Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.0/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০২-০৯-২০১৯

জেরা চলছে রাজীবের, অভিষেকের বাড়ির নিরাপত্তা বৃদ্ধি ঘিরে জল্পনা

জেরা চলছে রাজীবের, অভিষেকের বাড়ির নিরাপত্তা বৃদ্ধি ঘিরে জল্পনা

কলকাতা, ০৯ ফেব্রুয়ারি- রাজীব কুমার কাণ্ডের জের। নিরাপত্তা বাড়ানো হল ডায়মণ্ডহারবারের সাংসদ তথা যুব তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়ির৷ তাঁর হরিশ মুখার্জী রোডের বাড়ির সামনের নিরাপত্তা প্রায় দ্বিগুণ করা হয়েছে৷ ইংরেজি সংবাদপত্র হিন্দুস্থান টাইমসের রিপোর্ট অনুযাই এই খবর জানা গিয়েছে৷

সারদা তদন্তে রাজ্য সরকার গঠীত সিটের প্রধান রাজীব কুমারের বাড়িতে হানা দেয় সিবিআই গোয়েন্দারা৷ আইপিএস রাজীব বর্তমানে কলকাতার নগরপাল৷ সিবিআই আধিকারীকদের এই অভিযানকে কেন্দ্র করে কলকাতা পুলিশ-সিবিআই দ্বন্দ্ব শুরু হয়৷ কেন্দ্র-রাজ্য সংঘাত চরমে পোঁছয়৷ হিন্দুস্থান টাইমসের রিপোর্ট অনুযাই গত রবিবার ওইঘটনার কিছুক্ষণের মধ্যেই আঁটোসাঁটো করা হয় মুখ্যমন্ত্রীর ভাইপোর বাড়ির নিরাপত্তা৷

রিপোর্ট অনুযাই এক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, তাঁরা আগে কখনও অভিষেকের বাড়ির সামনে নিরাপত্তার এত তোড়জোড় দেখেননি৷ গত ৩ তারিখের ঘটনার পরপরই বাড়তি পুলিশ ঘিরে ফেলে সাংসদের বাড়ি৷ বশ অনেকগুলি পুলিশের গাড়িও এসেছিল৷ পুলিশের সেই উদ্যোগ ছিল বেশ হতবাক করা৷ বোঝাই যাচ্ছিল যখন তখন যা কিছু হতে পারে, এমনটাই যেন আঁচ করতে পেরেছিল লালবাজার৷ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক পুলিশ কর্তার কথা অনুযাই, এমনিতেই দক্ষিণ কলকাতায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ওই বাড়ি কঠোর নিরপত্তা বলয়ে মুড়ে রাখা হয়৷ ২৪ ঘন্টাই ছয় জন পুলিশ অফিসারের নেতৃত্বে থাকেন বিশাল পুলিশ বাহিনী৷ রয়েছে কলকাতা পুলিশের বিশেষ বাহিনী কুইক রেসপন্স টিম ও তার সশস্ত্র দু’টি গাড়িও৷

হিন্দুস্থান টাইমসের রিপোর্ট অনুযাই, সারদা বা নারদাকাণ্ডে সরাসরি মুখ্যমন্ত্রীর ভাইপো তথা সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের যোগ পাওয়া যায়নি৷ এই দু’টি কেলেঙ্কারিরই তদন্ত করছে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা৷ তৃণমূলের অভিযোগ দলের যুব নেতার নাম জোর করে এইসব কেলেঙ্কারির সঙ্গে যুক্ত করতে তৎপর বিজেপি৷ সিবিআই চলছে গেরুয়া শিবিরের নির্দেশেই৷ জানা গিয়েছে, ১২ পাতার এফআইআর-এ নাম রয়েছে অভিষেকের৷ ছয়’বার তাঁর নাম রয়েছে সেখানে৷ কিন্তু একবারের জন্যও তৃণমূল যুব সভাপতিকে অভিযুক্ত বলে উল্লেখ করা নেই৷

প্রসঙ্গত, কলকাতার নগরপালের বাড়িতে সিবিআইয়ের অভিযানের বিরুদ্ধে ধর্নায় বসেন মুখমন্ত্রী৷ প্রায় তিন দিন সেই ধর্না চললেও প্রথমদিকে তাঁকে দেখা যায়নি৷ শুরু হয় গুঞ্জন৷ মঙ্গলবার বিকেলের দিকে অবশ্য একবারের জন্য মঞ্চে আসেন তিনি৷ কিছুক্ষণ থেকে চলে যান৷ বাড়িতে থাকা সত্ত্বেও কেন আন্দোলনের শুরু থেকে যুক্ত হলেন না অভিষেক? কোন কিছুর ভয়েই কি এই পদক্ষেপ? প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে৷

অনেকেই মনে করছেন, ভোটের আগে বিভিন্ন দুর্নীতির তদন্তে সক্রিয় হবে সিবিআই৷ বিরোধী জোটকে দুর্বল করতে বাংলায় বিজেপির টার্গেট মমতা৷ তাঁকে কিছু করা সম্ভব না হলে অভিষেককেই নজরে রেখেছে মোদী-শাহ জুটি৷ রাজ্যের শাসক শিবির মনে করছে রাজীবকাণ্ডের সূত্র ধরে সিবিআই অভিষেকের কাছে পৌঁছতে পারে৷ এই অবস্থায় তাই কেন্দ্রীয় গোয়েন্দাদের অভিষেকের বাড়ির ত্রিসীমানায় ঢোকা আটকাতেই বিশাল নিরাপত্তার আয়োজন লালবাজারের৷

এইচ/২১:২৯/০৯ ফেব্রুয়ারি

 

 

পশ্চিমবঙ্গ

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে