Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর, ২০১৯ , ৩ কার্তিক ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.0/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৩-২১-২০১৯

মরছে সাতক্ষীরার নদ-নদী

মনিরুল ইসলাম মনি


মরছে সাতক্ষীরার নদ-নদী

সাতক্ষীরা, ২১ মার্চ- শাসনের ফলে মরতে বসেছে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমের জনপদ সাতক্ষীরার ছোট-বড় ২৭টি নদ-নদী। এর মধ্যে সবচেয়ে বেহাল দশা বেতনা ও মরিচ্চাপ নদীর। নদী দখল করে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ ও  জোয়ার-ভাটা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সাতক্ষীরার অধিকাংশ নদী তার গতিপ্রকৃতি হারিয়ে ফেলেছে। কপোতাক্ষ, বেতনা, কাকশিয়ালী, মরিচ্চাপ, যমুনা, সোনাই, বলুয়া, গলঘেষিয়া, গুতিয়াখালী, সাপমারাসহ অধিকাংশ নদী এখন মরা খালে পরিণত হয়েছে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, ফারাক্কা বাঁধ, অপরিকল্পিত ব্রিজ, স্লুইস গেট, বাঁধ নির্মাণ, চর দখল করে ইটভাটা তৈরি এবং নদী শাসন করে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণের ফলে সাতক্ষীরার ২৭টি ছোট-বড় নদীর অধিকাংশই মৃতপ্রায়। কিন্তু অধিকাংশ দখলদারদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি স্থানীয় পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) ও জেলা প্রশাসক। বরং অনেকেই স্থানীয় ভূমি অফিস থেকে বন্দোবস্ত নিয়ে বসতবাড়ি থেকে শুরু করে বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণ করেছে। ফলে হারিয়ে যেতে বসেছে জেলার প্রধান নদ-নদী।

নদীর বুকে বসতঘর, বেড়িবাঁধ দিয়ে মৎস্য চাষের কারণে সাতক্ষীরার কয়েকটি নদী এরই মধ্যে মরে গেছে। কয়েকটি নদী অস্তিত্ব হারানোর পাশাপাশি মুমূর্ষু অবস্থায় রয়েছে অনেকগুলো।

স্বাধীনতা-পরবর্তীকালে প্রথম এক দশক পর্যন্ত নদীগুলো প্রবহমান থাকলেও আশির দশক থেকে এর মরণদশা শুরু হয়। ফলে পানি নিষ্কাশনের অভাবে বর্ষা মৌসুমে সৃষ্টি হচ্ছে জলাবদ্ধতা। বছরে চার-পাঁচ মাস জলাবদ্ধতা স্থায়ী থাকায় এ জনপদে কৃষকদের ফসল ফলানো দুষ্কর হয়ে পড়ে। সুন্দরবন ও সাগরবিধৌত সুজলা-শ্যামলা সাতক্ষীরা জেলায় ২৭টি নদ-নদীর তীরে গড়ে উঠেছে শহর, বন্দর ও জনপদ। স্বেচ্ছাচারীভাবে নদীর তীরে, এমনকি চর দখল করে নদীর মধ্যেও গড়ে তোলা হয়েছে বসতবাড়ি, দোকানপাট, ইটভাটা ও কৃষিখামার। পানিপ্রবাহ হারিয়ে মুমূর্ষু দশায় পতিত নদীগুলোর এ দখলদারিত্ব অস্তিত্বকে আরেক দফা হারিয়ে দিয়েছে। ফলে জেলার দু-একটি বাদে অধিকাংশ নদীতে বন্ধ হয়ে গেছে জোয়ার-ভাটা। ফলে সাতক্ষীরার কপোতাক্ষ, বেতনা, কাকশিয়ালী, খোলপেটুয়া, কালিন্দি, মরিচ্চাপ, যমুনা, সোনাই, বলুয়া, গলঘেষিয়া, গুতিয়াখালী, সাপমারাসহ জেলার ছোট-বড় ২৭টি নদ-নদীর অস্তিত্ব নেই বললেই চলে।

এসব নদীতে একসময় বড় বড় লঞ্চ, স্টিমার, গয়নার নৌকা চলত। সে সময় নদীগুলোতে প্রবল জোয়ার ও স্রোত থাকলেও এখন তা মরা খালের মতো নিশ্চল হয়ে পড়ে আছে। নদী ব্যবস্থাপনা ল ভ  হয়ে যাওয়ায় নৌপরিবহন ব্যবস্থা হারিয়ে গিয়েছে। দখলের ফলে মৃত্যু ঘটেছে সাতক্ষীরা শহরের কোল ঘেঁষে প্রবাহিত বেতনা নদীর। বেতনার বিনেরপোতার দুই তীর দিয়ে নদীর জায়গা দখল করে গড়ে উঠেছে ২০ থেকে ২৫টি ইটভাটা। চরভরাটিয়া জমি দখল করে স্থানীয় ভূমি অফিস থেকে কাগজপত্র তৈরি করে ব্যক্তিমালিকানার নামে গড়ে তোলা হয়েছে স্থাপনা। বিনেরপোতা ব্রিজের দক্ষিণ প্রান্তে নদীর চরে দেবহাটা উপজেলার পারুলিয়া সেকেন্দারি গ্রামের আহসান উল্লাহ ও তার ভাই কবির হোসেন বিলাসবহুল পাকা ইমারত তৈরি করে গড়ে তুলছেন রাফসান ফুডস লিমিটেড নামে মশলা ফ্যাক্টরি। সেখানে রীতিমতো চারতলা ফাউন্ডেশন করে নির্মাণ করা হচ্ছে পাকা বিল্ডিং। কপোতাক্ষ, যমুনা ও মরিচ্চাপ নদীরও একই অবস্থা। নদীর তীর ঘেঁষে গড়ে উঠেছে অবৈধ স্থাপনা, ইটভাটা, বাড়িঘর, দোকানপাট ও বিভিন্ন বিনোদনের পার্ক।

সাতক্ষীরার নদ-নদীগুলোর মৃত্যুর প্রধান কারণ প্রশাসন ও প্রভাবশালীদের সহযোগিতায় দখলদারি ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের অতিরিক্ত স্লুইস গেট। এ ছাড়া উপকূলীয় বাঁধ প্রকল্প, অপরিকল্পিত স্লুইস গেট ছাড়াও এ অঞ্চলের নদীর ওপর ৪৮টি সেতু নদীমৃত্যুর অন্যতম কারণ। এ ছাড়া ফারাক্কা বাঁধ নির্মাণের ফলে উজানে পানির চাপ কমে যাওয়াও নদীমৃত্যুর আরেক কারণ। শিবসা নদীর সেই স্রোত আর এখন নেই। কপোতাক্ষর গোড়া চৌগাছার তাহিরপুর থেকে পাইকগাছার শিববাড়ী পর্যন্ত ১৭৫ কিমি এলাকা প্রবাহহীন হয়ে পড়ায় একসময় প্রতিবছরই নদীর তীরে দেখা দিত ভয়াবহ জলাবদ্ধতা। কয়েক বছর আগে সরকারের পক্ষ থেকে ২৬১ কোটি ৫৪ লাখ ৮৩ হাজার টাকা ব্যয়ে কপোতাক্ষ খনন করা হয়েছে। কিন্তু সেখানে আর আগের মতো জোয়ার-ভাটা হয় না। 

কোনোভাবে নদীটি মরা খালের মতো বেঁচে আছে। বেতনা নদীসহ মরিচ্চাপ ও যমুনা খনন করা হলেও দখলদারির কারণে তা আগের অবস্থায় ফিরে যেতে পারেনি। কাকশিয়ালী নদীরও নাব্যতা দিন দিন হ্রাস পাচ্ছে। বেতনা নদী তার নাব্যতা হারিয়ে পুরোপুরি মৃত খালে রূপ নিয়েছে। অনেক আগেই মৃত্যু হয়েছে মরিচ্চাপের। এসব নদীর প্রবাহ ঠিক রাখার জন্য বারবার জনগণের পক্ষ থেকে দাবি তোলা হলেও তা খুব বেশি কাজে আসছে না। নদী মৃত্যুর ফলে দেশের দক্ষিণ-জনপদের কৃষিখাত আজ ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে। এক প্রশ্নের জবাবে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আবুল খায়ের বলেন, নদ-নদী বাঁচিয়ে রাখতে ও জলাবদ্ধতা নিরসনে পানি উন্নয়ন বোর্ডের পক্ষ থেকে প্রকল্প প্রস্তুত করতে বলা হয়েছে। অচিরেই নদীতীরে গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের ব্যাপারে জেলা প্রশাসককে জানানো হবে।

এমএ/ ০৪:৩৩/ ২১ মার্চ

পরিবেশ

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে