Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর, ২০১৯ , ২ কার্তিক ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.0/5 (10 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০২-১০-২০১৯

মনোনয়ন না পেয়ে ‘নিজের ফাঁসি চাইলেন’ আওয়ামী লীগ নেত্রী

মনোনয়ন না পেয়ে ‘নিজের ফাঁসি চাইলেন’ আওয়ামী লীগ নেত্রী

ময়মনসিংহ, ১০ ফেব্রুয়ারি- সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনে মনোনয়নবঞ্চিত আওয়ামী লীগ নেত্রী নাজনীন আলম সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ‘আমার ফাঁসি চাই...!’ শিরোনামে একটি স্ট্যাটাস দিয়ে আলোচনার ঝড় তুলেছেন। নাজনীন আলম ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য।

এর আগে নারীনেত্রী নাজনীন আলম তিনবার মনোনয়ন চাইলেও তিনি বঞ্চিত হন। এবার সংরক্ষিত নারী আসনেও মনোনয়নবঞ্চিত হলেন তিনি।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, ২০১৪ সালের সংসদ নির্বাচনে ময়মনসিংহ-৩ (গৌরীপুর) আসনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন চেয়ে বঞ্চিত হন নাজনীন। পরে আ.লীগ প্রার্থী সাবেক স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. ক্যাপ্টেন (অব.) মজিবুর রহমান ফকিরের সঙ্গে নির্বাচনে লড়াই করে পরাজিত হন নাজনীন।

২০১৬ সালের ২ মে মজিবুর রহমান ফকির এমপির মৃত্যুতে আসনটি শূন্য হয়। ওই উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন চেয়ে ফের বঞ্চিত হন নাজনীন।

একাদশ সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নির্বাচনী এলাকায় ব্যাপক গণসংযোগ করে ভোটারদের মুখে মুখে আলোচনায় চলে আসেন নাজনীন আলম। কিন্তু শেষ অবধি চূড়ান্ত মনোনয়ন পান জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নাজিম উদ্দিন আহমেদ।

সর্বশেষ সংরক্ষিত নারী আসনেও মনোনয়ন বঞ্চিত হন এই নেত্রী। তাই ক্ষোভে ফেসবুকে নিজের ফাঁসি চেয়ে স্ট্যাটাস দেন নেত্রী নাজনীন আলম।

শনিবার রাত ৭টা ১১ মিনিটের দিকে ফেসবুকে ‘আমার ফাঁসি চাই’ শিরোনামে স্ট্যাটাস দেন তিনি। ফাঁসির কারণ হিসেবে ভুল ও অপরাধের ৯ শর্তের বর্ণনাও দেন তিনি। এ নেত্রীর স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলো-

‘আমার ফাঁসি চাই..!

১. কেন হাইকমান্ডের আশ্বাসকে সরল মনে বিশ্বাস করেছিলাম!
২. এলাকাবাসী ও দলীয় নেতাকর্মীদের পাশে থাকার প্রয়োজন কেন অনুভব করেছিলাম!
৩.এমপি/সিনিয়র কোনো নেতার পরিবারের সদস্য কেন আমি হলাম না!
৫. কেন দলের নাম ভাঙিয়ে একটি পয়সা রোজগারের ধান্ধা করিনি!
৬. কেন দলের জন্য কাজ করতে গিয়ে দিনে দিনে নিঃস্ব হতে গেলাম!
৭. কেন জনসমর্থন অর্জনের চেষ্টা করেছিলাম!
৮. কেন তদবির/তেলবাজি ঠিকমতো করতে পারলাম না!
৯. কেন সমর্থকদের বারবার কাঁদাচ্ছি!- সম্ভবত এসবই আমার ভুল ও অপরাধ! এজন্য আমার শাস্তি হওয়া উচিত।

নাজনীন আলমের স্বামী ফেরদৌস আলম গণমাধ্যমকে বলেন, তার স্ত্রী নাজনীন আলম হাসপাতালে গেছেন। তিনি মনোনয়নবঞ্চিত, হাজার হাজার নেতাকর্মী-সমর্থকের বারবার আশাহতের বিষয়টি তুলে ধরে কান্নায় ভেঙে পড়েন। তিনি আরও বলেন, আপনারা জানেন আমার স্ত্রী ও আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে মানুষ। সাধারণ মানুষের সুখে-দুঃখে মিশে আছি। দলের জন্য জীবনের যা অর্জন ছিল সব দিয়ে দিয়েছি। এরপরও আমরা কী পেলাম!

এমএ/ ০৭:০০/ ১০ ফেব্রুয়ারি

ময়মনসিংহ

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে