Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.0/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ১১-০৭-২০১৮

ঢাকা-চট্টগ্রাম বুলেট ট্রেন চলাচলে শিগগির কাজ শুরু

ঢাকা-চট্টগ্রাম বুলেট ট্রেন চলাচলে শিগগির কাজ শুরু

ঢাকা, ০৭ নভেম্বর- শিগগির শুরু হচ্ছে বুলেট ট্রেন চলাচলে উপযোগি ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথ নির্মাণকাজ। ঢাকা থেকে কুমিল্লার লাকসাম হয়ে চট্টগ্রাম পর্যন্ত এ রেলপথ নির্মাণ করা হবে।

ইতোমধ্যে সরকার এ সংক্রান্ত প্রকল্পের নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে। চায়না রেলওয়ে কনস্ট্রাকশন করপোরেশন লিমিটেডের সঙ্গে সোমবার (৫ নভেম্বর) সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে। প্রকল্পটি চীনের সঙ্গে জি-টু-জি পদ্ধতিতে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বাস্তবায়ন করা হবে।

রেলওয়ে সূত্র জানায়, প্রায় ৩০ হাজার ৯৫৫ কোটি ৭ লাখ টাকার প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে বাংলাদেশ রেলওয়ে। প্রকল্প সহায়তা হিসেবে চীন থেকে পাওয়া যাবে ২৪ হাজার ৭৬৪ কোটি ৬ লাখ টাকা।

ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলওয়ে সেকশন করিডোরের দৈর্ঘ্য ৩২০ দশমিক ৭৯ কিলোমিটার। বর্তমানে ঢাকা থেকে ট্রেন বৃত্তাকার পথে টঙ্গী-ভৈরব বাজার-ব্রাহ্মণবাড়িয়া-কুমিল্লা হয়ে চট্টগ্রামে পৌঁছায়। এতে সময় লাগে ৬ থেকে ৮ ঘণ্টা।

জানা গেছে, রেলপথ মন্ত্রণালয় এ প্রকল্পের ভিত্তি স্থাপনের প্রস্তুতি নিচ্ছে। প্রকল্পের সম্ভাব্যতা যাচাই, নকশা প্রণয়ন ও নির্মাণকাজের জন্য পরামর্শক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। নকশা তৈরির কাজেও উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হয়েছে। চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে চূড়ান্ত নকশা জমা দেওয়ার কথা রয়েছে।

প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে চট্টগ্রাম থেকে ঢাকা যাতায়াতে সময় লাগবে মাত্র ২ ঘণ্টা। বুলেট ট্রেন প্রতি ঘণ্টায় ২০০ কিলোমিটার বেগে চলবে। যাত্রীদের সময়ের দূরত্ব কমিয়ে আনতে বর্তমান সরকার এ পরিকল্পনা গ্রহণ করে।

প্রস্তাবিত দ্রুতগতির রেলপথটি যাবে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার মধ্যদিয়ে। এ পথে ঢাকা থেকে কুমিল্লার লাকসাম হয়ে চট্টগ্রাম পর্যন্ত রেললাইন নির্মাণ করা হলে সেকশনের দৈর্ঘ্য প্রায় ৯০ কিলোমিটার কমে যাবে। এতে যাত্রীদের দ্রুত সময়ে যাতায়াতের সুবিধার পাশাপাশি রেলের পরিচালন ব্যয় ও পরিবহন ব্যয় কমে যাবে।

রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক চট্টগ্রাম-দোহাজারী রুটে ট্রেন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে জানান, রেললাইনের উন্নয়ন করে দেশের সব বিভাগীয় শহরে বুলেট ট্রেন চালু করা হবে। সর্বপ্রথম ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে বুলেট ট্রেন চালুর কাজ চলছে।

চট্টগ্রাম বন্দর ব্যবহারকারীরা জানান, আমদানি-রফতানি বাণিজ্যের বেশিরভাগ কাজ চলে চট্টগ্রাম বন্দর দিয়েই। তাই চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় পণ্য পরিবহনও হয় বেশি। বুলেট ট্রেন চালু হলে ব্যবসায়ীরা দ্রুত পরিবহন সুবিধা পাবেন।

রেলপথ মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী  বলেন, বর্তমান সরকারের উদ্যোগেই এ প্রকল্প নেয়া হয়। এরই মধ্যে চীনের সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি হয়েছে। আশা করছি নির্বাচনের পর জানুয়ারির দিকে কাজ শুরু হবে।

এমএ/ ০৮:২২/ ০৭ নভেম্বর

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে