Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ২৭ জানুয়ারি, ২০২০ , ১৪ মাঘ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.8/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১২-০২-২০১১

সু চির বাড়িতে নৈশভোজে হিলারি

সু চির বাড়িতে নৈশভোজে হিলারি
নোবেল বিজয়ী গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী অং সান সু চির সঙ্গে দ্বিতীয় দফা বৈঠকের মধ্য দিয়ে শুক্রবার ঐতিহাসিক মিয়ানমার সফরের ইতি টানবেন হিলারি ক্লিনটন। গত পাঁচ দশকে মিয়ানমারে এটাই কোনো মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রথম সফর।

বুধবার মিয়ানমারে পৌঁছানোর পর বৃহস্পতিবার ইয়াংগুনে সু চির বাড়িতে একান্তে নৈশভোজে অংশ নেন হিলারি। দুই নেতার মধ্যে এটাই ছিল প্রথম সাক্ষাৎ।

হিলারি বিভিন্ন সময়ে সু চিকে উল্লেখ করেছেন নিজের রাজনৈতিক জীবনের অনুপ্রেরণা হিসেবে। মিয়ানমার ছাড়ার আগে শুক্রবারও এক দফা বৈঠক করবেন তারা। এই বৈঠকে নাগরিক অধিকার ও গণতন্ত্রের বিষয়টি গুরুত্ব পাবে বলেই বিশ্লেষকদের ধারণা।

বৃহস্পতিবার ডিনারের আগে সু চির বাড়ির সামনে তার কর্মী ও সমর্থকদের সঙ্গে দাঁড়িয়ে হিলারি বলেন, আপনাকে ঘিরে এই যে এতোগুলো নিবেদিতপ্রাণ মানুষের উপস্থিতি- এর গুরুত্ব আমি বুঝি। এখানেই পার্থক্যটা প্রমাণ হয়ে যায়।

সু চি তার মার্কিন অতিথিকে স্বাগত জানিয়ে ভেতরে নিয়ে যাওয়ার সময় হিলারি বলেন- আপনার বাড়িটা দারুণ।

সামরিক জান্তার শাসনের অবসান এবং গণতন্ত্রের দাবিতে আন্দোলনের মধ্য দিয়ে মিয়ানমারের অবিসংবাদিত নেতায় পরিণত সহওয়া সু চির দীর্ঘদিন বন্দি জীবন কেটেছে ইয়াংগুনের এই বাড়িতেই।

বিশ্লেষকরা বলছেন, হিলারি ক্লিনটনের এই সফরের মধ্য দিয়ে মিয়ানমার-যুক্তরাষ্ট্র সম্পর্কে এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা হতে যাচ্ছে।

বুধবার রাজধানী নিপিধোতে প্রেসিডেন্ট থিন সেইনের সঙ্গে বৈঠক করেন হিলারি। তিনি ইংগিত দেন, মিয়ানমার রাজবন্দিদের মুক্তি দেওয়াসহ সহিংসতা বন্ধের যেসব উদ্যোগ নিয়েছে তা আরো স?প্রসারণ করা হলে ভবিষ্যতে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্রের সহযোগিতা বৃদ্ধি পাবে। পাশাপাশি দুই দেশের কূটনৈতিক সম্পর্কেরও উন্নতি হবে।

তবে একইসঙ্গে তিনি স্পষ্ট করেন, মিয়ানমারকে আরো বেশি সংস্কার আনতে হবে। বাতিল করতে হবে উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে গোপন সামরিক চুক্তি।

বিনিময়ে মিয়ানমারের সঙ্গে বিশ্ব ব্যাংক বা আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) সহযোগিতা স?প্রসারণের পথে যুক্তরাষ্ট্র আর বাধা হয়ে দাঁড়াবে না। তাছাড়া মিয়ানমারে মাদক-বিরোধী কর্মসূচি এবং জাতিসংঘের স্বাস্থ্য কর্মসূচিতেও সহায়তা দেবে যুক্তরাষ্ট্র।

চলতি বছর দেশের বেশ কিছু রাজবন্দিকে মুক্তি দেওয়াসহ গণতন্ত্রীপন্থী নেত্রী অং সান সু চিকে রাজনৈতিকভাবে সক্রিয় হওয়ার সুযোগ দেয় মিয়ানমার সরকার। দেশটি দীর্ঘদিন সামরিক শাসনের অধীনে থাকলেও গত নভেম্বরে নির্বাচনের মাধ্যমে সেনা সমর্থিত বেসামরিক সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করা হয়।

এশিয়া

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে