Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.0/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০২-১৬-২০১৯

রাজীব বিতর্কের মধ্যে মমতা ঘনিষ্ঠ তিন আইপিএসকে ডেপুটেশনে নিচ্ছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক

রাজীব বিতর্কের মধ্যে মমতা ঘনিষ্ঠ তিন আইপিএসকে ডেপুটেশনে নিচ্ছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক

কলকাতা, ১৬ ফেব্রুয়ারি- বিতর্কের মধ্যেই রাজ্যের দুই আইপিএসের নাম কেন্দ্রীয় সরকারের এমপ্যানেলমেন্ট লিস্টে৷ সম্প্রতি স্বরাষ্ট্র দফতরের একটি নোটিশে পশ্চিমবঙ্গে কর্মরত আইপিএস সি ভি মুরলীধর ও বিশাল গর্গের নাম রয়েছে৷ এছাড়া আরও একজনের নাম রয়েছে তিঁনি হলেন এম হরি সেবা বর্মা৷

ইন্সপেক্টর জেনারেল (আইজি ) পদ মর্যাদার পদে সারাদেশের ২৩ জনের নাম রয়েছে৷ তাদের মধ্যে পশ্চিমবঙ্গে কর্মরত আইপিএস বিশাল গর্গের নাম রয়েছে৷ এছাড়া ইন্ডিয়ান পুলিশ সার্ভিস অফিসারস এ ডিরেক্টর জেনারেল পদে পাঁচ জনের মধ্যে পশ্চিমবঙ্গে কর্মরত দু’জন রয়েছেন৷ এরা হলেন সি ভি মুরলীধর ও এম হরি সেবা বর্মা৷ কেন্দ্রীয় সরকারে যোগ দেওয়ার এমপ্যানেলমেন্ট লিস্ট বের হয়েছে৷ সম্প্রতি কেন্দ্রের স্বরাষ্ট্র দফতর থেকে এই বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে৷ যদিও এই দুই পুলিশ অফিসারকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ছাড়েন কিনা সেটাই এখন দেখার।

কিছুদিন আগেই কেন্দ্রের রোষের মুখে পরে রাজ্যের পাঁচ আইপিএস। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ে ধর্নামঞ্চে থাকার অভিযোগে আইপিএসের বিরুদ্ধে রাজ্যকে ব্যবস্থা নিতে বলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক।এই পাঁচ আইপিএস হলেন, রাজ্য পুলিশের ডিজি বীরেন্দ্র, বিধাননগরের পুলিশ কমিশনার জ্ঞানবন্ত সিংহ, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার সুপ্রতিম সরকার, এডিজি আইনশৃঙ্খলা অনুজ শর্মা এবং আইপিএস বিনীত গোয়েল।

সূত্রের দাবি, সার্ভিস রুল ভাঙার অভিযোগে পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে এই পাঁচ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের তরফে। একই সঙ্গে ৫ আইপিএসকে দেওয়া পদকও কেড়ে নিতে পারে কেন্দ্র। এমনটাই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে।

শুধু তাই নয়, সূত্রে জানা গিয়েছে, আইনি পদক্ষেপের পাশাপাশি অভিযুক্ত অফিসারেদের বিরুদ্ধে পদোন্নতি পর্যন্ত আটকানো হতে পারে বলে খবর। এমনকি, সেন্ট্রাল ডেপুটেশন থেকে নাম বাদ যেতে পারে এই ৫ অফিসারের। এমনটাই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক সূত্রে জানা গিয়েছে। ইতিমধ্যে এই নির্দেশিকা রাজ্যের কাছে পৌঁছে গিয়েছে বলে সূত্রে জানা গিয়েছে। এই মুহূর্তে এই পাঁচ আইপিএস যেহেতু পশ্চিমবঙ্গ ক্যাডারে কাজ করছে সেজন্যে রাজ্যই এই বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে পারে।

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি মেট্রো চ্যানেলে ধর্নায় বসেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই ধর্না মঞ্চে রাজ্যের এই পাঁচ আইপিএসকে দেখা যায়। সেই সময় থেকেই গুঞ্জন উঠতে শুরু করে যে কীভাবে আইনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে কোনও রাজনৈতিক দলের ধর্নায় বসতে পারেন আইপিএসরা? এরপর থেকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারে বলে গুঞ্জন শোনা যাচ্ছিল। অবশেষে রাজ্যের এই উচ্চপদস্থ পাঁচ আইপিএসের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিল কেন্দ্রীয় সরকার।

রাজ্য পুলিশের ডিজি বীরেন্দ্র ১৯৮৫ ব্যাচেরর আইপিএস অফিসার, বিনীত গোয়েল ১৯৯৪ ব্যাচের আইপিএস, অনুজ শর্মা ১৯৯১ ব্যাচের আইপিএস, বিধাননগরের পুলিশ কমিশনার জ্ঞানবন্ত সিংহ ১৯৯৩ সালের আইপিএস অফিসার এবং সুপ্রতিম সরকার ১৯৯৭ সালের আইপিএস অফিসার।

পশ্চিমবঙ্গ

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে