Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ২৪ জুন, ২০১৯ , ১০ আষাঢ় ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.2/5 (61 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০১-১২-২০১৩

বাহরাইনে বাংলাদেশি-অধ্যুষিত ভবনে আগুন : ১৩ জন নিহত


	বাহরাইনে বাংলাদেশি-অধ্যুষিত ভবনে আগুন : ১৩ জন নিহত

মানামা, ১২ জানুয়ারি- বাহরাইনের রাজধানী মানামায় একটি ভবনে আগুন লেগে ১৩ জন প্রবাসী শ্রমিক মারা গেছেন। নিহত ১৩ শ্রমিকের মধ্যে ১০ জনই বাংলাদেশি। তাদের মধ্যে ৫ জনের পরিচয় প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

 
তারা হলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার শহীদ মিয়ার দুই পুত্র সাইফুল ইসলাম সবুজ ও স্বপন, আবু নাসের মিয়ার ছেলে শাহজাহান মিয়া ওরফে জসিম। আর চট্টগ্রামের শাকির আহমেদের পুত্র নাজির আহমেদ এবং রশীদ আহমেদের পুত্র মাহবুব আলম। 
 
পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তরফে তাদের মৃত্যুর খবর ও পরিচয় নিশ্চিত করা হয়। এর আগে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কনস্যুলার উইংয়ের মহাপরিচালক লায়লা হুসেইন দুইজনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছিলেন। 
 
নিহতদের মধ্যে প্রথম তিনজনের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবীনগর উপজেলায় । নিহত তিন জনের মধ্যে সবুজ ও স্বপন দুই ভাইয়ের বাড়ি উপজেলার কাইতলা ইউনিয়নের কাইতলা গ্রামে। এছাড়া নিহত শাহজাহান মিয়ার বাড়ি একই ইউনিয়নের গোয়ালি গ্রামে। তবে নাজির আহমেদ ও মাহবুব নামের চট্টগ্রামের দুই নিহতের গ্রামের নাম জানা এখনও সম্ভব হয় নি। 

শুক্রবার রাজধানীর মুখারকা এলাকার একটি তিনতলা ভবনে গতকাল বিকেলে আগুন লাগে। ভবনটির এক বাসিন্দা বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানিয়েছেন, ওই ভবনে ২৮টি কক্ষ রয়েছে। এর মধ্যে তিনটি কক্ষে পাকিস্তানি শ্রমিকেরা থাকতেন। আর বাকি কক্ষগুলোতে থাকতেন বাংলাদেশি শ্রমিকেরা। বিবিসির খবরে নিহত ব্যক্তিদের পরিচয় জানানো হয়নি।

বাহরাইনের ‘গালফ ডেইলি নিউজ’-এর খবরে বলা হয়েছে, গত রাতে বাহরাইনের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, নিহত ব্যক্তিদের পরিচয় এখনো পাওয়া যায়নি। মৃত ব্যক্তিদের লাশ সেখানকার সালমানিয়া মেডিকেল কমপ্লেক্সের মর্গে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আহত ব্যক্তিদেরও সেখানে চিকিত্সা দেওয়া হচ্ছে। হতাহতের সংখ্যা বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।
বাহরাইনের সিভিল ডিফেন্সের ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক জানিয়েছেন, গতকাল স্থানীয় সময় পৌনে চারটার দিকে তিন তলার ভবনটিতে (শ্রমিক ক্যাম্প) আগুন লাগে। ঘটনার পর ফায়ার সার্ভিস দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। পার্শ্ববর্তী ভবনে ছড়িয়ে পড়ার আগেই আগুন নিভিয়ে ফেলা হয়। আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত ভবনটি ধসে পড়েছে। ভবনটি থেকে অনেক শ্রমিককে উদ্ধার করা হয়েছে। নিহত ব্যক্তিদের পরিচয় নিশ্চিত করার চেষ্টা চলছে। 
সূত্রের বরাত দিয়ে বাহরাইনের ‘গালফ ডেইলি নিউজ’ জানিয়েছে, ভবনের ২৬টি কক্ষে বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও ভারতের শ্রমিকেরা থাকতেন। তবে ভবনটিতে বেশির ভাগ ছিলেন বাংলাদেশের শ্রমিক। ভবনটির প্রতিটি কক্ষে সাত থেকে ১০ জন করে শ্রমিক থাকতেন।
বাহরাইনে বাংলাদেশ দূতাবাসের প্রথম সচিব মহিদুল ইসলাম আজ শনিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে জানান, ‘স্থানীয় সময় চারটা ২০ মিনিটের দিকে ভবনটিতে আগুন লাগে। ঘটনার পর আমরা সেখানে যাই। অনেক রাত পর্যন্ত আমরা সেখানে ছিলাম। ফায়ার সার্ভিসের লোকজন আমাদের সেখান থেকে সরিয়ে দেয়। কিছুক্ষণ পর ভবনটি ধসে পড়ে। আমরা যতটুকু জানতে পেরেছি, ভবনটি ভাড়া নিয়ে পাকিস্তানিরা থাকতেন। তবে ভবনটিতে কিছু বাংলাদেশিও ছিলেন বলে শোনা যাচ্ছে। আমরা প্রাথমিকভাবে জেনেছি, ১৩ জন শ্রমিক মারা গেছেন। তবে তাঁদের পরিচয় পাওয়া যায়নি। পরিচয় নিশ্চিত হওয়া গেলেই আমরা তা জানাব।’
পরিচয় পাওয়া গেছে দুই বাংলাদেশির
সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত বাহরাইনের ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে নিহত ১৩ শ্রমিকের মধ্যে চারজন বাংলাদেশি বলে প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হওয়া গেছে। এদের মধ্যে দুইজনের প্রাথমিক পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা হলেন নাজির আহমেদ পিতা: শাকির আহমেদ এবং মোহাম্মদ জসিম পিতা: আবু নাসির মিয়া। তাদের উভয়েরই বাড়িই বৃহত্তর কুমিল্লা অঞ্চলে বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কনস্যুলাই উইংয়ের মহাপরিচালক লায়লা হুসেইন এ তথ্য নিশ্চিত করেন। এ ছাড়া পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং মানামাস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস পরিস্থিতি গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছে বলে জানান তিনি।

 

বাহরাইন

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে