Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০১৯ , ৩০ কার্তিক ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.3/5 (30 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৭-০২-২০১৩

নিবন্ধটি খালেদারই : জানালো ওয়াশিংটন টাইমস


	নিবন্ধটি খালেদারই : জানালো ওয়াশিংটন টাইমস

ঢাকা, ২ জুলাই- এ বছরের ৩০ জানুয়ারি প্রকাশিত আলোচিত নিবন্ধটি খালেদা জিয়ার বলে নিশ্চিত হয়েই তা ছাপিয়েছে মার্কিন দৈনিক ওয়াশিংটন টাইমস। যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে বাংলাদেশী পণ্যের জিএসপি সুবিধা স্থগিতের পর খালেদা জিয়ার নামে প্রকাশিত নিবন্ধটি নতুন করে আলোচনায় আসে। বিরোধীদলীয় নেত্রী ওই নিবন্ধ লেখার কথা অস্বীকারের পর এ নিয়ে রাজনৈতিক বিতর্কের প্রেক্ষাপটের সত্যতা যাচাইয়ে সংবাদপত্রটি তাদের অবস্থান জানায়। খবর বিডিনিউজের।

ই-মেইলের উত্তরে ওয়াশিংটন টাইমসের নির্বাহী সম্পাদক ডেভিড এস জ্যাকসন জানিয়েছেন, এজেন্টের মাধ্যমে পাঠানো নিবন্ধটি যে খালেদা জিয়ার তা নিশ্চিত হওয়ার পরই তারা তা ছাপিয়েছেন। ওই নিবন্ধটি ওয়াশিংটন টাইমসের কাছে আসে মার্ক পার্সির মাধ্যমে, লন্ডনভিত্তিক এই মধ্যস্থতাকারী খালেদা জিয়ার পক্ষে কাজ করেন। নিবন্ধটি প্রকাশের আগে এবং পরেও তার সঙ্গে আমরা যোগাযোগ রক্ষা করেছি, আমরা এর নির্ভরযোগ্যতা নিয়ে নিঃসন্দেহ।
 
বিটিপির অংশীদার মার্ক পার্সি, যার মাধ্যমে খালেদা জিয়ার নিবন্ধটি পাওয়ার দাবি করেছে ওয়াশিংটন টাইমস।
 
মার্ক পার্সি লন্ডনের জনসংযোগ প্রতিষ্ঠান (পিআর ফার্ম) বিটিপির অন্যতম অংশীদার, যারা বিভিন্ন দেশের হয়েও কাজ করেন।
 
প্রতিষ্ঠানটির ওয়েবসাইটের তথ্যানুযায়ী, মার্ক পার্সি ১৯৯২ সাল থেকে যুক্তরাজ্যের প্রতিটি নির্বাচনে প্রচারের কাজে যুক্ত ছিলেন। তিনি এক সময় বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় মোবাইল ফোন অপারেটর ভোডাফোনের কমিউকেশন্স অফিসার ছিলেন, ভাইস প্রেসিডেন্ট ছিলেন কাজ করেছেন জার্মানির কমিউনিকেশন্স ফর ডয়চে এসেট ম্যানেজমেন্টে।
 
ওয়াশিংটন টাইমসে খালেদা জিয়ার নামে ওই নিবন্ধ প্রকাশের পর ক্ষমতাসীন দলের নেতারা সমালোচনায় ফেটে পড়েন। সংসদেও এ নিয়ে আলোচনা হয়।
 
আওয়ামী লীগ নেতাদের বক্তব্য, নিবন্ধে বিএনপি চেয়ারপারসন বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের হস্তক্ষেপ চেয়েছেন।
 
যুক্তরাষ্ট্র গত বৃহস্পতিবার তাদের বাজারে বাংলাদেশী পণ্যের জিএসপি সুবিধা স্থগিত করলে এর জন্য খালেদা জিয়ার ওই নিবন্ধকে দায়ী করেন তারা।
 
এরপর বৃহস্পতিবারই খালেদা জিয়া সংসদে বলেন, বলা হয়েছে, আমি নাকি চিঠি দিয়ে এই সুবিধা বন্ধ করেছি। কিন্তু আমি কোনো চিঠি পাঠাইনি।
 
বিরোধীদলীয় নেত্রীর এই বক্তব্যের সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হাতে থাকা ওয়াশিংটন টাইমসে ছাপা ওই নিবন্ধের অনুলিপি তুলে ধরলে খালেদা জিয়া বলেন, এটা আমার নয়। এমন কোনো লেখা আমি পাঠাইনি।
 
জিএসপি সুবিধা পুনর্বহালে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি আহ্বান জানান খালেদা জিয়া। দলের মুখপাত্র মির্জা ফখরুল ইসলাম সেদিনই বলেন, জিএসপি সুবিধা পুনর্বহালে বিএনপি ওয়াশিংটনকে চিঠি দেবে।
 
খালেদা জিয়া ওয়াশিংটন টাইমসে নিবন্ধ পাঠানোর কথা অস্বীকার করার পর পরই সংসদে দেয়া বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ওই নিবন্ধটি বিরোধীদলীয় নেত্রীরই।
 
অস্বীকার করলে পারবেন না। এখানে লেখা আছে, ‘খালেদা জিয়াস আর্টিকেল, ফরমার প্রাইম মিনিস্টার, প্রেজেন্ট অপজিশন লিডার’। ইন্টারনেটে খুঁজলেই যে কেউ দেখতে পাবে।
 
খালেদা জিয়ার ওই নিবন্ধ প্রকাশের পর বিএনপি নেতারা তখন তা দলীয় প্রধানের বলেই স্বীকৃতি দিয়েছিলেন।
 
নিবন্ধ প্রকাশের পরদিন ১ ফেব্রুয়ারি নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দলের এক সভায় মওদুদ আহমদ বলেন, সরকার আপাদমস্তক দুর্নীতিতে নিমজ্জিত হয়ে গেছে। এসব বিষয়ে বিশ্বব্যাপী দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য খালেদা জিয়া ওয়াশিংটন টাইমসে নিবন্ধ লিখেছেন। গণতন্ত্রকে সুরক্ষা করার জন্য এ নিবন্ধ লেখা হয়েছে।
 
সরকারি দলের নেতাদের সমালোচনার জবাবে তিনি আরো বলেছিলেন, সরকারের আঁতে ঘা লেগেছে বলেই বিরোধীদলীয় নেত্রীর প্রকাশিত নিবন্ধ নিয়ে গতকাল (৩১ জানুয়ারি) সংসদে কুরুচিপূর্ণ ভাষার সমালোচনা করা হয়েছে। তাদের সমালোচনাই প্রমাণ করে বিরোধীদলীয় নেত্রী নিবন্ধে সত্য কথা বলেছেন। তবে খালেদা জিয়ার অস্বীকারের পর মওদুদ তার আগের বক্তব্য থেকে সরে এখন বলছেন, নিবন্ধটি যে খালেদা জিয়ার তা তিনি বলেননি।
 
মওদুদের পাশাপাশি মির্জা ফখরুলও ৬ ফেব্রুয়ারি বলেছিলেন, দেশের বাস্তব অবস্থা তুলে ধরতে বিরোধীদলীয় নেত্রী এই নিবন্ধ লিখেছেন। দেশের নাগরিক হিসেবে তিনি (খালেদা জিয়া) তা লিখতেই পারেন।
 
খালেদা জিয়ার অস্বীকারের পর তা নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে আলোচনার মধ্যে গতকাল মঙ্গলবার আওয়ামী লীগ সংসদ সদস্য সাবের হোসেন চৌধুরী এজন্য ওয়াশিংটন টাইমসের কাছে ক্ষতিপূরণ চেয়ে নোটিশ পাঠাতে সংসদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে