Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শুক্রবার, ২৪ মে, ২০১৯ , ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৪-২১-২০১৯

আমাদের নতুন শিক্ষিত বেকাররা চাকরির পিছনে ছুটবে না: শাবিতে পলক

আমাদের নতুন শিক্ষিত বেকাররা চাকরির পিছনে ছুটবে না: শাবিতে পলক

সিলেট, ২১ এপ্রিল- তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, অংক, বিজ্ঞান, ইংরেজি এগুলোর পাশাপাশি আরেকটা ভাষা সকলকে শিখতে হবে। সেটা হচ্ছে প্রোগ্রামিং যা প্রযুক্তির ভাষা, কম্পিউটারের ভাষা। কম্পিউটার যে ভাষাটা বুঝে তা আমাদের সকলকেই শিখতে হবে। সেজন্যেই ২০১০ সাল থেকে ন্যাশনাল কারিকুলামে আইসিটি নামক একটি বিষয় ষষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত ড. জাফর ইকবাল স্যারের নেতৃত্বে অন্তর্ভুক্তির মাধ্যমে বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

শনিবার শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে দু’দিনব্যাপী ‘এলআইসিটি সাস্ট টেক ফেস্ট-২০১৯’ এর টেক টক উইথ পলক পর্বে শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর প্রদানকালে তিনি এসব কথা বলেন।

এ অনুষ্ঠানে  প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী বলেন, যত বেশি প্রযুক্তির ব্যবহার করতে পারব তত বেশি দুর্নীতি, হয়রানি, সময়-খরচ কমাতে পারব। গত সাত বছরে ই-গভর্মেন্ট প্রকিউরমেন্ট নামে একটা সফটওয়ারের মাধ্যমে বিশ বিলিয়ন ডলারের টেন্ডার অনলাইনে জমা হয়েছে। এতে কোন ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের ঘটেনি। প্রযুক্তি নির্ভরতা আমাদের দুর্নীতি, সন্ত্রাস মুক্ত করেছে। আমরা চাই আমাদের তরুনদের মেধাকে কাজে লাগিয়ে একটা ডিজিটাল অর্থনীতির দেশ হব এবং বিশ্বের বুকে মাথা উচু করে দাঁড়াব। তরুনরা গড়বে দেশ ডিজিটাল হবে বাংলাদেশ।

মন্ত্রী আরও বলেন, মানব সম্পদ উন্নয়নের লক্ষ্যে আমরা একটা পিরামিড স্ট্রাকচার ফলো করছি, যেখানে পিরামিডের উপরের শীর্ষস্থানে থাকবে অল্প কিছু সংখ্যক ইনোভেটর, আনট্রাপ্রেনর, রিসার্চার। এরই ধারাবাহিকতায় ইতোমধ্যে ৪০টি স্পেশালাইজড ল্যাব করেছি, আরও ১৩০টি পাবলিক-প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশেষায়িত ল্যাব স্থাপন করব।

শাবিপ্রবিতে বিশেষায়িত ল্যাব স্থাপনের দাবির প্রেক্ষিতে তিনি বলেন, শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে যে আর্টিফিসিয়াল ইন্টিলিজেন্স ল্যাবের দাবি করা হয়েছে তা আমরা প্রতিষ্ঠা করব। যেহেতু এর প্রতিষ্ঠা ব্যয় প্রায় দশকোটি টাকা, সেজন্য তিনটি ধাপে আশা করছি তা বাস্তবায়ন করতে পারব।

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে প্রযুক্তিগত শিক্ষার গুরুত্বআরোপ করে তিনি বলেন, আমরা চাই আমাদের নতুন শিক্ষিত বেকাররা চাকরির পিছনে না ছুটবে না। তারা নিজেরা জব সিকার না হয়ে জব ক্রিয়েটর হবে। সেজন্য আমরা আনট্রাপ্রেনার একাডেমি তৈরি করেছি। আমাদের যারা আইটি বিষয়ে গ্রাজুয়েশন করেছেন কিন্তু আমাদের ইন্ডাস্ট্রির প্রত্যাশা পূরণ করতে পারছে না তাদের জন্য আমরা এলআইসিটি ট্রেনিং সেন্টারের ব্যবস্থা করেছি। বিগত পাঁচ বছর ধরে তা চলছে এবং আগামীতে আরও ডেভেলপ করে এলআইসিটি প্রজেক্ট-২ বাস্তবায়নের প্রক্রিয়া হাতে নিয়েছি। আমরা চাই এই ধরনের সাপোর্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কার্যক্রমে সম্পৃক্ত করে দেয়া যেন বিশ^বিদ্যালয় থেকেই এই ধরনের যোগ্যতা অর্জন করতে পারে।

দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে ইন্টারনেট সেবা পৌঁছে দেয়া হয়েছে বলে তিনি বলেন, আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে ফাইবার অপটিকসের মাধ্যমে সাড়ে চার হাজার ইউনিয়নকে ইন্টারনেটের মাধ্যমে সারা দেশে কানেক্টেড করতে আমরা ডিজিটাল কানেক্টিভিটি প্রকল্প হাতে নিয়েছি। এতে গ্রাম পর্যন্ত সবার হাতে হাতে ইন্টারনেট পৌছে দিতে পারব। আমরা ইতোমধ্যে নয় হাজার শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব আমরা স্থাপন করেছি, আরও পঁচিশ হাজার পাঁচশত স্কুলে আমরা ল্যাব স্থাপন করব, যেখানে প্রতিটা স্কুলে একুশটা করে ল্যাপটপ থাকবে।     

শাবিপ্রবি’র কেন্দ্রীয় মিলনায়তনে এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন কথাসাহিত্যিক অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ জাফর ইকবার, এলআইসিটি ইন্ডাস্ট্রি প্রোমোশন স্পেশালিস্ট হাসান বেনাউল ইসলাম, ফেস্টের আহবায়ক অধ্যাপক ড. এম জহিরুল ইসলাম প্রমূখ।

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে ড. জাফর ইকবাল বলেন, বড় ভিশন থাকলে বড় বড় কাজ করা যায়। সেজন্য বড় পরিসরে চিন্তা করতে হবে।  আমরা জানি সোশাল মিডিয়া ফেসবুকের কারণে আমাদের ছেলেমেয়েদের মাঝে একটা বিপর্যয় দেখা দিয়েছে। তোমরা যদি প্রোডাক্টিব হতে চাও সময়টাকে ঠিক করে ব্যবহার কর। ফর গড সেক, স্মার্টফোনে যেটুক সময় দেয়া দরকার তার থেকে বেশি তোমরা দিও না। তাহলে কিন্ত তোমরা প্রোডাক্টিব হতে পারবে না।

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার থেকে শুরু হওয়া আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় প্রোগ্রামিং প্রতিযোগীতা, হ্যাকাথন, রোবো ফাইট, প্রজেক্ট এক্সিবিশন ও মেজ সলভারসহ মোট পাচঁটি পৃথক প্রতিযোগীতার মাধ্যমে টেক ফেস্ট অনুষ্ঠিত হচ্ছে। বিভিন্ন প্রতিযোগীতায় দেশের মোট ৫৪ টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মোট ২০০ টি দলের অন্তত ১০০০ প্রতিযোগী এ ফেস্টে অংশ নেয়। প্রতিযোগীতায় বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজিসহ মোট ৫৪ টি বিশ্ববিদ্যালয় অংশ নেয় । তন্মেধ্যে আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় প্রোগ্রামিং প্রতিযোগীতায় ১৬০ টি দল, হ্যাকাথনে  ৩৬ টি দল, রোবোটিক্সে মেইজ সলভারে ১২ টি দল ও রোবোফাইটে ১৬ টি দল প্রতিযোগীতা করে।

সূত্র: সিলেটটুডে

আর/০৮:১৪/২১ এপ্রিল

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে