Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ , ২ আশ্বিন ১৪২৬

গড় রেটিং: 5.0/5 (1 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১১-১৫-২০১১

ডারবান দখলের ডাক ঢাকায়

ডারবান দখলের ডাক ঢাকায়
ঢাকা: জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য দায়ী না হয়েও ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর পক্ষ থেকে দক্ষিণ আফ্রিকার ডারবান দখলের ডাক দিয়েছে জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলো।
পুঁজিবাদবিরোধী বিক্ষোভে যেভাবে যুক্তরাষ্ট্রের ওয়ালস্ট্রিট দখলের কর্মসূচি চলছে, সেভাবে 'ডারবান দখল' করতেও পিছপা হবে না জলবায়ুর প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্তরা!  

'ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরামে'র মন্ত্রী পর্যায়ের সম্মেলনে অংশ নেওয়া ভিআইপিসহ মন্ত্রীদের অনেকেই এই মত সমর্থন করেছেন।

ডারবানে নভেম্বরের শেষ থেকে ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলন কপ-১৭ অনুষ্ঠিত হবে।

সোমবার রাজধানী ঢাকায় ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরামের তৃতীয় মন্ত্রীপর্যায়ের বৈঠকের উদ্বোধনী অধিবেশনে মধ্য আমেরিকার দেশ কোস্টারিকার সাবেক প্রেসিডেন্ট হোসে মারিয়া ফিগোয়ার্স ওলসান এ ডাক দেন।

তিনি যখন ওয়ালস্ট্রিটের মতো ডারবান দখলের আহ্বান জানান, তখন ওই মঞ্চেই বসা ছিলেন জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন।  

ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে ডারবানে অনুষ্ঠেয় জাতিসংঘ জলবায়ু সম্মেলনের আগে অভিন্ন অবস্থানপত্র তৈরিতে জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলো ঢাকায় বৈঠকে বসে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দেওয়া আবেগঘন বক্তৃতায় কোস্টারিকার সাবেক প্রেসিডেন্ট বলেন, 'উন্নত দেশগুলোকে আমাদের দাবির প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে হবে। কার্বন নিঃসরণসহ জলবায়ু পরিবর্তনের কারণগুলো তাদের বন্ধ করতে হবে।'

তিনি বলেন, 'যে দেশগুলো যত কার্বন নিঃসরণ করে তারা তত শক্তিশালী; আর যে দেশ যত শক্তিশালী তারা ততই কথা শোনে না।'

হোসে মারিয়া ফিগোয়ার্স ওলস্যান বলেন, 'জাতিসংঘ জলবায়ু সম্মেলনে আমরা কথা বলবো। আমাদের কথা না শুনলে, ওয়ালস্ট্রিট দখল করার মতো ডারবানও আমরা দখল করবো।'

কোস্টারিকার সাবেক এই প্রেসিডেন্টের বক্তব্যে উদ্বোধনী অধিবেশনে শ্রোতা ও অতিথিদের মধ্যে যে প্রাণ-চাঞ্চল্য তৈরি হয়, তার রেশ সম্মেলনের পুরো দিনব্যাপীই লক্ষ্য করা যায়।

বিভিন্ন দেশ থেকে আসা অতিথি ও আলোচকদের সোনারগাঁও হোটেলের বিভিন্ন স্থানেই দিনব্যাপী ইস্যুটি নিয়ে আগ্রহব্যঞ্জক আলোচনা হয়।

সম্মেলন শেষেও ?ডারবান দখল?র রেশ রয়ে যায় প্রায় সবার মধ্যেই।

সন্ধ্যায় সম্মেলনস্থলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশের পরিবেশ ও বন প্রতিমন্ত্রী এবং ফোরামের নব-নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ড. হাছান মাহমুদও তাই হাসিমুখেই বললেন, 'কোস্টারিকার (সাবেক) প্রেসিডেন্টের বক্তব্য খুবই সাহসী। আমরাও ওই মত সমর্থন করি।'

সমাপনী সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত মালদ্বীপের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আহমেদ নাসিমও একই ধরনের কথা বললেন।

তিনি বলেন, 'আমাদের দাবি না মানলে প্রয়োজনে ডারবান দখল করতে যাওয়া হবে।'

২০১১ সালের জুন মাসে কানাডাভিত্তিক অ্যাডবাস্টার্স মিডিয়া ফাউন্ডেশন 'ওয়ালস্ট্রিট দখলের' আন্দোলনের ডাক দেয়।

তারা অতিরিক্ত মুনাফাখোর ও লোভী আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর শাস্তির দাবিতে একটা শান্তিপূর্ণভাবে ওয়ালস্ট্রিট দখলের আহ্বান জানায়।

সেই আহ্বানে সাড়া দিয়ে ১৭ সেপ্টেম্বর থেকে নিউইয়র্কে আনুষ্ঠানিকভাবে আন্দোলনের সূত্রপাত হয়। পরে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে আন্দোলনের প্রতি সংহতি প্রকাশ করা হয়।  

প্রসঙ্গত, জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলোকে নিয়ে মালদ্বীপের আহ্বানে ২০০৯ সালে গঠিত হয় 'ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরাম'(সিভিএফ)।

ওই বছরই মালদ্বীপে এর প্রথম সম্মেলন এবং পরের বছর কিরিবাতিতে হয় দ্বিতীয় সম্মেলন। এবার ঢাকায় হল তৃতীয় সম্মেলন।

ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরামের দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে: আফগানিস্তান, বাংলাদেশ, ভুটান, কোস্টারিকা, ইথিওপিয়া, গাম্বিয়া, ঘানা, কেনিয়া, কিরিবাতি, মাদাগাস্কার, মালদ্বীপ, নেপাল, ফিলিপাইন, সেইন্ট লুসিয়া, তাঞ্জানিয়া, তিমুর-লেসতে, তুভালু, ভানুয়াতু এবং ভিয়েতনাম।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে