Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ২০ মে, ২০১৯ , ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৫-১৫-২০১৯

প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিচার চাইলেন মারিয়া-সানজিদা

প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিচার চাইলেন মারিয়া-সানজিদা

ঢাকা, ১৫ মে- মঙ্গলবার ভোরে দুর্বৃত্তদের দেয়া আগুনে পুড়ে গেছে ময়মনসিংহের ধোবাউরা উপজেলার কলসিন্দুর উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অফিস কক্ষ। যে কক্ষে ছিল স্কুলের মেয়ে ফুটবলারদের ট্রফি, পদক ও সনদ। সেগুলোও পুড়ে ছাই হয়েছে।

ওই স্কুলের ছাত্রী মারিয়া মান্ডা ও সানজিদা, তহুরা এবং মারজিয়া, শামনুন্নাহাররা এখন জাতীয় দলের গুরুত্বপূর্ণ ফুটবলার। নিজেদের স্কুলের অফিস কক্ষ ও তাদের কস্টে অর্জিত খেলার উপহার সামগ্রী পুড়ে যাওয়ায় ভীষণ কস্ট পেয়েছেন তারা।

বুধবার দুপুরে বাফুফে ভবনের পাশে টার্ফে দাঁড়িয়ে দুই সিনিয়র খেলোয়াড় মারিয়া মান্ডা ও সানজিদা আক্তার এ ঘটনার তৃতীয় নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানোর পাশপাশি বিচার চাইলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে।

মারিয়া মান্ডা বলেছেন, ‘আমরা প্রথমে জানিনি। আজ (বুধবার) সকালে আমাদের স্যার (কোচ গোলাম রব্বানি ছোটন) সবাইকে জানিয়েছেন যে, আমাদের স্কুলে এমন একটা ঘটনা ঘটেছে। শোনার পর মন খারাপ করেছে। আমরা যখন ভালো রেজাল্ট করে তখন আমাদের মেডেল হাতে দিয়ে দেয়া হয়। যারা জুনিয়র তাদের অনেকের ট্রফি, মেডেল সনদ অফিস রুমে ছিল। এখানে ক্যাম্পে আছে এমন অনেকের দেয়া হয়নি।’

আপনার ব্যক্তিগত পদক, ট্রফি এবং সনদ কী ওখানেই ছিল? ‘আমার ব্যক্তিগতগুলো বাসায় নিয়ে রেখেছিলাম। তবে দলীয়ভাবে অর্জন করা ট্রফিগুলো স্কুলেই ছিল। শোনার পর থেকে অনেক মন খারাপ। আমরা চাই এর সুষ্ঠ বিচার হোক। তদন্ত হলে দোষীদের বের করা যাবে। প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমরা এর বিচার চাই। যারা এমন কাজ করেছে তাদের যেন শাস্তি দেয়া হয়। এস সব ঘটনা ঘঠলে আমাদের জন্য সমস্যা। এমন হলে তো আমরা এগুতে পারবো না। যারা অপরাধ করেছে তাদের শাস্তি হওয়া উচিত। আমরা এর নিন্দা জানাই। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা হলে আমরা দোষীদের শাস্তি দিতে বলবো’- বলেছেন মারিয়া মান্ডা।

সানজিদা আক্তার বলেছেন, ‘সকালে নাস্তার করার সময় শুনেছি এ ঘটনা। খুব খারাপ লাগছে। আমরা ওই স্কুলে পড়েছি। ওই স্কুলের মাঠে অনেক খেলেছি। যে ব্যক্তি এমন জঘন্য কাজ করেছে তাকে সনাক্ত করে যেন শাস্তি দেয়া হয়। আমার ব্যক্তিগত ট্রফি, সনদ ও পদক বাসায় আছে। দলীয়ভাবে জেতা স্মৃতিগুলো ছিল স্কুলে। তবে জুনিয়র মেয়েদেরগুলো পুড়ে গেছে। কারণ, অনেকে সনদ, পদক ও ট্রফি নিতে পারেনি।’

এমএ/ ০৮:২২/ ১৫ মে

ফুটবল

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে