Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন, ২০১৯ , ১২ আষাঢ় ১৪২৬

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৫-২৪-২০১৯

১২ লাখ টাকায় প্রাথমিকের প্রশ্ন ফাঁস, ২১ জন কারাগারে

মোস্তাক আহমেদ


১২ লাখ টাকায় প্রাথমিকের প্রশ্ন ফাঁস, ২১ জন কারাগারে

সাতক্ষীরা, ২৪ মে- ১২ লাখ টাকায় প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের দায়ে ২১ জনকে দুই বছর করে কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আমিনুর রহমান।    

আজ শুক্রবার সকালে সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলা সংলগ্ন সোনালী সুপার মার্কেটের তৃতীয় তলায় অবস্থিত ‘কিডস ক্লাব’ কোচিং সেন্টারের ব্লাক বোর্ডে ফাঁস করা প্রশ্নপত্রের উত্তর লিখে দেওয়ার সময় ওই ২১ জনকে আটক করা হয়। র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) ও জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার (এনএসআই) সদস্যরা যৌথভাবে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে।  

কারাদণ্ডপ্রাপ্ত ২১ জনের মধ্যে পাঁচজন প্রশ্ন ফাঁস চক্রের হোতা। বাকি ১৬ জন শিক্ষার্থী।

আটক ওই পাঁচ হোতা হলেন, কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা থানার পরানখালি গ্রামের ব্যবসায়ী আবদুল হালিম, কলারোয়ার ঝাপাঘাটা গ্রামের আবদুল আজিজের ছেলে, কিডস ক্লাব কোচিং সেন্টারের পরিচালক ও জনতা ব্যাংক সেনেরগাতি (পাটকেলঘাটা) শাখার ম্যানেজার আফতাব আহম্মেদ, শিক্ষক আমিরুল ইসলাম, আশাশুনি উপজেলার চেউটিয়া গ্রামের কৃষি ব্যাংক ম্যানেজার মনিরুল ইসলাম, কাকবাশিয়া গ্রামের শিক্ষক তরিকুল ইসলাম।

সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব-৬-এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল সৈয়দ নুর সালেহীন জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কলারোয়ার পাশের সোনালী সুপার মার্কেট এলাকায় অভিযান চালিয়ে সাত নারীসহ ২৮ জনকে আটক করা হয়। পরে তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তালা উপজেলার ধানদিয়া এলাকা থেকে আবদুল হালিম নামের এই চক্রের আরেক হোতাকে আটক করা হয়। এ নিয়ে মোট ২৯ জনকে আটক করে র‌্যাব। এর মধ্যে ২১ জনকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ২ বছরের সাজা প্রদান করা হয়। বাকি আটজনের (অভিভাবক) বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ না পাওয়ায় তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়।

সৈয়দ নুর সালেহীন বলেন, ‘আমরা জানতে পেরেছি, ঢাকায় বসে একটি প্রশ্ন ফাঁসকারী চক্র ১২ লাখ টাকার চুক্তিতে তাদের কাছে মোবাইল ফোনে প্রশ্ন ও তার উত্তর বলে দেবে। এসব প্রশ্ন ও উত্তর ব্লাকবোর্ডে লিখে পরীক্ষার্থীদের মধ্যে ছড়িয়ে দেওয়ার সময় তাদের আটক করা হয়। এ জন্য সিন্ডিকেটের হাতে অগ্রিম পাঁচ লাখ টাকা দিতে হয়েছে পরীক্ষার্থীদের। বাকি টাকা পরীক্ষা শেষে দেওয়ার কথা ছিল।’

র‌্যাবের এই কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘প্রদারক চক্রটির কাছ থেকে যে প্রশ্নপত্র উদ্ধার করা হয়েছে তার সঙ্গে মূল প্রশ্নে হুবহু মিল পাওয়া গেছে।’

আর/০৮:১৪/২৪ মে

অপরাধ

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে