Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বুধবার, ২২ মে, ২০১৯ , ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৪-১৮-২০১৯

নুসরাতকে ‘ডটার অব বাংলাদেশ’ ঘোষণা

নুসরাতকে ‘ডটার অব বাংলাদেশ’ ঘোষণা

ঢাকা, ১৮ এপ্রিল- দুর্বৃত্তদের ভয়াবহ আগুনে নিহত ফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে ‘ডটার অব বাংলাদেশ’ হিসেবে ঘোষণা দিয়েছে অপরাজেয় বাংলাদেশ নামে একটি সংগঠন। এর সভাপতি ফরিদা মনি শহীদুল্লাহ বুধবার রাজধানীতে অনুষ্ঠিত একটি মানববন্ধন থেকে এ ঘোষণা দেন।

বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অপরাজেয় বাংলাদেশ আয়োজিত ‘নুসরাত-তনু কেন হারিয়ে যাচ্ছে অমানবিক রাষ্ট্রযন্ত্রের হাতে’ শীর্ষক মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ ঘোষণা দেন।

মানববন্ধনে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ধরেন কোনো রাজনীতি নেই, আমরা নারীর সম্ভ্রমের জন্য লড়াই করতে চাই। আমরা কেবল মানুষের স্বাধীনতা ও অধিকারের জন্য লড়াই করতে চাই। নুসরাত আমাদের কাছে সাহসের বাতি।

নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক আরো বলেন, পিবিআইকে (পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন) নুসরাত হত্যার তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। পিবিআই তদন্ত করার পর ওই ঘটনার সঙ্গে ওসির প্রমাণ পেয়েছে, কিন্তু সেই ওসি কোথায়? একটা সাইবার ক্রাইম অপরাধে মামলা দিয়েছেন তাও আদালতের নির্দেশে, এটা যথেষ্ট? এই ধরনের অপরাধ যদি বিরোধী দলের নেতাকর্মী করত তাহলে?

সভাপতির বক্তব্যে ফরিদা মনি শহীদুল্লাহ বলেন, আমরা চাইব এবার প্রধানমন্ত্রী অপরাধীর বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করবে। একই সঙ্গে আমরা এ মানববন্ধন থেকে ‘নুসরাতকে ডটার অব বাংলাদেশ’ ঘোষণা করছি।

মানববন্ধনে আরো অংশ নেয়, অপরাজেয় বাংলাদেশ সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, ঢকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর সুকুমার বড়ুয়া প্রমুখ।

নুসরাতকে হত্যার জন্য টাকা দেন আ.লীগ নেতা মুকছুদ

মাদরাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে হত্যার মিশনে অংশ নেয়া ‘কেরোসিন’ ও ‘বোরকা’ সরবরাহকারীকে খুঁজছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

কিলিং মিশনে অংশ নেয়া পাঁচজনের মধ্যে চারজনকে গ্রেফতার করা হলেও হত্যা মামলার অন্যতম আসামি শাহাদাত হোসেন শামীমের ভাগনিকে (চাচাতো বোনের মেয়ে) খুঁজছে পিবিআই।

রোববার রাতে নুসরাত হত্যার ঘটনায় গ্রেফতার শাহাদাত হোসেন ও নুর উদ্দিন ফেনীর জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম জাকির হোসাইনের আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। ১১ ঘণ্টা ধরে ৫৭ পৃষ্ঠার জবানবন্দিতে ওই দিনের ঘটনার আদ্যোপান্ত তুলে ধরেন তারা।

এদিকে, মঙ্গলবার কামরুন নাহার মনি ও জান্নাতুল আফরোজ মনি নামে নুসরাতের মাদরাসার দুই ছাত্রীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পিবিআই।

নুর উদ্দিন ও শাহাদাত হোসেন শামীমের প্রায় ১১ ঘণ্টা ধরে দেয়া ৫৭ পৃষ্ঠার জবানবন্দিতে হত্যাকাণ্ডের বিস্তারিত বর্ণনা দেন। জবানবন্দিতে কিলিং মিশনে অংশ নেয়া শাহাদাত হোসেন শামীম, জাবেদ হোসেন ও জোবায়ের আহম্মেদ, উম্মে সুলতানা পপির নাম উল্লেখ করলেও শাহাদাত হোসেন শামিমের ভাগনি কে এখনো তা নিশ্চিত করতে পারেননি তদন্ত কর্মকর্তা।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা শাহ আলম বলেন, আসামিদের স্বীকারোক্তির আলোকে হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। নুসরাতের আরও দুই সহপাঠীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে তাদের সংশ্লিষ্টতা আছে কিনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

মামলার তদন্তকারী সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের প্রধান ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদার বলেন, হত্যার পরিকল্পনা অনুযায়ী উম্মে সুলতানা পপিই নুসরাতকে ডেকে নিয়ে আসেন। কিন্তু নুসরাতের সামনে তাকে কৌশল করে ‘শম্পা’ নামে ডাকেন তারা। এ কারণেই নুসরাত তার জবানবন্দিতে শম্পার কথা বলেছেন। উম্মে সুলতানাই যে ‘শম্পা’ সেটি জিজ্ঞাসাবাদে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

এর আগে জবানবন্দিতে শাহাদাত হোসেন বলেছেন, নুসরাতকে হত্যার বোরকা কেনার জন্য সোনাগাজী পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মুকছুদ আলম তাদের ১০ হাজার টাকা এবং এক শিক্ষক পাঁচ হাজার টাকা দেন। এর মধ্যে পাঁচ হাজার টাকা তিনি নুর উদ্দিনকে দেন। তিনটি বোরকা কেনার জন্য তার চাচাতো বোনের পালিত মেয়ে ও ওই মাদরাসার ছাত্রীকে দুই হাজার টাকা দেন।

ঘটনার দিনের বর্ণনা দিয়ে শাহাদাত হোসেন বলেছেন, ওই দিন সকাল ৮টার দিকে তিনি সোনাগাজী বাজারে আসেন। তখন তার চাচাতো বোনের পালিত মেয়ে তাকে একটি পুরনো ও দুটি নতুন বোরকা দিয়ে যান। তিনি তাকে উম্মে সুলতানা পপির সঙ্গে যোগাযোগ রেখে সঠিকভাবে কাজ করতে বলে বাজারে কেরোসিন কিনতে যান।

এক লিটার কেরোসিন কিনে তিনি ‘ডাবল পলিথিনে’ করে নিয়ে আসেন। এরপর পরিকল্পনা অনুযায়ী তিনি ও মাদরাসাছাত্র জোবায়ের আহম্মেদ (২০) ও জাবেদ হোসেন (১৯) মাদরাসার সাইক্লোন শেল্টারের নিচতলার শ্রেণিকক্ষে বসেন।

সকাল পৌনে ৯টার দিকে নুসরাতকে ডাকতে যান উম্মে সুলতানা পপি। তখন তারা নিচের শ্রেণিকক্ষ থেকে তৃতীয় তলার একটি কক্ষে এসে অবস্থান নেন। কিছুক্ষণ পর উম্মে সুলতানা ও নুসরাত ছাদে ওঠেন। তাদের পিছে পিছে ওঠেন তার (শাহাদাতের) চাচাতো বোনের পালিত মেয়ে। এরপর তৃতীয় তলা থেকে তিনজন ছাদে যান।

ছাদে ওঠার পর উম্মে সুলতানা পপি প্রথমে নুসরাতকে মামলা তুলে নিতে বলেন। নুসরাত তখন নিশাতকে ছাদে খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে দাঁড়িয়ে ছিলেন। এরপর শাহাদাতের চাচাতো বোনের পালিত মেয়েও নুসরাতকে একই কথা বলেন। নুসরাত তখন জবাবে বলেছিলেন, ‘মামলা উঠাব না। আমার গায়ে কেন হাত দিল। আমি এর শেষ দেখেই ছাড়ব।’

নুসরাতের এমন জবাব শুনে পেছন থেকে এক হাত দিয়ে মুখ চেপে ধরেন ও অন্য হাত দিয়ে হাত ধরেন শামীম। উম্মে সুলতানা পপি তখন নুসরাতের পা ধরেন। আর শাহাদাতের চাচাতো বোনের পালিত মেয়ে নুসরাতের শরীর চেপে ধরেন। তিনজন মিলে নুসরাতকে তারা ছাদের মেঝেতে ফেলে দেন। ওই সময় উম্মে সুলতানাকে কৌশলে শম্পা বলে ডাক দেন তারা।

নুসরাতকে মেঝেতে শুইয়ে ফেলার পর জোবায়ের নুসরাতের ওড়না দুই টুকরো করে তার হাত ও পা বেঁধে ফেলেন। জাবেদ তখন নুসরাতের পুরো শরীরে কেরোসিন ঢেলে দেন। এরপর শাহাদাতের চোখের ইশারায় জোবায়ের তার পকেট থেকে দেয়াশলাই বের করে কাঠি জ্বালিয়ে নুসরাতের গায়ে আগুন ধরিয়ে দেন।

এরপর পাঁচজনই সিঁড়ি বেয়ে নিচে নেমে আসেন। নামতে নামতেই তিনজন ছাত্র তাদের বোরকা খুলে জামার মধ্যে ঢুকিয়ে ফেলেন। ছাত্রী দুজন মাদরাসায় তাদের পরীক্ষার কক্ষে চলে যান। আর বাকি তিনজন নিজেদের মতো করে পালিয়ে যান।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সিঁড়ি দিয়ে ওই পাঁচজন যখন নামছিলেন, তখন নুসরাতের আগুন, আগুন, বাঁচাও, বাঁচাও বলে চিৎকার তারা শুনতে পান। পা থেকে আগুন ধরানোয় প্রথমে নুসরাতের পায়ের বাঁধন খোলে। এরপর আগুন যখন ওপরে উঠে তার হাতের বাঁধন খুলে তখনই তিনি উঠে দৌড়ে নিচে নেমে আসেন। নুসরাতের মুখ শাহাদাত চেপে ধরায় সেখানে আর কেরোসিন ঢালা হয়নি। তাই পুরো শরীর পুড়লেও মুখে আগুন লাগেনি।

অধ্যক্ষের মুক্তি দাবির আন্দোলন ও বোরকা কেনার জন্য সোনাগাজী পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মুকছুদ আলম তাদের ১০ হাজার টাকা দিয়েছিলেন বলেও শামীম জানিয়েছেন।

আলোচিত এ মামলায় এখন পর্যন্ত ১৬ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ও পিবিআই। এদের মধ্যে অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলা, কাউন্সিলর ও পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মুকছুদ আলম, শিক্ষক আবছার উদ্দিন, সহপাঠী আরিফুল ইসলাম, নুর হোসেন, কেফায়াত উল্লাহ জনি, মোহাম্মদ আলা উদ্দিন, শাহিদুল ইসলাম,

অধ্যক্ষের ভাগনি উম্মে সুলতানা পপি, জাবেদ হোসেন, জোবায়ের আহম্মেদ, নুর উদ্দিন, শাহাদাত হোসেন, মো. শামীম, কামরুন নাহার ও জান্নাতুল আফরোজ। এদের মধ্যে মামলার এজাহারভুক্ত আটজনের মধ্যে সাত আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। হাফেজ আবদুল কাদের নামে এজাহারভুক্ত আরও এক আসামিকে এখনো গ্রেফতার করতে পারেনি পিবিআই।

গত ৬ এপ্রিল সকালে আলিম পরীক্ষা দিতে সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদরাসায় যান নুসরাত জাহান রাফি। সেখানে তার গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়। ১০ এপ্রিল (বুধবার) রাত সাড়ে ৯টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে মারা যান অগ্নিদগ্ধ নুসরাত। পরদিন সকালে ময়নাতদন্ত শেষে মরদেহ স্বজনদের বুঝিয়ে দিলে বিকেলে সোনাগাজী পৌরসভার উত্তর চরচান্দিয়া গ্রামের পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

সূত্র: বিডিভিউ২৪
এমএ/ ০৪:৩৩/ ১৮ এপ্রিল

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে