Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ , ১ আশ্বিন ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.0/5 (3 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০১-০২-২০১৩

আশিয়ান সিটির সকল কার্যক্রম বন্ধে হাইকোর্টের নির্দেশ


	আশিয়ান সিটির সকল কার্যক্রম বন্ধে হাইকোর্টের নির্দেশ

ঢাকা, ০২ জানুয়ারি- আশিয়ান সিটি আবাসিক প্রকল্পের মাটি ভরাট, যে কোনো ধরনের বিজ্ঞাপন ও প্লট বিক্রিসহ সব কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট। এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি শেষে বুধবার বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার এবং বিচারপতি মুহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকারের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এই আদেশ দেন এবং এ সংক্রান্ত রুল জারি করেন।

আইন ও সালিশ কেন্দ্র, অ্যাসোসিয়েশন ফর ল্যান্ড রিফর্ম অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট, বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতি, ব্লাস্ট, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন, ইনস্টিটিউট অব আর্কিটেক্ট বাংলাদেশ, নিজেরা করি, পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলনসহ ৮ সংগঠন গত ২২ ডিসেম্বর এই রিট দায়ের করে। বুধবার এইসব আবেদনের শুনানি শেষে আদালত আদেশ দেয়।
 
আদালত একইসঙ্গে পরিবেশ অধিদফতর কর্তৃক দেয়া আশিয়ান সিটির অবস্থানগত ছাড়পত্র, এর নবায়ন, আসিয়ান সিটি আবাসিক প্রকল্পকে দেওয়া রাজউকের অনুমোদন স্থগিত করেছে।
 
পরিবেশের ক্ষতি করায় আশিয়ান সিটিকে করা অধিদফতরের জরিমানা কমিয়ে মন্ত্রণালয়ের দেয়া আদেশও স্থগিত হয়ে গেছে আদালতের আদেশ অনুযায়ী। গত ১৪ ফেব্রুয়ারি পরিবেশ মন্ত্রণালয় ইতোপূর্বে আশিয়ান সিটিকে করা অধিদফতরের জরিমানা ৫০ লাখ টাকা কমিয়ে ৫ লাখ টাকা নির্ধারণ করে দেয়।
 
একইসঙ্গে ওই প্রকল্পকে দেওয়া অবস্থানগত ছাড়পত্র, এর নবায়ন, জমিমানা কমানো এবং রাজউক কর্তৃক অনুমোদন দান কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করা হয়েছে।
 
এছাড়া আশিয়ান সিটি কর্তৃক উন্নয়নকৃত এলাকাকে পূর্বের অবস্থায় ফিরিয়ে আনার নির্দেশ কেন দেওয়া হবে না, কেন সকল অনুনোমোদিত প্রকল্প ভরাট কার্যক্রম, বিজ্ঞাপন প্রদান, প্লট বিক্রি বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়।
 
আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে গৃহায়ণ সচিব, ভূমি সচিব, পরিবেশ সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব, তথ্য সচিব, রাজউক চেয়ারম্যান, ঢাকার জেলা প্রশাসক, পরিবেশ অধিদফতরের পরিচালক (তত্ত্বাবধায়ন ও বাস্তবায়ন) এবং আশিয়ান সিটির ব্যবস্থাপনা পরিচালককে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।
 
কোনো বিলম্ব ছাড়াই আসিয়ান সিটির অনুমোদন সংক্রান্ত সকল কাগজপত্র আদালতে জমা দিতে বলা হয়েছে। এ পর্যন্ত তারা কতগুলো প্লট বরাদ্দ দিয়েছে তার একটি তালিকাও আদালতে দিতে বলা হয়।
 
বেসরকারি আবাসন প্রকল্প ভূমি উন্নয়ন নীতিমালা-২০০৪ সংশোধনের পর কতগুলো আবাসন প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়েছে, তার একটি তালিকা দিতে রাজউক চেয়ারম্যানকে নির্দেশ দিয়েছেন।
 
আদালতে আবেদনকারীদের পক্ষে শুনানি করেন এ এম আমিন উদ্দিন। তাকে সহায়তা করেন, আইনজীবী ইকবার কবির লিটন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল আল আমিন সরকার।
 
আদেশের পরে ইকবাল কবির লিটন বলেন, আসিয়ান সিটি ৫৫ একর জমির উপর তাদের প্রথম অবস্থানগত ছাড়পত্র পায়। তারা তখন বলেছিল, তারা কোনো জলাভূমি ভরাট করবে না। কিন্তু তারা এটা রক্ষা করেনি।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে