Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.0/5 (120 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ১০-২৯-২০১৭

ট্রাক হেলপারের কপালে পিস্তল ঠেকিয়ে বেতের লাঠি দিয়ে পেটালেন মেয়র

ট্রাক হেলপারের কপালে পিস্তল ঠেকিয়ে বেতের লাঠি দিয়ে পেটালেন মেয়র

মেহেরপুর, ২৯ অক্টোবর- বকুল হোসেন (১৮) নামের এক ট্রাক হেলপারের কপালে পিস্তল ঠেকিয়ে বেতের লাঠি দিয়ে মারধর করেছেন গাংনী পৌরসভার মেয়র আশরাফুল ইসলাম ও তার দুই সঙ্গী। 

আহত অবস্থায় তাকে মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। মেয়রের গাড়ি ও সবজি বোঝাই ট্রাকের সাইড দেয়া নিয়ে রোববার (২৮ অক্টোবর)  দুপুরে মেহেরপুর শহরে এ ঘটনা ঘটে। 

প্রতিবাদে বিক্ষুদ্ধ শ্রমিকরা কিছু সময় সড়ক অবরোধ করে। বকুল হোসেন মেহেরপুর শহরের ৯নং ওয়ার্ড গোরস্থান পাড়ার ইছারুল ইসলামের ছেলে। 

তবে ওই হেলপারের বেপোরয়া গাড়ি চালানোর অভিযোগ করলেন মেয়র আশরাফুল ইসলাম। 

আহত ট্রাক হেলপার বকুল হোসেন বলেন, সদর উপজেলার শৈলমারী গ্রাম থেকে কয়েক বস্তা কপি নিয়ে গাংনী উপজেলার গাড়াডোব গ্রামে আরো সবজি বোঝাইয়ের জন্য যাচ্ছিলাম। সেখান থেকে চালককে ট্রাকটি হস্তান্তর করার কথা ছিল। 

মেহেরপুর শহরের বড় বাজার এলাকার সামনে একটি মাইক্রোবাস দেখতে পাই। বার বার হর্ণ দেয়া সত্ত্বেও মাইক্রোবাসটি সাইড দেয়নি। এক পর্যায়ে মাইক্রোবাসটি কলেজ মোড় থেকে চুয়াডাঙ্গার দিকে চলে গেলে আমি সাইড পাই। 

তিনি জানান, মেহেরপুর-কুষ্টিয়া সড়ক দিয়ে গাড়াডোবের দিকে যাওয়ার পথে ফায়ার সার্ভিস অফিসের কাছাকাছি ওই মাইক্রোবাসটি আমার সামনে আড় করে গতিরোধ করে। তড়িঘড়ি করে ব্রেক করে দুর্ঘটনা সামাল দেয়। 

তিনি আরও বলেন, মাইক্রোবাস থেকে গাংনী পৌর মেয়র আশরাফুল ইসলাম ও তার দুই সঙ্গী নেমে আমার দিকে তেড়ে আসেন। মেয়র আমার কপালে পিস্তল ঠেকিয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে বলেন, আজ তোর কোন বাপ ঠেকাবে। 

এ সময় মেয়রের ব্যক্তিগত দেহরক্ষী ট্রাকে থাকা শ্রমিকদের দিকে শর্টগান তাক করে নড়াচড়া না করার জন্য হুমকি দেয়। পরে আমাকে বেতের লাঠি দিয়ে পিটিয়ে তারা চলে যায়। 

এ দিকে খবর পেয়ে শ্রমিকদের কয়েকজন ঘটনাস্থলে গিয়ে সড়ক অবরোধ করে। মেয়র ও তার সঙ্গীদের বিচারের দাবিতে উত্তাপ ছড়িয়ে পড়ে মালিক-শ্রমিকদের মাঝে। 

হেলপারকে মারধরের বিষয়ে জানতে চাইলে মেয়র আশরাফুল ইসলাম পাল্টা অভিযোগ করে বলেন, বড় বাজার থেকে কলেজমোড় পর্যন্ত অযথা ওই ট্রাকের হর্নে বিরক্ত। বেপরোয়া ট্রাক চালানোর কারণে আমার গাড়িটি দুর্ঘটনায় ঝুঁকিতে পড়ে। 
এর প্রতিবাদ করায় ট্রাকের শ্রমিকরা ধারালো হেঁসো (ধারালো অস্ত্র) হাতে করে আমাদের দিকে তেড়ে আসে। তাদের হাত থেকে বাঁচতেই আমার লাইসেন্সকৃত পিস্তল উচিয়ে ধরি। 

মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক দেলোয়ার হোসেন বলেন, বকুল হোসেনের হাতে ও পিঠে লাঠির আঘাত রয়েছে। তাকে ভর্তি রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। 

এ প্রসঙ্গে মেহেরপুর জেলা মটর শ্রমিক ইউনিয়ন সাধারণ সম্পাদক মতিয়ার রহমান বলেন, বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। তবে জনভোগান্তি মাথায় রেখে সড়ক অবরোধ তুলে দেয়া হয়েছে। মেহেরপুর পৌর মেয়র বিষয়টি সমাধানের আশ্বাস দিয়েছেন। 

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে মেহেরপুর সদর থানা ভারপ্রাপ্ত কমকর্তা (ওসি) রবিউল ইসলাম বলেন, মেহেরপুর পৌর মেয়র ও শ্রমিক ইউনিয়নের প্রতিনিধিরা বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করছেন। আহত বকুল হোসেন যদি মামলা করেন তাহলে আমরা তা গ্রহণ করব। 

তথ্যসূত্র:  গো নিউজ২৪
এআর/১৮:৩৫/২৯ অক্টোবর

মেহেরপুর

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে