Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ২০ মে, ২০১৯ , ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৪-১৯-২০১৯

নুসরাত হত্যাকাণ্ড: ‘অনেক তথ্য’ দিয়েছেন আসামি কাদের

নুসরাত হত্যাকাণ্ড: ‘অনেক তথ্য’ দিয়েছেন আসামি কাদের

ঢাকা, ১৯ এপ্রিল- দোষ স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন ফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যামামলার আসামি আবদুল কাদের। হাফেজ আবদুল কাদের ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার হেফজ বিভাগের শিক্ষক এবং একই মাদরাসার ফাজিল দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। ওই মাদ্রাসাটিতে আলিমের শিক্ষার্থী ছিলেন নুসরাত।

নুসরাতকে যৌন নিপীড়ন ও পুড়িয়ে হত্যামামলার প্রধান আসামি ওই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলার সঙ্গে কাদেরের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল বলে স্থানীয়দের ভাষ্য।বুধবার ঢাকা থেকে গ্রেপ্তার কাদেরকে বৃহস্পতিবার ফেনীর আদালতে নিয়ে যায় নুসরাত হত্যামামলার তদন্তকারী সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করে তিনি দুপুর ২টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা পর্যন্ত ফেনীর জ্যেষ্ঠ হাকিম সারাফ উদ্দিন আহমদের কাছে ১৬৫ ধারায় জবানবন্দি দেন।পিবিআইর চট্টগ্রাম বিভাগীয় বিশেষ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইকবাল সাংবাতিকদের বলেন, “এজহারভূক্ত আসামি আবদুল কাদের হত্যার পরিকল্পনাকারী এবং হত্যার সাথে জড়িত বলে স্বীকারোক্তি দিয়েছেন।

“দীর্ঘ সময় ধরে দেওয়া জবানবন্দিতে হত্যাকাণ্ড সম্পর্কিত অনেক তথ্য উঠে এসেছে।” সোনাগাজী উপজেলার আমিরাবাদ ইউনিয়নের পূর্ব সফরপুর গ্রামের মনছুর খান পাঠানবাড়ির আবুল কাসেমের ছেলে কাদের মাদ্রাসার ছাত্রাবাসে থাকতেন।

পিবিআইর এক কর্মকর্তা বলেন, “নুসরাতের গায়ে আগুন দেওয়ার আগের রাতে মাদ্রাসায় কাদেরের কক্ষেই বৈঠক হয়েছিল। ঘটনার দিন সে হত্যাকারীদের নিরাপত্তায় মাদ্রাসার গেট পাহারায় ছিল।” আসামিদের মধ্যে এর আগে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন ওই মাদ্রাসার ফাজিলের ছাত্র নুর উদ্দিন, শাহাদাত হোসেন শামীম ও আবদুর রহিম শরিফ।

হাফেজ আবদুল কাদের ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার হেফজ বিভাগের শিক্ষক এবং একই মাদরাসার ফাজিল দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। ওই মাদ্রাসাটিতে আলিমের শিক্ষার্থী ছিলেন নুসরাত। নুসরাতকে যৌন নিপীড়ন ও পুড়িয়ে হত্যামামলার প্রধান আসামি ওই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলার সঙ্গে কাদেরের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল বলে স্থানীয়দের ভাষ্য।

বুধবার ঢাকা থেকে গ্রেপ্তার কাদেরকে বৃহস্পতিবার ফেনীর আদালতে নিয়ে যায় নুসরাত হত্যামামলার তদন্তকারী সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।
হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করে তিনি দুপুর ২টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা পর্যন্ত ফেনীর জ্যেষ্ঠ হাকিম সারাফ উদ্দিন আহমদের কাছে ১৬৫ ধারায় জবানবন্দি দেন।

পিবিআইর চট্টগ্রাম বিভাগীয় বিশেষ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইকবাল সাংবাতিকদের বলেন, “এজহারভূক্ত আসামি আবদুল কাদের হত্যার পরিকল্পনাকারী এবং হত্যার সাথে জড়িত বলে স্বীকারোক্তি দিয়েছেন।

“দীর্ঘ সময় ধরে দেওয়া জবানবন্দিতে হত্যাকাণ্ড সম্পর্কিত অনেক তথ্য উঠে এসেছে।” সোনাগাজী উপজেলার আমিরাবাদ ইউনিয়নের পূর্ব সফরপুর গ্রামের মনছুর খান পাঠানবাড়ির আবুল কাসেমের ছেলে কাদের মাদ্রাসার ছাত্রাবাসে থাকতেন।

পিবিআইর এক কর্মকর্তা বলেন, “নুসরাতের গায়ে আগুন দেওয়ার আগের রাতে মাদ্রাসায় কাদেরের কক্ষেই বৈঠক হয়েছিল। ঘটনার দিন সে হত্যাকারীদের নিরাপত্তায় মাদ্রাসার গেট পাহারায় ছিল।” আসামিদের মধ্যে এর আগে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন ওই মাদ্রাসার ফাজিলের ছাত্র নুর উদ্দিন, শাহাদাত হোসেন শামীম ও আবদুর রহিম শরিফ।

সূত্র: bdview24
আর এস/ ১৯ এপ্রিল

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে