Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বুধবার, ১৯ জুন, ২০১৯ , ৫ আষাঢ় ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.1/5 (29 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১২-০১-২০১১

টিপাই মুখ বাঁধ নির্মাণ বন্ধের দাবীতে মিশিগান বিএনপির প্রতিবাদ সভা

টিপাই মুখ বাঁধ নির্মাণ বন্ধের দাবীতে মিশিগান বিএনপির প্রতিবাদ সভা
২৭শে নভেম্বর-২০১১ইং রবিবার মিশিগান বিএনপির উদ্যোগে টিপাই মুখ বাঁধ নির্মাণ বন্ধের দাবীতে এক প্রতিবাদ সভার সভা অনুষ্ঠিত হয়। মিশিগান বিএনপির নিজস্ব কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এই সভার সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি দেওয়ান আকমল চৌধুরীর ও পরিচালনায় করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মোঃ নওশের আলম। দেওয়ান আবুজার চৌধুরীর পবিত্র কোরান তেলায়াতের মধ্যমে সভার কার্যক্রম শুরু করা হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট সমাজ সেবক প্রকোশলী জনাব মোঃ সাইফুল ইসলাম। সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন,উপদেষ্ঠা জনাব ফখরুল ইসলাম লয়েছ, উপদেষ্ঠা জনাব খন্দকার ইউসুফ কামাল, কাউন্সিলম্যান জনাব মোঃ কামরুল হাসান, বিশিষ্ট সাংবাদিক জনাব সৈয়দ সাহেদুল হক, বিশিষ্ট সমাজ সেবক জনাব দেওয়ান আবুজার চৌধুরী, প্রমুখ।

সভায় বক্তারা বলেন, বাংলাদেশকে দেয়া একটি ওয়াদা ও ভারত এ পর্যন্ত রক্ষা করেনি। যেমনঃ- ১। তারা আমাদের তালপট্টি ফিরিয়ে দেয়নি।  ২। পরিক্ষা মুলক ভাবে মাত্র ৪১ দিনের কথা বলে ভারত ফারাক্কা বাঁধ চালু করেছিল কিন্ত আজ প্রায় তিন যুগ হয়েছে এখন পর্যন্ত তা বন্ধ করেনি। ফারাক্কা বাঁধ এখন বাংলাদেশের মানুষের জন্য এক মরণফাঁদ। এ বাঁধের কারণে দেশের উত্তরাঞ্চল মরুভূমিতে পরিণত হয়েছে।  ৩। ঘুর্ণিঝড় আইলায় ক্ষতি গ্রস্থ এলাকায় একটি গ্রাম ভারত তাদের নিজের খরচে পুন নির্মাণ করে দেওয়ার ঘোষনা দিয়াছিল ভারতে বিদেশ মন্ত্রী। কিন্ত এখন পর্যন্ত তার কোন উদ্ধোগই নেয় নাই।  ৪। বার বার পতিশ্রুতি দিয়েও বহুল আলোচিত তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তির বেলায় ও ভারত ওয়াদা ভঙ করেছে।  ৫। ভারত আবার ওয়াদা ভঙ করে বাংলাদেশকে না জানাইয়াই টিপাইমুখ বাঁধ নির্মাণের উদ্দেশ্যে দেশীয় ও  আন্তর্জাতিক কোনো আইনের তোয়াক্কা না করে সম্পূর্ণ অবৈধভাবে ভারতের জাতীয় জলবিদ্যুৎ সংস্থা (এনএইচপিপি),রাষ্ট্রায়ত্ত জলবিদ্যুৎ সংস্থা ও মণিপুর রাজ্য সরকারের মধ্যে ২৩ অক্টোবর ২০১১ইং যৌথ বিনিয়োগ চুক্তি করেছে। ভারত টিপাইমুখে বাঁধ দিয়ে বাংলাদেশের পূর্বাঞ্চলকে আরেকটি মরুভূমিতে বানানোর ষড়যন্ত্র করছে। টিপাইমুখ বাঁধ নিয়ে ভারতের এই ঘৃণ্য ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে বাংলাদেশ সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বসবাস রত সকল বাংলাদেশীরা যখন সোচ্চার তখন বাংলাদেশের তাঁবেদার সরকার দেশপ্রেমিক জনতার সভা সমাবেস বানচাল করার জন্য তাদের পেটুয়া বাহিনী ও পুলিশ ব্যাবহার করে (১৪৪ ধারা জারি করে) ভারতকে ষড়যন্ত্র বাস্তবায়নে সহযোগিতা করছে। শেখ হাসিনার সরকার ভারতীয় দালাল ও মীরজাফর।

বক্তারা আরও বলেন,বর্তমান সরকারের নতজানু পররাষ্ট্রনীতির কারণেই ভারত টিপাইমুখে বাঁধ নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণের সুযোগ পেয়েছে। বিনিয়োগ চুক্তি স্বাক্ষরের প্রায় এক মাস পর বাংলাদেশের গণমাধ্যমে খবরটি প্রকাশিত হওয়ার পর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিষয়টি জানতে পারে। এটি কি সরকারের কূটনৈতিক ব্যর্থতা না কি, ভারতের স্বার্থে জেনে ও না জানার ভান করা ? এই সেবা দাস সরকারের উপর চাপ সৃষ্টি করে টিপাইমুখে বাঁধের ব্যাপারে ভারতের কাছে জোর প্রতিবাদ জানাতে বার্ধ্য করিতে হইবে। ১লা ডিসেম্বর সিলেটের হরতাল কর্মসূচি সফল করার জন্য সবাইকে আহব্বান জানিয়ে সভার সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।

যূক্তরাষ্ট্র

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে