Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন, ২০১৯ , ১২ আষাঢ় ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.0/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৬-০৬-২০১৯

পাইলটদের কি পাসপোর্ট-ভিসা লাগে?

চৌধুরী আকবর হোসেন


পাইলটদের কি পাসপোর্ট-ভিসা লাগে?

উড়োজাহাজে দায়িত্ব পালনের অংশ হিসেবে দেশ-বিদেশে ঘুরে বেড়ান পাইলট ও কেবিন ক্রুরা। বিমানের যাত্রীদের অন্য দেশে প্রবেশের ক্ষেত্রে প্রয়োজন হয় পাসপোর্ট ও সংশ্লিষ্ট দেশের ভিসা। কিন্তু পাইলট ও কেবিন ক্রুদের কি পাসপোর্ট-ভিসা লাগে? এ প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন বাংলাদেশের কয়েকজন পাইলট।

আন্তর্জাতিক ভ্রমণের ক্ষেত্রে পাসপোর্ট খুব গুরুত্বপূর্ণ। অন্য দেশে প্রবেশের জন্য এতে থাকতে হয় ভিসা। বলা যায়, কোনও দেশে প্রবেশের মূল চাবি পাসপোর্ট ও ভিসা। তাই যাত্রীদের বিদেশে যেতে হলে অবশ্যই ভিসা সংগ্রহ করতে হয়। দূতাবাস থেকে এটি যুক্ত করে দেওয়া হয় পাসপোর্টে।

তবে কোনও কোনও দেশে যাওয়ার আগে ভিসা না লাগলেও সেগুলোর বিমানবন্দরে গিয়ে ইমিগ্রেশন থেকে ভিসা সংগ্রহ করতে হয়। একইভাবে কূটনৈতিকসহ কোনও কোনও ক্ষেত্রে ভিসা না লাগলেও বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশনে পাসপোর্ট দেখিয়ে প্রবেশ করতে হয়।

দেশের কয়েকটি বাণিজ্যিক এয়ারলাইনসের পাইলটরা এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, আন্তর্জাতিক ভ্রমণের বেলায় পাইলট ও কেবিন ক্রুদের ভিসার প্রয়োজন নেই। একইসঙ্গে ফ্লাইটে দায়িত্বরত প্রকৌশলীকেও ভিসা নিতে হয় না। তবে সবাইকে অবশ্যই পাসপোর্ট সঙ্গে রাখতে হবে।

ভিসা ছাড়া কীভাবে দেশ-বিদেশে ঘুরে বেড়ান পাইলট ও কেবিন ক্রুরা, এমন প্রশ্নের জবাবে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসের পাইলট জাকারিয়া এ প্রতিবেদককে বলেন, ‘পাইলটদের জন্য ইন্টারন্যাশনাল সিভিল এভিয়েশন অর্গানাইজেশন (আইকাও) ও ইন্টারন্যাশনাল এয়ার ট্রান্সপোর্ট অ্যাসোসিয়েশনের (আএটিএ) কিছু নিয়ম-নীতি আছে। নিয়মানুযায়ী পাইলট ও কেবিন ক্রুরা যে এয়ারলাইনসে কাজ করেন, সেই বিমান সংস্থা থেকে তাদের জন্য জেনারেল ডিক্লারেশন (জিডি) ইস্যু করা হয়। অর্থাৎ পাইলট ও ক্রুদের দায়িত্ব নেয় এয়ারলাইনস। সেজন্য জেনারেল ডিক্লারেশনে কতজন পাইলট ও কেবিন ক্রু ফ্লাইটে যাবেন তাদের নাম, জন্ম তারিখ, পাসপোর্ট নম্বর, ফ্লাইট নম্বর, গন্তব্যসহ প্রয়োজনীয় তথ্য উল্লেখ থাকে।’

তবে ব্যতিক্রম হয় বলেও জানালেন ক্যাপ্টেন জাকারিয়া, ‘কয়েকটি দেশে অবশ্য পাইলট ও ক্রুদের ভিসা নিতে হয়। তবে সেটা যাত্রীদের মতো নয়। তাদের জন্য আলাদা ধরনের ভিসা দেওয়া হয়। যেমন চীনে যেতে হলে পাইলটদের ভিসা লাগে। এক্ষেত্রে চীন একবছর মেয়াদি ভিসা দিয়ে থাকে।’

পাইলট ও কেবিন ক্রুরা কীভাবে অন্য দেশে প্রবেশ করেন জানতে চাইলে বাংলাদেশ এয়ারলাইনস পাইলটস অ্যাসোসিয়েশনের (বাপা) সভাপতি ক্যাপ্টেন মাহবুবুর রহমান এ প্রতিবেদককে বলেন, ‘যাত্রী নিয়ে কোনও দেশের বিমানবন্দরে গেলেও সবসময় সেখানে পাইলট ও কেবিন ক্রুদের প্রবেশের প্রয়োজন হয় না। তবে চাইলে তারা প্রবেশ করতে পারবেন। সেক্ষেত্রে পাইলট ও ক্রুদের সংশ্লিষ্ট দেশের বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশনে জেনারেল ডিক্লারেশন (জিডি) কপি ও পাসপোর্ট দেখাতে হয়। এসব দেখে ইমিগ্রেশনের কর্মকর্তারা যাচাই-বাছাই করে প্রবেশের অনুমতি দেন।’

ক্যাপ্টেন জাকারিয়া জানালেন, বিদেশে গেলে তারা ইমিগ্রেশনে জিডির কপি ও পাসপোর্ট দেখান। ইমিগ্রেশনে জিডির কপি জমা দিতে হয়। এর ভিত্তিতে পাইলটকে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয়ে থাকে।

জিডির কপি দেখিয়ে কতদিন বিদেশ থাকা যাবে? ক্যাপ্টেন জাকারিয়ার উত্তর, ‘একেক দেশে একেক নিয়ম। কোনও দেশে তিন দিন থাকা যায়, কোনও দেশে সাত দিন। আবার কোনও দেশে ২১ দিন পর্যন্ত থাকতে পারেন পাইলটরা।’

অতিরিক্ত দিন থাকার সুযোগ আছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে ক্যাপ্টেন মাহবুবুর রহমান বলেছেন, ‘সাধারণত কেউ নিয়ম ভেঙে অতিরিক্ত সময় থাকেন না। তবে কোনও কারণে উড়োজাহাজ নষ্ট হলে বা পাইলট নিজে অসুস্থ হলে অতিরিক্ত সময় থাকার প্রয়োজন হতে পারে। সেক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দেখাতে হয়।’

ভিসা দরকার না হলেও পাইলট ও ক্রুদের পাসপোর্ট সঙ্গে রাখতে হবে বলে উল্লেখ করেন ক্যাপ্টেন মাহবুবুর রহমান। তার মন্তব্য, ‘পাসপোর্ট অত্যাবশ্যকীয় একটি জিনিস। যেকোনও দেশেই পাসপোর্ট দেখতে চাইবে। পাসপোর্ট একজন ব্যক্তির পরিচয় বহন করে। জেনারেল ডিক্লারেশন (জিডি) কপিতে পাইলট ও ক্রুদের নাম লেখা থাকে। কিন্তু যার নাম লেখা আর যিনি জিডির কপি সঙ্গে রেখেছেন, তিনি একই ব্যক্তি কিনা সেটা প্রমাণ হয় পাসপোর্টে।’

অভ্যন্তরীণ রুটের ক্ষেত্রেও পাসপোর্ট সঙ্গে রাখা প্রয়োজন বলে জানান ক্যাপ্টেন জাকারিয়া। তিনি এর কারণ ব্যাখ্যা করেছেন এভাবে, ‘অনেক সময় বৈরী আবহাওয়ার কারণে ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম যাওয়ার পথে ফ্লাইটের রুট পরিবর্তন করে কলকাতা বিমানবন্দরে নিতে হয়। তখন আইনি জটিলতা এড়াতে পাসপোর্ট থাকা দরকার।’

পাসপোর্ট ছাড়া অন্য দেশে প্রবেশের চেষ্টা করলে জরিমানা গুনতে হয় পাইলটকে। ক্যাপ্টেন মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘পাইলট যদি ভুলক্রমে পাসপোর্ট ছাড়া কোনও দেশে যান তাহলে কোনও কোনও দেশে তাকে জরিমানা দিতে হয়। এর পরিমাণ একেক দেশে একেক রকম।’

বাংলাদেশ থেকে বিদেশে যাওয়ার ক্ষেত্রে বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশনে জিডি কপির সঙ্গে পাসপোর্ট দেখানোর নিয়ম আছে বলে জানান এই দুই পাইলট।

আর/০৮:১৪/০৭ জুন

জানা-অজানা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে