Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ২১ অক্টোবর, ২০১৯ , ৬ কার্তিক ১৪২৬

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৪-১২-২০১৯

হুমকির মুখে সিলেটের অনলাইন জগৎ!

হুমকির মুখে সিলেটের অনলাইন জগৎ!

সিলেট, ১২ এপ্রিল- সিলেট সিটি কর্পোরেশন ও ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডারদের মুখোমুখী অবস্থানের কারণে সাধারণ ইন্টারনেট গ্রাহকদের মধ্যে হাপিত্যেশ শুরু হয়েছে। এমনকি অনলাইন ব্যাংক বীমাসহ অন্যান্য আর্থিক প্রতিষ্ঠানের গ্রাহকরাও নানা শংকায় ভুগছেন।

সিলেট মহনগরীর মাথার উপর তারের জঞ্জাল। পিডিবির বৈদ্যুতিক খুঁটির সাথে টানা এসব তারের কারণে মারাত্মক ঝুঁকিতে নগরবাসী। পাশাপাশি সৌন্দর্যহানীর জন্যও দায়ী এই জঞ্জাল।

এই জঞ্জাল থেকে নগরবাসীকে মুক্ত করতে সিসিক তৎপরতা শুরু করে। তারা পিডিবিকে দিয়ে আন্ডারগ্রাউন্ড বিদ্যুৎ প্রকল্প বাস্তবায়ন শুরু করেন।

ইলেক্ট্রিসাপ্লাই থেকে আম্বরখানা পয়েন্ট পর্যন্ত কাজ করার পর তা দক্ষ জনশক্তির অভাবে স্থগিত করা হয়েছে। আরো ২০ থেকে ২৫ দিন পর কাজটি আবারো শুরু হওয়ার কথা। তখন জিন্দাবাজার-চৌহাট্টা হয়ে একেবারে সুরমা পয়েন্ট পর্যন্ত বিদ্যুতের খুঁটি আর থাকার কথা নয়।

এ ব্যাপারে কয়েকদিন আগে মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী একটি নোটিশ দিয়েছেন ইন্টারনেট ও ডিশ ব্যবসায়ীদের। তাদের ক্যাবলগুলো একমাসের মধ্যে বিকল্প পথে টানার ব্যবস্থা করতে তাগাদা দেওয়া হয়।

কিন্তু ইন্টারনেট ব্যবসায়ীরা বিকল্প ব্যবস্থা পাচ্ছেননা। তারা বলছেন, সরকার যে দুটি কোম্পানিকে আন্ডারগ্রউন্ড ক্যাবল টানার লাইসেন্স দিয়েছে, তাদের শর্ত অত্যন্ত জটিল। এই শর্ত মেনে কাজ করলে তারা মাত্র কয়েকটি পয়েন্ট দিবে যেখান থেকে তাদের ক্যাবল গ্রাহক পর্যায়ে দিতে হলে আবারো মাটির উপর দি„য়েই টানতে হবে। মেয়র তেমন ব্যবস্থা করে দিলে তারা ঐ কোম্পানিগুলোকে দিয়ে কাজ করাবেন। কিন্তু সেই নিশ্চয়তা এখনো তারা পাননি।

এদিকে সিসিক সূত্র বলছে, তারা বিনা অনুমতিতে অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণভাবে ক্যাবল টেনে নগরবাসীকে বিপর্যয়ের মুখে ফেলেছেন। সিসিক নোটিশ দিয়েছে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে তারা বিকল্প পথে ক্যাবল নিয়ে না গেলে আমাদের করার কিছু থাকবেনা। খুঁটিগুলো সরিয়ে দেওয়া হবে।

এ ব্যাপারে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রকৌশলী রুহুল আমীন বলেন, আমরা বারবার বলছি। এখন তারা বিকল্প ব্যবস্থা না করলে আমাদের কিছু করার নেই। 

এতে অনলাইন বা ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা ঝুঁকির মুখে পড়বেন, ব্যাংক বীমা বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর অচলাবস্থা সৃষ্টি ও বিপর্যয় প্রসঙ্গে এই প্রকৌশলী বলেন, হলেও আমাদেরতো কিছু করার নেই। আমরা আন্ডারগ্রাউন্ড ক্যাবল প্রকল্প বাস্তবায়ন করবই।

তবে বিশ্লেষকরা বলছেন, শেষ পর্যন্ত তা হবেনা। কারণ, সিলেটে এখন ৩০টির বেশী ইন্টারনেট প্রভাইডার ব্যবসা করছে। জনগনের প্রচুর ক্ষতিতো হবেই, নাগরিক জীবনে অচলাবস্থার সৃষ্টি হবে। আর তাই শেষ পর্যন্ত সিসিককেই পিছু হটতে হবে।

তবে সাধারণ গ্রাহক কিন্তু চরম উদ্বিগ্ন। ইন্টারনেট প্রোভাইডারদের কোন সমস্যা হলে বা নেই না থাকলে প্রচুর আর্থিক ক্ষতি নিয়ে তারা রীতিমতো শংকিতও।

সিলেট

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে