Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ২১ অক্টোবর, ২০১৯ , ৫ কার্তিক ১৪২৬

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৪-২৫-২০১৯

বিএনপি(ফখরুল) বনাম বিএনপি(মোশাররফ)

বিএনপি(ফখরুল) বনাম বিএনপি(মোশাররফ)

ঢাকা, ২৫ এপ্রিল- বিএনপি’র নির্বাচিত সংসদ সদস্য জাহিদুর রহমান জাহিদের শপথের মধ্যে দিয়ে দলটির ভাঙন প্রক্রিয়ার সূচনা হলো বলে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহল মনে করছে। এর মাধ্যমে বিএনপি স্পষ্টত দ্বিধা বিভক্ত হয়ে পড়েছে। মাত্র দু’দিন আগে বিএনপি তার স্থায়ী কমিটির বৈঠকে সিদ্ধান্ত নিয়েছিল যে, দলটির কেউ জাতীয় সংসদ অধিবেশনে যোগ দেবে না এবং বেগম খালেদা জিয়ার প্যারোলে মুক্তির জন্য কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করবে না।

একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র বলছে যে, এই বৈঠকে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ গ্রহণের ব্যাপারে এখনই কোনো হার্ডলাইন না নেওয়ার পক্ষে মতামত দিয়েছিলেন। কিন্তু ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেনসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দের চাপে স্থায়ী কমিটিতে ওই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছিল। কিন্তু স্থায়ী কমিটির সিদ্ধান্তের ৭২ ঘন্টার বিএনপির একজন সদস্য শপথ নিলেন।

এমন একজন সংসদ সদস্য শপথ নিয়েছেন, যিনি মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এলাকার নেতা। মির্জা ফখরুল ইসলামের ছত্রছায়ায়ই তিনি বিএনপিতে বেড়ে উঠেছেন। বিএনপির একাধিক নেতারা বলেছেন যে, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের ইঙ্গিতে এবং তার নির্দেশেই জাহিদুর রহমান শপথ গ্রহণ করেছেন। গতকাল রাতেও মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বাসভবনে জাহিদ দীর্ঘ বৈঠক করেছেন বলে বিএনপির একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।

বিএনপির একজন নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সরকারের কাছে মুচলেকা দিয়েছেন যে, যেকোনো মূল্যে তিনি সংসদের কার্যক্রমে বিএনপিকে অংশগ্রহণ করাবেন। বিপুল পরিমান অর্থের বিনিময়েই তিনি সরকার নির্দেশিত পথে দলকে পরিচালিত করছেন বলেও ঐ নেতা দাবি করেন। তিনি বলেন যে, নির্বাচনের আগে যদি বিএনপি শর্ত দিত যে বেগম খালেদা জিয়াকে প্যারোল বা জামিন দিতে হবে। দিলেই তারা নির্বাচনে যাবে। এমন কোন দাবি উথাপন করা হলে সরকার নি:সন্দেহে সে দাবি মেনে নিতো। সেক্ষেত্রে বিএনপি খালেদা জিয়ার মুক্তি নিয়ে নির্বাচন করলে বিএনপি অনেক ভালো ফলাফল করতো। কিন্তু যেহেতু সরকারের অনুগত হিসেবে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর পরিচয় লাভ করেছে। সেজন্য বিএনপি সে সময় সে দাবিটি উথাপন করেনি। 

এখন যখন বিএনপির সংসদ সদস্যদের শপথ গ্রহণ শেষ পর্যায়ে এসে পৌঁছেছে, তখন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বেগম খালেদা জিয়ার অসুস্থতার ইস্যুটি সামনে নিয়ে এসেছেন। এর মূল উদ্দেশ্য হলো বেগম খালেদা জিয়ার অসুস্থতার ইস্যুটি সামনে এনে বিএনপির সংসদ সদস্যদের  সংসদে নিয়ে যাওয়া। এর মাধ্যম তিনি বর্তমান সরকার এবং ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনকে বৈধতা দিতে চান। 

তবে বিএনপির একাধিক নেতা বলেছেন, ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনের পরে বেগম খালেদা জিয়ার দলের একক কর্তৃত্বের খর্ব হয়েছে। দলের মধ্যে যৌথ নেতৃত্ব তৈরী করার জন্য বিএনপির স্থায়ী কমিটির সকল সদস্য একমত পোষন করেছে। এজন্যই মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এখন বিএনপিকে বিভক্ত করার চেষ্টা চালাচ্ছে। 

এখন ধারণা করা হচ্ছে, যে পাঁচজন সংসদ সদস্য শপথ গ্রহণ করেননি, আগামী তিনদিনের মধ্যে তারা শপথ গ্রহণ করবে।

সংসদ সচিবালয় সূত্রে জানা গেছে যে, ৩০ এপ্রিলের মধ্যে তারা শপথ গ্রহণ না করে যদি একটা আবেদন দেন যে অনিবার্য কারণবশত তারা সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ গ্রহণ করতে পারেননি কিংবা তারা কোন আবেদন না দিয়েও যদি ৩০ এপ্রিলের পরেও তারা শপথ গ্রহণ করেন। তখন যদি তারা বলে যৌক্তিক কারণে শপথ গ্রহণ করতে পারেননি, তাদের আসন শূন্য হবে না। সংসদে যাওয়া এবং শপথ নেওয়া না নেওয়াকে ঘিরেই যে বিএনপি ভাঙ্গনের মুখে তা এখন স্পষ্ট।

বিএনপির অন্যতম নেতা মেজর (অব:) হাফিজ উদ্দিন বলেছেন, ‘বিএনপিকে ভাঙ্গার চক্রান্ত সরকার করছে না। বিএনপির মধ্যে ঘাপটি মেরে থাকা কিছু স্বার্থান্বেষী মহলেই বিএনপিকে ভাঙ্গার জন্য যথেষ্ঠ। তাদের ইঙ্গিতেই জাহিদ শপথ গ্রহণ করেছেন।’ 

বিএনপির একাধিক নেতা মনে করছেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে একটি অংশ যারা সরকারের সঙ্গে আপোষরফার মাধ্যমে দলকে পরিচালনা করতে চান। অন্য একটি অংশ যারা আন্দোলন এবং সংগ্রাম করে খালেদা জিয়ার মুক্তি চান। এই দুই ধারার মধ্যে বিভক্ত স্পষ্ট হয়ে গেছে। 

জাহিদের শপথ গ্রহণের মধ্য দিয়ে তাদের এই ভাঙ্গন আরো ত্বরান্বিত হয়েছে বলেই সংশ্লিষ্ট মহল মনে করছে। এই ভাঙ্গন প্রক্রিয়ায় একটি পক্ষ থাকবে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও তার অনুগতরা এবং অন্য একটি পক্ষে থাকবে স্থায়ী কমিটির সিনিয়র সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেনসহ অন্যান্যরা বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে। ধারণা করা হচ্ছে, এই ভাঙ্গন প্রক্রিয়া দ্রুত সম্পন্ন হবে।

এ প্রসঙ্গে তিনি উদাহরণ দেন যে, ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে কোনো দাবি দাওয়া ছাড়াই এবং বেগম জিয়ার মুক্তির শর্তপূরন ছাড়াই ফখরুল দলকে নির্বাচনে নিয়ে গিয়েছিলেন।

সূত্র: বাংলা ইনসাইডার
এমএ/ ১০:২২/ ২৫ এপ্রিল

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে