Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট, ২০১৯ , ৫ ভাদ্র ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.9/5 (13 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)


আপডেট : ০২-১৮-২০১৩

তর্ত্তিপুর শ্মশানে মাকরী সপ্তমী মহাপূণ্য স্নান


	তর্ত্তিপুর শ্মশানে মাকরী সপ্তমী মহাপূণ্য স্নান

জেলার শিবগঞ্জ পৌর এলাকার তর্ত্তিপুর শ্মশানে মাকরী সপ্তমী মহাপূণ্য স্নান উপলক্ষে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের (হিন্দু) মিলন মেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রোববার এই মহাপূণ্য স্নান  উপলক্ষে সারাদেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রায় লক্ষাধিক হিন্দু তর্ত্তিপুর শ্মশান ঘাট এলাকায় আসেন।

এ বছরও হিন্দুদের এ গণজমায়েত কেন্দ্র করে তর্ত্তিপুর ঘাট এলাকায় প্রতিবছরের ন্যায় বসেছে মেলা। এই মেলা চলবে ৩ দিন।

জানা গেছে, হিন্দু শাস্ত্র মতে ভগীরত গঙ্গা নদীর জল প্রবাহ নিয়ে বাংলাদেশে আশার সময় তর্ত্তিপুর ঘাট এলাকার শ্মশানের পাশে পৌঁছালে নিম গাছের নিচে জাহ্নবীমণির আশ্রম থেকে তাদের দেবতা জাহ্নবীমণি গঙ্গার জল ভূলবশত: পান করে ফেলে।

এতে ভগীরত ক্ষুব্ধ হলে জাহ্নবীমণি তার জান কেটে সেই জল বের করে দেয় এবং গঙ্গা মুক্ত হয়। সেই থেকে গঙ্গার এই জল প্রবাহ বলে হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা বিশ্বাস করেন।

ফলে এই দিনে বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থান থেকে পূর্ণ লাভের আশায় হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা জমায়েত হন।  এখানে স্নান শেষে অধিকাংশ হিন্দু দই-চিড়া ভোজ খেয়ে গঙ্গার জল সঙ্গে নিয়ে নিজ নিজ বড়িতে ফিরে যান।

তর্ত্তিপুর মেলা কমিটির সভাপতি শ্রী সাধন কুমার মণিগ্রাম জানান, সারাদেশে থেকে অন্তত লক্ষাধিক হিন্দু পূণ্য লাভের আশায় পবিত্র গঙ্গার পানিতে এ দিনে সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত স্নান করে করে থাকে।

এই গঙ্গাস্নান কেন্দ্র করে বসা মেলায় হিন্দুদের শাখা, সিঁদুর, খাড়–, শঙ্ক, বিভিন্ন দেবতার ছবিসহ পোষ্টার, বই, গীতা, পুঞ্জিকা, কাঠের তৈরী প্রয়োজনীয় আসবাব পত্র, গৃহস্থালি কাজে ব্যবহার যোগ্য বিভিন্ন জিনিসপত্র, মিষ্টির দোকান ও হোটেল, কসমেটিক্স দোকানসহ হরেক রকম পসরা বহর দেখা যায়।

এছাড়া মেলায় কীর্তন, গীতা পাঠ ও ধর্ম সভা অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে বলেও তিনি জানান।

এদিকে, পূণ্য স্নানকে ঘিরে বসা মেলায় স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যাপক নিরাপত্তা লক্ষ করা গেছে।

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে