Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ , ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.9/5 (45 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)


আপডেট : ০২-০৩-২০১৩

নান্দাইলে প্রতারক চক্রের খপ্পরে পড়ে দুই যুবক গণপিটুনি শিকার


	নান্দাইলে প্রতারক চক্রের খপ্পরে পড়ে দুই যুবক গণপিটুনি শিকার

ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার মোয়াজ্জেমপুর বন্দেরপাড়া গ্রামে সোনার পুতুল ও ডলার কিনতে এসে প্রতারক চক্রের খপ্পরে পড়ে নরসিংদীর দুই যুবক গণপিটুনির শিকার হয়েছেন।

শনিবার দুপুর দুইটার দিকে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে নান্দাইল মডেল থানার পুলিশ বিকেলে তাদেরকে ঘটনাস্থল থেকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।  

আহত দুই যুবক হলেন- নরসিংদীর পলাশ উপজেলার নোয়াকান্দা গ্রামের মৃত শামছুদ্দিনের ছেলে আওলাদ হোসেন ও একই উপজেলার ধনারচর গ্রামের মৃত নুরুল ইসলামের ছেলে হিরণ।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বন্ধুত্বের সূত্র ধরে নান্দাইলের বিশ্বজিত শিং নামে এক যুবক তাদেরকে উপজেলার মোয়াজ্জেমপুর এলাকায় এনে তাদের কাছে থাকা প্রায় তিন লাখ কেড়ে নেয়। পরে ওই দুই যুবককে ছেলেধরা অপবাদ দিয়ে গণপিটুনি দেয় প্রতারক চক্রটি। পুলিশ তাদের গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে নান্দাইল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসার দিয়ে থানা হাজতে নিয়ে যায়।  

ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, শতাধিক লোক ওই দুই যুবককে মারধর করছে। তারা বাঁচার জন্যে হাত তুলে জনতার উদ্দেশ্যে আকুতি জানিয়ে বলেন, “আমরা ভালো লোক। ছেলে ধরা নই। টাকা নিয়ে এখানে এসে প্রতারিত হয়েছি।”

নান্দাইল মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) নূরুল ইসলাম উপজেলার কানুরামপুর বাসস্টান্ড বাজার এলাকায় ক্ষুদ্ধ জনতার হাত থেকে আওলাদকে মোটরসাইকেলে তুলে দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন। অপর যুবক হিরণকে তখনও মোয়াজ্জেমপুরের কানুরামপুর এলাকার লোকজন মারধর করছে। কিছুক্ষণ পর পুলিশ তাকেও উদ্ধার করে নিয়ে যায়।

বিকেল ৫টার দিকে থানা হাজতে গিয়ে ওই যুবকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, নান্দাইল উপজেলার মোয়াজ্জেমপুর ইউনিয়নের অনিল চন্দ্র শিংয়ের ছেলে বিশ্বজিত শিং পলাশ এলাকার একটি পোষাক কারখানায় কাজ করে। সেখানে থাকার সময় তাদের সঙ্গে বিশ্বজিতের পরিচয় ঘটে।

বিশ্বজিত তাদেরকে শনিবার দুপুরে নান্দাইলের দত্তপুর গ্রামে নিয়ে আসে। সেখানে নিয়ে বন্দেরপাড়া এলাকার একটি নির্জনস্থানে নিয়ে তাদের কাছ থেকে টাকা পয়সা কেড়ে নেয়। প্রতিবাদ করলে তাদেরকে ছেলেধরা বলে ‘ধর ধর’ করে চিৎকার করতে থাকে। পরে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে তাদেরকে ছেলে ধরা সন্দেহে গণপিটুনি দেয়।

ওই এলাকার মিনা আক্তার, আনোয়ারা জানান, ওই দুই লোক দৌঁড়ে এসে আমাদের পা ধরে বলে প্রাণ বাঁচান। এ সময় বিশ্বজিতসহ তিন-চারজন লোক তাদের পিঁছু ধাওয়া করছিল।

জানতে চাইলে নান্দাইল মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) নূরুল ইসলাম জানান, ওই যুবকদের বাড়িতে খবর দেওয়া হয়েছে। তারা আসার পর এ ব্যাপারে আইনগত প্রক্রিয়া শুরু করা হবে।

ময়মনসিংহ

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে