Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ১৫ জুলাই, ২০১৯ , ৩১ আষাঢ় ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.5/5 (13 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৬-২২-২০১৩

টিভি চ্যানেলকে মমতার হুমকি, বাড়াবাড়ি করলে আইনি ব্যবস্থা নেব


	টিভি চ্যানেলকে মমতার হুমকি, বাড়াবাড়ি করলে আইনি ব্যবস্থা নেব

কলকাতা, ২২ জুন- শুধু নিন্দামন্দ নয়, বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেলের বিরুদ্ধে এবার হুঁশিয়ারি দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়৷ বেশি বাড়াবাড়ি করলে আইনি ব্যবস্থা নেয়ার হুমকি ঘোষণা করলেন প্রকাশ্য সভায়৷ পঞ্চায়েতে নির্বাচনে তার প্রচারের তৃতীয় দিনে মমতা সভা করেন বর্ধমানের উখরা ও পুরুলিয়ার মানবাজারে৷ মুখ্যমন্ত্রীর মন্তব্য বুমেরাং হয়েছে তার দলের বিরুদ্ধেই৷ মানবাজারের সভায় তিনি বলেন, 'সিপিএমের কিছু লোক তৃণমূলের পতাকা হাতে সন্ত্রাস করছে৷'

স্বভাবতই এই মন্তব্য সঠিক হলে তৃণমূলের সন্ত্রাসের অভিযোগ স্বীকৃত হয়৷ যদিও দুই জনসভাতেই সন্ত্রাসের অভিযোগ বিরোধী ও সংবাদমাধ্যমের মনগড়া বলে আক্রমণ শানিয়েছেন৷ প্রচারের প্রথম দু'দিন তার সমালোচনার অভিমুখ ছিল নির্দিষ্ট একটি টিভি চ্যানেলের দিকে৷ শুক্রবার উখরার সভায় আরও দু'টি চ্যানেলকেও তিনি আসামীর কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছেন৷ তিনটি চ্যানেলের নাম করে মমতা বলেন, 'ওরা কুৎসা-অপপ্রচার করছে৷ কিন্তু আপনারা কেউ ওদের কিছু বলতে যাবেন না৷ গায়ে হাত দেবেন না৷ খারাপ লাগলে ওই চ্যানেলগুলি দেখার দরকার নেই৷'
 
কিন্তু এর পর তিনি নিজেই চ্যানেলগুলির উদ্দেশ্যে তার হুঙ্কার, 'বেশি বাড়াবাড়ি করলে আইনি ব্যবস্থা নেব৷' মানবাজারের সভায় সন্ধ্যা হয়ে যাওয়ায় তিনি মহিলাদের বাড়ি ফিরে যেতে বলেই মন্তব্য করেন, 'দেখবেন এ কথা বলার পর চ্যানেলগুলি ক্যামেরা ঘুরিয়ে আপনাদের দেখিয়ে বলবে, মহিলারা মমতার সভা ছেড়ে চলে যাচ্ছে৷ ওদের তো রান্না করতে হয় না৷ মা-বোনদের এখন বাড়ি ফিরে যে রান্না করতে হবে, তা ওরা জানবে কেমন করে৷ কাজ নেই বাবু-বিবিদের এখন চ্যানেলে বসে অনর্গল মিথ্যা কথা বলে যাবেন৷'
 
পর পর বেশ কয়েকটি ধর্ষণের ঘটনা জেলায় জেলায় ঘটে গেলেও, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, 'কলকাতায় দু'-একটি ঘটনা হয়েছে৷ তার মানে এই নয় যে রাজ্য জুড়ে প্রতিদিন ধর্ষণ হচ্ছে৷ সমস্ত ছেলেরাই কি ধর্ষক হয়ে গিয়েছে নাকি?'
 
রাজ্যের পঞ্চায়েত নির্বাচনে এবার এক লক্ষ ৭০ হাজার প্রার্থী হয়েছেন বলে উল্লেখ করে তিনি বলেন, সন্ত্রাস হলে কি এত লোক ভোটে দাঁড়াতে পারত৷ উখরার সভায় তিনি বলেন, অথচ ওদের সময় এই এলাকার বারাবনি, জামুরিয়া, রানিগঞ্জ, পাণ্ডবেশ্বর থেকে শুরু করে কেশপুর, গোপীবল্লভপুর, বান্দোয়ান, কোথাও সিপিএম অন্য কাউকে ভোটে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে দিত না৷
 
এর পরই সেই স্ববিরোধী মন্তব্যটি করেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী৷ তিনি বলেন, 'কোথাও অপরাধ হলে পুলিশ ব্যবস্থা নেয়৷ তাই বলে ঘরে ঘরে তো পুলিশের ব্যবস্থা করা যায় না৷ এ রাজ্যে ১০ কোটি মানুষ৷ আর পুলিশ মাত্র ৪০ হাজার৷ সিপিএমের কিছু লোক তৃণমূলের পতাকা হাতে সন্ত্রাস করছে৷ ওদের চিহ্নিত করুন৷' বারাবনির প্রাক্তন বিধায়ক দিলীপ সরকারের হত্যাকাণ্ড প্রসঙ্গেও তদন্ত চলাকালে মন্তব্য করেন মুখমন্ত্রী৷
 
এই প্রথম সিপিএম নেতা দিলীপবাবুর খুনের প্রসঙ্গে মুখ খুললেন মমতা৷ উখরার সভায় তিনি বলেন, 'আসানসোলের কাছে এক প্রাক্তন বিধায়ক সম্প্রতি খুন হয়েছেন৷ নিশ্চয়ই দুঃখজনক ঘটনা৷ কিন্তু পুলিশ বা তৃণমূল কেউই খুন করেনি৷ এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে ওদের গোষ্ঠী কোন্দলের কারণে৷' খুনের পর মহাকরণে বসেই এডিজি (আইনশৃঙ্খলা) বাণীব্রত বসু কিন্তু ইঙ্গিত দিয়েছিলেন, হত্যাকাণ্ডের পিছনে মহিলা ঘটিত কোনো কারণের সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে৷ 

পশ্চিমবঙ্গ

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে