসরাত জাহানকে গত ৬ এপ্রিল পুড়িয়ে হত্যার চেষ্টা করা হয়। তার দিন দশেক আগে মাদরাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ জানাতে সোনাগাজী থানায় যান নুসরাত। থানার তৎকালীন ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন সে সময় নুসরাতকে আপত্তিকর প্রশ্ন করে বিব্রত করেন এবং তা ভিডিও করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেন।

ওই ঘটনায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হলে আদালতের নির্দেশে সেটি তদন্ত করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। পিবিআই গত ২৭ মে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দিলে ওই দিনই গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়। পরোয়ানা জারির দুইদিন পর মোয়াজ্জেম হোসেন হাইকোর্টে জামিন আবেদন করেন।

সূত্র: বিডি২৪লাইভ
এইচ/২০:১৪/১৬ জুন

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে