Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শুক্রবার, ১০ এপ্রিল, ২০২০ , ২৭ চৈত্র ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.1/5 (28 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)


আপডেট : ০৪-০৪-২০১৩

‘হেফাজত নেতাদের ঠাণ্ডা করতেই ব্লগারদের গ্রেফতার’


	‘হেফাজত নেতাদের ঠাণ্ডা করতেই ব্লগারদের গ্রেফতার’

ঢাকা, ৪ এপ্রিল- সরকার হেফাজতে ইসলামের নেতাদের ঠাণ্ডা করার জন্য ব্লগারদের গ্রেফতার করছে বলে অভিযোগ করেছেন রাজনীতিবিদ, শিক্ষক, শিক্ষার্থী, সংস্কৃতিকর্মী ও প্রগতিশীল বিভিন্ন সংগঠন।

বুধবার বিকেলে গ্রেফতারকৃত ব্লগারদের মুক্তির দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্য চত্বরের সংহতি সমাবেশে এ অভিযোগ তুলেন বক্তারা।

অবিলম্বে ব্লগারদের মুক্তি দেওয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানানো হয় সমাবেশ থেকে।
 
সমাবেশের কার্যক্রম শুরুর আগেই রাজু ভাষ্কর্যের মুখগুলো কালো কাপড় দিয়ে ঢেকে দেওয়া হয় বাকস্বাধীনতায় হস্তক্ষেপের প্রতিবাদে। এতে বক্তারা ব্লগারদের মুক্তি দাবি করে তাদের গ্রেফতারের তীব্র নিন্দা জানান। গ্রেফতার প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকায় তারা উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

সভায় অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ বলেন, “সরকার ভোটের রাজনীতির হিসেব কষতে গিয়ে আজ নিরীহ ব্লগারদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েছে। এদেশে বিভিন্ন সরকারের আমলে যখন সম্পদ লুণ্ঠন হয়েছে, জাতীয় স্বার্থবিরোধী চুক্তি হয়েছে, তখন তো কোনো আন্দোলনে হেফাজতকারীদের দেখা গেল না।”
 
তিনি অভিযোগ করে বলেন, “সরকার হেফাজতের নেতাদের ঠাণ্ডা করার জন্য ব্লগারদের গ্রেপ্তার করছে, এটা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না।”

সভায় বক্তারা বলেন, “ব্লগ কোনো সংবাদ মাধ্যম না। এটি ব্যক্তিগত আলাপচারিতার ইন্টারনেটভিত্তিক জায়গা। এখান থেকে ব্যক্তিগত মতামতগুলোকে যারা জাতীয় পত্রিকায় এনে জনগণকে ক্ষেপিয়ে তুলতে চেয়েছে, তাদের আগে গ্রেফতার করতে হবে।”

তারা বলেন, “হেফাজতে ইসলাম আসলে হেফাজতে জামায়াতে ইসলাম। এটা জামাতের বি-টিম। সরকার এদের পক্ষে অবস্থান নিয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছে। বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সঙ্গে মতপ্রকাশের জন্য এভাবে ব্লগারদের গ্রেফতার করাটা পুরোপুরি সাংঘর্ষিক।”

ব্লগারদের হাতকড়া পরিয়ে দাগী আসামির মতো মিডিয়ায় উপস্থাপনের রাষ্ট্রীয় অপতৎপরতার তীব্র সমালোচনা করা হয় সভা থেকে।

এতে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অথনীতি বিভাগের অধ্যাপক এম এম আকাশ, অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক শফিকুজ্জামান, অর্থনীতিবিভাগ, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক শান্তনু মজুমদার, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক ফাহমিদুল হক, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতাবিভাগের শিক্ষক কাবেরী গায়েন, বাংলা বিভাগের শিক্ষক মেহের নিগার।
 
ঢাবি শিক্ষকদের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন, অধ্যাপক রফিকউল্লাহ খান, অধ্যাপক মাসুদুজ্জামান, অধ্যাপক গোলাম রব্বানী, সামিনা লুৎফা, রুশাদ ফরিদী, মামুন আল মোস্তফা প্রমুখ।

সমাবেশে সংহতি প্রকাশ করেন কমিউনিস্ট পার্টি বাংলাদেশের সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান মল্লিক প্রমুখ।
 
গ্রেফতারকৃত ব্লগারদের মুক্তির দাবিতে সমাবেশে সংহতি জানায় আরজ আলী মাতুব্বর পাঠাগার, প্রাচ্যনাট, বটতলা নাট্যদল, আরণ্যক নাট্যদল, সংগীতসংস্কৃতি প্রাঙ্গন, রাস্তা, আরশি, জেনারেশন, তারুণ্য ১৩, অযান্ত্রিক, মঙ্গলধ্বনি, প্রগতিশীল ছাত্রজোট, শহীদ রফিক স্মৃতি পাঠাগার, শিক্ষার্থী অধিকার মঞ্চ,শহীদ রুমী স্কোয়াড, শহীদ জননী জাহানারা ইমাম স্কোয়াড, জাতীয় স্বার্থে ব্লগার অনলাইন এক্টিভিস্টসহ নানা সংগঠন।
 
এ সময় ব্লগার আসিফ মহীউদ্দিনের বোন ড. জাহিদা মেহেরুন্নেসা ও সাবিনা শারমিন উপস্থিত ছিলেন। সমাবেশের সভাপতিত্ব করেন সাবেক ছাত্রনেতা বাকি বিল্লাহ।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে