Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 1.7/5 (3 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৯-০৪-২০১৩

প্রধানমন্ত্রীকে পা ছুঁয়ে ক্ষমা চাইলেন খ ম জাহাঙ্গীর


	প্রধানমন্ত্রীকে পা ছুঁয়ে ক্ষমা চাইলেন খ ম জাহাঙ্গীর

ঢাকা, ৪ সেপ্টেম্বর- ছাত্রলীগের দুর্দিনের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পেয়েছিলেন আ খ ম জাহাঙ্গীর হোসাইন। ছাত্রলীগের রাজনীতিতে যারা চরম দুঃসময়ে উঠে এসেছেন তিনি তাদেরই একজন। স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছেন সাবেক এ ছাত্রনেতা। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সহ-দপ্তর সম্পাদকের দায়িত্বও পালন করেছেন খ ম জাহাঙ্গীর। কিন্তু এক-এগারোর পর সংস্কারপন্থীর ‘তকমা’ লাগার পর গত নির্বাচনে দলের মনোনয়ন পাননি একসময়ে বরিশাল অঞ্চলে আওয়ামী লীগের দাপুটে এই নেতা। তবে ইদানিং দলের সঙ্গে তার দূরত্ব কমিয়ে আনতে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন তিনি। এজন্য কদিন আগে আ খ ম জাহাঙ্গীর দলের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেছেন বলে সূত্রে জানা গেছে।

ঘনিষ্ঠ সূত্র জানায়, গণভবনে দেখা করতে গেলে প্রধানমন্ত্রী তাকে দেখে বলেন, ‘আবার কী মতলবে এসেছ? আবার কী পরিকল্পনা করছ।’ এসময় আ খ ম জাহাঙ্গীর চুপ করে ছিলেন। এক পর্যায়ে তিনি প্রধানমন্ত্রীর পা ধরে অতীত ভুলের জন্য ক্ষমা চান। তিনি বলেন, ‘যা ভুল হবার হয়েছে। আর কখনও হবে না। এবারের মত মাফ করে দিন।’ প্রধানমন্ত্রী তার কথাগুলো চুপ করে শুনছিলেন। কিন্তু আ খ ম জাহাঙ্গীর মাফ পেতে কাকুতি-মিনতি চলিয়ে যাচ্ছিলেন। এক পর্যায়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এলাকায় ফিরে যাও। দলের জন্য কাজ কর।’
 
এর আগে গত ১৫ আগস্ট টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো সময় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা গিয়েছিল আ খ ম জাহাঙ্গীরকে। সূত্রে জানা গেছে, পটুয়াখালী-৩ আসনের সাংসদ গোলাম মাওলা রনির বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের জন্য দলের হাইকমান্ড তার ওপর নাখোশ। স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের বড় একটি অংশ আগামী নির্বাচনে রনির বিকল্প চেয়েছেন। এসুযোগে জাহাঙ্গীর হোসাইন স্থানীয় পর্যায়ে তার অবস্থানকে আরও সুদৃঢ় করার চেষ্টা করছেন। তাছাড়া সর্বশেষ সাংবাদিক পেটানোর অভিযোগে সাংসদ রনি কারাগারে বন্দি হওয়ার পর নতুন আশায় বুক বাঁধছেন আ খ ম জাহাঙ্গীর। তার ঘনিষ্ঠ সূত্র জানায়, আগামী নির্বাচনে পটুয়াখালী-৩ আসন থেকে গোলাম মাওলা রনি আওয়ামী লীগের টিকিট নাও পেতে পারেন। আর এই সুযোগটাকেই কাজে লাগাতে চাইছেন খ ম জাহাঙ্গীর। আগামীতে দল থেকে নির্বাচনের টিকিট চাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন সাবেক এই সাংসদ।
 
তথ্যমতে, স্বাধীনতা পরবর্তী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পুটয়াখালী-৩ আসনে ১৯৭৯ ও ১৯৯৬ সালে বিএনপি, ১৯৮৪ ও ১৯৮৬ সালে জাতীয় পার্টি নির্বাচিত হয়। বাকী নির্বাচনগুলোতে ওই আসনটি আওয়ামী লীগের দখলে রেখেছিলেন আ খ ম জাহাঙ্গীর। ১৯৯১ সাল থেকে ওয়ান ইলেভেনের আগ পর্যন্ত আওয়ামী লীগের সাবেক এই কেন্দ্রীয় নেতা পরপর তিন বার সাংসদ নির্বাচিত হন।  তবে  ওয়ান ইলেভেনে সময় সংস্কারবাদীদের তালিকায় নাম লেখানোয় ২০০৮ সালের নির্বাচনে দল থেকে মনোনয়ন পাননি তিনি।
জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফর উল্লাহ ঢাকা টাইমস টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, সাড়ে চার বছর পর দলের মধ্যেকে কোন পন্থী- এই ইস্যুটি আর নেই। থাকা উচিতও নয়। এখন দলের জন্য সবাই নিবেদিত হয়ে কাজ করবেন এটাই প্রত্যাশা।
 
এব্যাপারে কথা বলার জন্য আ খ ম জাহাঙ্গীরের মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি ধরেননি।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে