Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.0/5 (35 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ১১-১০-২০১৮

সমকালীন শিল্পের পরম্পরা

দীপংকর বৈরাগী


সমকালীন শিল্পের পরম্পরা

শিল্পী মনের আবেগকে রঙ আর করণকৌশল দিয়ে দৃশ্যপটে প্রাণ দান করেন। যেখানে প্রকৃতিতে বেড়ে ওঠা সবকিছুর প্রতি শিল্পীর অন্তরদৃষ্টির ভাব প্রতিফলিত হয়, যা শিল্পীর নিজস্ব অভিজ্ঞতা ও ভাবনায় মূর্ত হয়ে ওঠে ক্যানভাসে। শিল্পীর দক্ষতা, শৈলী, মাধ্যম ও প্রকাশভঙ্গিতে যে শিল্প সৃষ্টি হয়, তা শিল্পরসিকদের অনুভূতি ও আবেগকে তাড়িত করার পাশাপাশি রসবোধকে পরিতৃপ্ত করে। শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালায় লিভিং আর্টের আয়োজনে 'বন্ধন' শিরোনামে আন্তর্জাতিক চিত্রকর্ম প্রদর্শনীটি দর্শকানুভূতি ও আবেগকে নানাভাবে তাড়িত করেছে। বাংলাদেশ ও ভারতের ৭১ জন শিল্পীর ১৪২টি শিল্পকর্ম এ প্রদর্শনীতে স্থান পায়। প্রদর্শনীতে ৪ জন শিল্পীকে শ্রেষ্ঠ মাধ্যমে পুরস্কৃত করা হয়। মাধ্যম সেরা ৪ জন শিল্পী হলেন- হামিম উল জাহিদ সজল-জলরঙ (বাংলাদেশ), হেমাঙ্গিনী মজুমদার-কাঠ খোদাই (বাংলাদেশ), মো. সুজন জমাদ্দার-ভাস্কর্য (বাংলাদেশ) এবং প্রণব নন্দী-অ্যাক্রিলিক (ভারত)।

সুমিত কুমার বিড়া রঙের জমাট বাঁধা স্তরে টেক্সচার দিয়ে সবুজ কালো ও নীল রঙে চিত্রপট রাঙিয়েছেন। কিছুটা মাটির বুনটের মতো টেক্সচার চিত্রে অবলোকিত, যা মা-মাটি ও আকাশের কাব্যগীতের শব্দগুলো তার ক্যানভাসের একেকটি অংশ। সুমন কুমার পাল অ্যাক্রিলিক মাধ্যমে ক্যানভাসে স্ট্ক্রল চিত্রের মতো অনেক ভাগে বিভক্ত করেছেন। যেখানে বিজ্ঞান ও লোককলার বিভিন্ন উপকরণকে তুলে এনেছেন। দ্বিমাত্রিক স্বভাবের এ চিত্র নির্মাণে বিন্যাস ও রঙ লেপনের ভঙ্গিমায় যথেষ্ট দক্ষতা ও সাহসিকতার পরিচয় মেলে, যা সমকালীন সময়ের কাঠামোগত ভাবনার সঙ্গে সাদৃশ্যপূর্ণ। রাশেদ সুখন ক্যানভাসজুড়ে স্পেস ও ক্যানভাসের গতানুগতিক প্রথা থেকে বেরিয়ে এসে নিজের মতো ব্যবহারের মধ্য দিয়ে মুন্সিয়ানার পরিচয় দিয়েছেন। আর রেখাকে ভাবলাবণ্য দিয়ে চিত্রে এক ধরনের ব্যঞ্জনা তৈরি করেছেন। স্বল্প রঙের প্রলেপনের পরও সূক্ষ্ণ সূক্ষ্ণ টেক্সচার নিয়ে আসার প্রবণতা বিশেষভাবে লক্ষণীয়। সুরঞ্জিত গিরী মিশ্র মাধ্যমে রেখা নির্ভরতায় 'দ্য সরদার' শিরোনামে এক জীবন-জ্ঞানের সরল কাব্য তৈরিতে মগ্ন। যেখানে মানব প্রকৃতি ও বাস্তব সমাজ কাঠামোর পরিপ্রেক্ষিত নির্মিত। দীপক কুমার ঘোষ কাগজে কালি ও কলমের বিচরণে চিন্তার অদৃশ্যগত ভাবের দৃশ্যগত কাঠামো নির্মাণে ব্যস্ত থেকেছেন, যা রঙের এপিঠ-ওপিঠ নিয়ে চিত্রে যেন বিস্তার ভাব ফুটিয়ে তুলেছেন। শিল্পী তর্পন কুমার পাল নৈসর্গের সৌন্দর্যকে প্রকৃতির রঙ ও রেখায় সাজানোর চেষ্টায় নিমগ্ন। চিত্রের বিষয়গত একাডেমিক পাঠে ব্রতী হয়ে প্রকৃতির মাঝে প্রকৃতিকে নিজের করে নিয়ে বাস্তবতার অনুপঙ্খতায় চিত্রের ভাষাকে অবয়ব দান করেছেন। 

মহানন্দ গায়িন উড কাঠে 'পেশন' শিরোনামে চলমান সময়ের নিরীক্ষায় জীবনবোধের ছাপচিত্র উপস্থাপন করেছেন। রঙের বিন্যাস ও প্রকরণের ধারা ও ছন্দকে কোথাও কোথাও যেন শিল্পীকে আলোকিত করতে পেরেছেন। রায়হান আহম্মেদ ওয়াশ পদ্ধতিতে এঁকেছেন বাংলার বিলুপ্তপ্রায় ঢাকি সম্প্রদায়ের জীবন। নূরে জান্নাত মিশ্র মাধ্যমে অসংখ্য লাইনের ব্যঞ্জনায় চলমান রিকশাকে ফুটিয়ে তুলেছেন যেখানে বিষয় নির্বাচনে স্পেস বিভাজনে যুক্তিযুক্ত প্রকাশভঙ্গিমায় শিল্পীর উদাসীনতার পরিচয় মেলে। আশিস আচার্য্য বাংলার লোককলার অন্যতম উপাদান মুখোশ, পাখি, সরাচিত্রসহ আলপনা উপস্থাপনার মাধ্যমে তার চিন্তার পরিপূর্ণ রূপ ক্যানভাসে রঙের প্রক্রিয়াকরণের মাধ্যমে প্রকাশ করেছেন। নাজনিন আক্তার 'দ্য জয় অব নেচার' শিরোনামে রঙ ও ফর্মের প্রতীক হিসেবে আত্মপ্রকাশ ঘটিয়েছেন। অনেক নারীমুখের সম্মিলিত উপস্থাপন গতানুগতিক বিন্যাস প্রক্রিয়ার রীতিকে ভেঙে নতুন রীতিকে অনুধাবন করার চেষ্টায় ব্রত। যুথি ফারহানা বালি, মাটি ও পাথরনির্ভরতায় তুলে এনেছেন মাছ ও গ্রামবাংলার নৌকার বিন্যাস, যা দর্শক-মননে বাড়তি ভাবনার খোরাক জোগাবে। বিপ্লব গোস্বামী 'নেচার অব বাংলাদেশ' শিরোনামে জলরঙে আবহমান বাংলার নদী, নৌকার চিরায়ত প্রতিচ্ছবি ফুটিয়ে তুলেছেন, যার বিন্যাস প্রকরণ ও ছন্দ শিল্পীকে কিছুটা আলোকিত করতে পেরেছে। হিমাদ্রী শেখর মণ্ডল 'কালার অব ভারমিলন' শিরোনামে অ্যাক্রিলিকে চিত্র নির্মাণের ভাষাকে দৃঢ়ভাবে উপস্থাপন করেছেন। তিনি চিত্রপটে ইমেজ ও রঙের ভারসাম্য গাঢ়ত্বের মধ্য দিয়ে সৃষ্টি করেছেন দৃশ্য মানবতার বাস্তব উপস্থাপন এবং উপলব্ধির রৈখিক প্রকাশ। তন্নি ফৌজদার গ্রামীণ কুটিরশিল্পের অনন্য উপাদান হাতপাখাকে তার নিজস্ব চিন্তার বহিঃপ্রকাশে রঙ-রেখায় চিত্রপটে সাবলীলভাবে উপস্থাপন করেছেন। সোহাগ পারভেজ জলরঙে চিত্রপটে রঙ-রেখা ও ছন্দের বিন্যাস ঘটিয়ে চিত্রে রেখার প্রাবল্যতায় স্বতন্ত্র প্রকাশভঙ্গিতে উপস্থাপন করেছেন। গোবিন্দ রায় জলরঙে নদী, নৌকা, নদীপারের অপরূপ শোভাকে রূপায়িত করেছেন। প্রকৃতির নির্যাস মনের মাধুরী মিশিয়ে রঙের প্রকৃত আবহ তুলে ধরতে চেয়েছেন।

এমএ/ ০৩:০০/ ১০ নভেম্বর

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে