Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বুধবার, ১৩ নভেম্বর, ২০১৯ , ২৯ কার্তিক ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.0/5 (10 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০১-২৬-২০১৯

প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের কথা বলে পুলিশের মাছ নিয়ে গেলেন মেয়র

প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের কথা বলে পুলিশের মাছ নিয়ে গেলেন মেয়র

ঢাকা, ২৬ জানুয়ারি- কুয়াকাটায় ট্যুরিস্ট পুলিশের কেনা দুটি কোরাল মাছ জোরপূর্বক নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে কুয়াকাটা পৌরসভার মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল বারেক মোল্লার বিরুদ্ধে। আর এ অভিযোগ করলেন কুয়াকাটা ট্যুরিস্ট পুলিশের উপপরিদর্শক শাহ আলম। ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে মেয়রের লোকজনও মরিয়া হয়ে উঠেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

শাহ আলম বলেন, 'আগামী ১ ফেরুয়ারি আমার ভাতিজির (ভাইয়ের মেয়ে) বিয়ে অনুষ্ঠান। ওই অনুষ্ঠানের জন্য ব্যবসায়ী বশির আহমেদের কাছ থেকে প্রায় ২২ হাজার টাকায় ১০ কেজি ৩০০ গ্রাম এবং ৬ কেজি ১০০ গ্রাম ওজনের দুটি কোরাল মাছ কিনি। মাছ দুটি তার (বশির) আড়তের ফ্রিজেই রেখে দেওয়া হয়। শনিবার বিকেলে ওই মাছ দুটি বাড়িতে পাঠানোর কথা ছিল। কিন্তু আগের দিন দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে মেয়র বারেক মোল্লা ও তার লোকজন জোরপূর্বক ওই মাছ দুটি নিয়ে যান। ঘটনাটি তাৎক্ষণিকভাবে বশির আমাকে ফোন দিয়ে জানান এবং আমি বশিরের ওই ফোন দিয়েই মেয়রকে বিষয়টি খুলে বলি। তবে কোনো কথা না শুনে এই মাছ প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে পাঠাতে হবে বলে তিনি মাছ দুটি নিয়ে যান। নিরুপায় হয়ে শনিবার বরিশাল থেকে দুটি কোরাল মাছ কিনেছি এবং আড়তদার বশিরের কাছ থেকে আমার দেওয়া টাকাও ফেরত নিয়েছি। এখন এই ঘটনাটি স্বীকার না করার জন্য বশিরের ওপর চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে। যার কারণে বশির এখন মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছেন না।'

আড়তদার বশির বলেন, 'শাহ আলম স্যারের অনুষ্ঠানের জন্য আমি দুটি কোরাল মাছ ম্যানেজ করি এবং মাছ দুটি আমার ফ্রিজেই রাখি। শাহ আলম স্যারের নিতে দেরি আছে ভেবে শুক্রবার মাছ দুটি মেয়র সাহেবকে দেই। এ নিয়ে তাদের মধ্যে কী হয়েছে আমি কিছুই জানি না।'

এ ব্যাপারে আবদুল বারেক মোল্লা জানান, পৌর নির্বাচন ঘনিয়ে আসছে, তাই তার বিরুদ্ধে নানা কল্পকাহিনী রটানো হচ্ছে। তার প্রতিপক্ষ মনির ভূঁইয়া (সাধারণ সম্পাদক, পৌর আওয়ামী লীগ, কুয়াকাটা) ও তার লোকজন ট্যুরিস্ট পুলিশের এক কর্মকর্তাকে দিয়ে এই কল্পকাহিনী সাজিয়েছেন। শুক্রবার ঢাকায় এসেছেন জানিয়ে তিনি আরও বলেন, এলাকায় গিয়ে আমি এ মিথ্যাচারের বিচার চাইব।

এ ব্যাপারে কুয়াকাটা ট্যুরিস্ট পুলিশের জোন ইনচার্জ খলিলুর রহমান জানান, বিষয়টি একান্ত ব্যক্তিগত। এটি ট্যুরিস্ট পুলিশের কোনো বিষয় নয়। তারপরও ঘটনাটি অত্যন্ত দুঃখজনক।

সূত্র: সমকাল
এমএ/ ১১:০০/ ২৬ জানুয়ারি

পটুয়াখালী

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে