Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই, ২০১৯ , ৮ শ্রাবণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.0/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৬-১৪-২০১৯

আজান ও ইক্বামতের মধ্যকার সময়ে যা করবেন

আজান ও ইক্বামতের মধ্যকার সময়ে যা করবেন

আজান মানে ঘোষণা বা আহ্বান। ইসলামি শরিয়তের পরিভাষায় নামাজ আদায়ের জন্য আরবি নির্দিষ্ট শব্দমালা দ্বারা উচ্চ স্বরে ঘোষণা দেওয়াকে আজান বলে। পাঁচ ওয়াক্ত ফরজ নামাজের জন্য আজান দেওয়া সুন্নতে মুয়াক্কাদাহ। নামাজের ওয়াক্ত শুরু হওয়ার আগে আজান দেওয়া যাবে না। কখনো কেউ দিয়ে ফেললে ওয়াক্ত হলে আবার আজান দিতে হবে। নারীদের আজান ও ইকামাত দেওয়া জায়েজ নয়। আজান ও ইকামাত জামাতের নামাজের জন্য সুন্নত, একার জন্যও দেওয়া উত্তম।

আজানের পর নামাজ শুরুর ঠিক আগ মুহূর্তেই দেয়া হয় ইক্বামত। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আজানের পর মুমিন মুসলমানের জন্য কিছু করণীয় পালনের দিক-নির্দেশনা দিয়েছেন।

প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের এ দিক-নির্দেশনা পালনে রয়েছে অনেক উপকারিতা। আর সবচেয়ে বড় উপকারিতা হলো বান্দা এ সময়টিতে যা চাইবে তা-ই পাবে। একাধিক হাদিসে প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এ রকম অনেক ঘোষণা দিয়েছেন।

>> আজান ও ইক্বামতের মধ্যকার সময়টি দোয়া কবুলের অন্যতম সময়। এ সময়ের কোনো চাওয়াই আল্লাহ তাআলা ফেরত দেন না।

হজরত আনাস ইবনে মালেক রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘আজান ও ইক্বামতের মাঝে যে দোয়া করা হয়, তা ফেরত দেয়া হয় না।’ (মুসনাদে আহমদ, আবু দাউদ)

>> মুয়াজ্জিনের সঙ্গে আজানের শব্দগুলো বলার নির্দেশ দিয়েছেন স্বয়ং বিশ্বনবি। অতঃপর তিনি দোয়া করতে বলেছেন। হাদিসে এসেছে-

হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে আমর রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন, এক ব্যক্তি বললো, হে আল্লাহর রাসুল! মুয়াজ্জিনদের মর্যাদা যে আমাদের চেয়ে বেশি হয়ে যাবে, তখন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, তুমিও তা-ই বল, মুয়াজ্জিন যা বলে। তারপর আজান শেষ হলে (আল্লাহর কাছে) চাও। (তখন) যা চাইবে তা-ই দেয়া হবে।’ (আবু দাউদ, মেশকাত)

>> আজান ও ইক্বামতের উত্তর দেয়ায় রয়েছে জান্নাত লাভের ঘোষণা। অপর একটি বর্ণনায় এসেছে- ‘মুয়াজ্জিনের সঙ্গে সঙ্গে যে ব্যক্তি আজানের শব্দগুলো বলবে, সে জান্নাতে যাবে।’ (আবু দাউদ, মেশকাত)

>> মুয়াজ্জিনের আজানের জবাব দেয়ার পর তাওহিদ ও রেসালাতের সাক্ষ্য দেয়ার মাধ্যমে আল্লাহ তাআলা বান্দার সব গোনাহ ক্ষমা করে দেবেন বলেও ঘোষণা দেন বিশ্বনবি। হাদিসের এক বর্ণনায় বলা হয়েছে- ‘যে ব্যক্তি আজান শোনার পর বলবে-

أشْهَدُ أَنْ لَّا إلَهَ إلَّا اللهُ وَحْدَهُ لَا شَرِيْكَ لَهُ وَ أشْهَدُ أنَّ مُحَمَّدًا عَبْدُهُ وَ رَسُوْلُهُ رَضِيْتُ بِاللهِ رَبًا وَّبِمُحَمَّدٍ رَّسُوْلاً وَبِالإسْلَامِ دِيْنًا

উচ্চারণ : ‘আশহাদু আললা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াহদাহু লা শারিকা লাহু ওয়া আশহাদু আন্না মুহাম্মাদান আবদুহু ওয়া রাসুলুহু; রাদিতু বিল্লাহি রাব্বাও ওয়া বিমুহাম্মাদির রাসুলাও ওয়া বিল ইসলামে দ্বীনা।’

অর্থ : আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, এক আল্লাহ ব্যতিত কোনো উপাস্য নেই, তার অংশীদার নেই। আমি আরো সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাঁর বান্দা ও রাসুল। আমি আল্লাহকে রব হিসেবে এবং মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে রাসুল হিসেবে এবং ইসলামকে দ্বীন হিসেবে মেনে নিয়েছি। তাহলে তার গোনাহসমূহ ক্ষমা করে দেয়া হবে।’ (মুসলিম, আবু দাউদ, মিশকাত)

মনে রাখা জরুরি:

অল্প আমলের মাধ্যমেই মানুষ অনেক সাওয়াব লাভ করবে। প্রতিদিনই মানুষ আজান ও ইক্বামত শুনে থাকে। আজান ও ইক্বামতের উত্তর দেয়ার মাধ্যমেই মানুষ গোনাহ মাফ, নিশ্চিত জান্নাত লাভ এবং মনের একান্ত চাওয়াগুলোর পরিপূর্ণতা নিশ্চয়তা রয়েছে।

সুতরাং মুমিন মুসলমানের উচিত আজান শোনার সঙ্গে সঙ্গে আজানের শব্দগুলো যথাযথ উচ্চারণ করা এবং আল্লাহর কাছে একান্ত চাওয়াগুলো লাভে রোনাজারি করা। কেননা তাতে এক দিকে যেমন হাদিসের ওপর যথাযথ আমল হবে অন্যদিকে প্রিয় নবি ঘোষিত উপকারিতাগুলো অর্জিত হবে।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে দুনিয়া ও পরকালে সফলতা লাভে মনের একান্ত চাওয়াগুলোর পূরণে নিয়মিত আজান ও ইক্বামতের উত্তর দেয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।

আর এস/  ১৪ জুন

ইসলাম

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে