Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৯ , ৭ কার্তিক ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.5/5 (14 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)


আপডেট : ০৫-২৯-২০১৩

বিদেশে পাচার করা টাকা উদ্ধারে শক্তিশালী টাস্কফোর্স গঠন

মিজান চৌধুরী



	বিদেশে পাচার করা টাকা উদ্ধারে শক্তিশালী টাস্কফোর্স গঠন

বিদেশে পাচারকৃত টাকা দেশে ফেরত আনতে শক্তিশালী সদস্যের টাস্কফোর্স গঠন করা হয়েছে। ওই কমিটি বিদেশী সংস্থাগুলোর সঙ্গে নিবিড় যোগাযোগ স্থাপন করবে। বিদেশে পড়ে থাকা পাচারকৃত অর্থ সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করবে। মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইন ২০১২ ব্যবহার করে সম্পদ দেশে ফেরত আনার উদ্যোগ গ্রহণ করবে এই কমিটি। মঙ্গলবার অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে এ ব্যাপারে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

অ্যাটর্নি জেনারেল অব বাংলাদেশকে প্রধান করে টাস্কফোর্স গঠন করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন এই কমিটিকে সবধরনের সহযোগিতা করবে বাংলাদেশ ব্যাংকের আর্থিক গোয়েন্দা ইউনিট।
অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, টাস্কফোর্স কমিটির সদস্য হিসেবে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর-২, দুর্নীতি দমন কমিশনের বিশেষ অনুসন্ধান ও তদন্ত বিভাগের মহাপরিচালক, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের যুগ্ম সচিব, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালক, বাংলাদেশ সিকিউরিটি অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের সদস্য ও বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালককে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।
জানা গেছে, টাস্কফোর্স কমিটির প্রধান কাজ হবে বিদেশে পাচারকৃত বাংলাদেশের অর্থের অনুসন্ধান করা। বিশেষ করে দুর্নীতি ও অনিয়মের মাধ্যমে হাতিয়ে নেয়া অর্থ অনেকেই বিদেশে পাচার করে গচ্ছিত রেখেছে। টাস্কফোর্স এসব অর্থের সন্ধানে সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর আইনি সংস্থার সঙ্গে যোগাযোগ চালিয়ে যাবে। অর্থ মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা যুগান্তরকে জানান, মানি লন্ডারিং প্রতিরোধে আন্তর্জাতিক সংস্থা ফাইন্যান্সিয়াল অ্যাকশন টাস্কফোর্সের (এফএটিএফ) ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন রিভিউ গ্র“প (আইসিআরজি) বাংলাদেশ একটি ‘কর্মপরিকল্পনা’ প্রেরণ করে। এটি মূলত মানি লন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধে বাংলাদেশকে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত করার লক্ষ্যে এই কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন করা হয়। এর অংশ হিসেবে এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
এ প্রসঙ্গে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ড. মির্জা আজিজুল ইসলাম  এ প্রতিবেদককে জানান, বিদেশ থেকে এই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে টাকা ফেরত নিয়ে আসা একটি দীর্ঘ সময়ের ব্যাপার। এই প্রক্রিয়ায় দু-একটি দেশ ছাড়া বিশ্বের কোথাও সফল ঘটনার উদাহরণ নেই। কারণ পাচারকৃত অর্থ বিদেশের কোন না কোন ব্যাংকে থাকবে। ওই ব্যাংকের নিজস্ব আইন রয়েছে। তাদের আইন ও বিধান মেনে মামলা করতে হবে। বিভিন্ন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে টাকা ফেরত আনতে হবে বিদেশ থেকে। তবে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মধ্যে নাইজেরিয়ার কিছু টাকা বাইরে চলে গেছে। টাস্কফোর্স গঠনের মাধ্যমে ফেরত আনা হয়েছে। ফিলিপাইনের মারকোসের কিছু টাকা ফেরত আনা ছাড়া আর কোন উদাহরণ নেই। তবে এই অর্থনীতিবিদ মনে করেন, রাজনৈতিক ব্যক্তি বা ব্যবসায়ী অবৈধভাবে যে অর্থ পাচার করে থাকে এর প্রতিরোধ হিসেবে এটি কাজ করবে।
স্বল্প আয়ের দেশ হলেও বাংলাদেশ থেকে বছরে প্রচুর অর্থ বিদেশে পাচার হচ্ছে। দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান দ্বিতীয়। গ্লোবাল ফাইন্যান্সিয়াল এন্ট্রিগ্রিটর (জিএফআই) ইন্সটিটিউট ফাইন্যান্সিয়াল ফ্লোর ফর ডেভেলপিং প্রতিবেদনের তথ্য মতে, বছরে গড়ে ১১ হাজার কোটি টাকা (১৪০ কোটি মার্কিন ডলার) বিদেশে পাচার হচ্ছে। পাচারকৃত অর্থের পরিমাণ বৈদেশিক বিনিয়োগের চেয়েও বেশি। 
ওই রিপোর্টে দেখানো হয়, ২০০১-১০ সাল এই এক দশকে বাংলাদেশ থেকে ১ হাজার ৪০৬ কোটি মার্কিন ডলার বিদেশে পাচার হয়েছে। বছরে গড়ে ১৪০ কোটি ডলার চলে যাচ্ছে। সবচেয়ে বেশি অর্থ পাচার হয়েছে ২০০৬ ও ২০১০ সালে। অর্থ পাচারের দিক থেকে ১৪৩টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ৪৪ তম। 
অর্থ পাচার প্রতিরোধে মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ অধ্যাদেশ ২০১২ প্রণয়ন করা হয়। এছাড়া দেশের ভেতর সংশ্লিষ্ট সংস্থারগুলোর মধ্যে একটি নেটওয়ার্ক গড়ে তোলা হয়েছে। ওই নেটওয়ার্কের আওতায় অ্যাটর্নি জেনারেল অফিস, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়, সিকিউরিটি অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন, বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ, বাংলাদেশ ব্যাংক, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, সিআইডি ও বাংলাদেশ পুলিশ, অর্থ বিভাগ, দুর্নীতি দমন কমিশন, সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জাতীয় সংঘ বিভাগ, যৌথ মূলধন কোম্পানি ও ফার্মগুলোর পরিদফতর, মাইক্রোক্রেডিট রেগুলেটরি অথরিটি, এনজিওবিষয়ক ব্যুরো, বাংলাদেশ সমবায় অধিদফতর ও বাংলাদেশ ডাক বিভাগকে আনা হয়েছে। অবশ্য টাস্কফোর্স কমিটি অভ্যন্তরীণ বিষয়ে সমন্বয় করবে।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে