Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, রবিবার, ১২ জুলাই, ২০২০ , ২৮ আষাঢ় ১৪২৭

গড় রেটিং: 3.2/5 (18 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১০-২৪-২০১২

কী ঘটেছিল সেই টকশোতে

গোলাম মাওলা রনি এমপি



	কী ঘটেছিল সেই টকশোতে

অনুষ্ঠানটি চলছিল বেশ ভালোই। আরটিভির লাইভ অনুষ্ঠানটি ছিল মূলত ঈদ ও পূজার ঘরমুখো মানুষের দুর্ভোগ নিয়ে। অনুষ্ঠানে উপস্থিত অন্যান্য আমন্ত্রিত অতিথির সঙ্গে আমিও ছিলাম। ছিলেন আমাদের নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান, ইসরাফিল আলম এমপি। বিএনপির পক্ষ থেকে ছিলেন সাবেক মন্ত্রী ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, মহিলা এমপি রাশেদা বেগম হীরা। প্রফেসর রোবায়েত ফেরদৌসের সঞ্চালনায় আরটিভির বিশেষ অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন প্রকৌশলী ইকবাল হাবীব, র্যাবের পক্ষ থেকে কমান্ডার এম সোহায়েলসহ অন্যান্য অতিথি। এটা কোনো নিয়মিত অনুষ্ঠান ছিল না। ঈদ ও পূজা উপলক্ষে বিশেষ অনুষ্ঠান। ব্যাপ্তি ছিল প্রায় দুই ঘণ্টা। স্থানটি ছিল অন্যত্র। অর্থাৎ আরটিভির মূল অফিসে না করে তারা তাদের সদ্যনির্মিত সুপরিসর স্টুডিওতে আয়োজন করেছিলেন, যা কি না তেজগাঁও শিল্পাঞ্চলে অবস্থিত। সময় সোমবার রাত ১১টা ২০ মিনিট।

অনুষ্ঠান শুরুর প্রায় এক ঘণ্টা আগে আমরা বেশির ভাগ অতিথি পৌঁছে যাই ঘটনাস্থলে। বেশ হাসি-তামাশা হচ্ছিল আন্তরিকতাপূর্ণ পরিবেশে। আমি নিজে, মাননীয় মন্ত্রী, ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, সংসদ সদস্য হীরা এবং ইসরাফিল আলম অনেক মজার মজার কথা বলে হাসলাম। স্যান্ডউইচ খেলাম। আমাদের দিল একটা করে। মন্ত্রীকে দেওয়া হলো দুইটা। মন্ত্রী মজা করে বললেন, দুইটা কেন! ও বুঝেছি আমার বিশাল দেহ দেখে তোমরা দুইটা স্যান্ডউইচ দিলে। মনে করেছ মেশিন বড়। তাই তেলও বেশি লাগবে। তিনি খেলেন। আমরা তার সঙ্গে কৌতুকে যোগ দিলাম।

অনুষ্ঠান শুরু হলো। আমরা বসলাম। ঝামেলা বাধালেন বিএনপির সংসদ সদস্য রাশেদা বেগম হীরা। তিনি প্রসঙ্গ এড়িয়ে রাজনৈতিক বক্তব্য শুরু করলেন এবং দুর্নীতির জন্য সরকার বিশেষত সাবেক রেলমন্ত্রীর কঠোর সমালোচনা করলেন। একই সঙ্গে চাঁদাবাজির জন্য নৌমন্ত্রীকেও উপহাস করলেন। স্বাগত বক্তব্যে ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া নৌপরিবহনমন্ত্রীকে কটাক্ষ করে বললেন, একই সঙ্গে পরিবহন শ্রমিক মালিক নেতা এবং মন্ত্রী হন কী করে? এটা তো স্পষ্ট conflict of Interest. হয়তো তার অদৃশ্য শক্তির হাত অনেক বড় তাই তিনি পারছেন, ইত্যাদি, ইত্যাদি। আমি প্রমাদ গুনলাম। হয়তো খারাপ কিছু ঘটতে যাচ্ছে।

ঘটলও তাই। আমাদের নৌপরিবহনমন্ত্রী যখন বক্তব্য দিচ্ছিলেন তখনই যুগপৎভাবে তার বক্তব্যের ব্যাঘাত ঘটালেন ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া এবং হীরা বেগম। তারা ইংরেজি বাংলা মিলিয়ে একের পর এক অভিযোগ তুললেন সরকারের বিরুদ্ধে। নৌপরিবহনমন্ত্রী প্রথমে তাদের অনুরোধ করলেন বসার জন্য। সঞ্চালক রোবায়েতও অনুরোধ করলেন এবং বললেন, আপনাকে পর্যাপ্ত সময় দেওয়া হবে বলার জন্য। কিন্তু তিনি থামলেন না। বলতে থাকলেন। স্টুডিওর মধ্যে চিৎকার-চেঁচামেচি শুরু হলো। আমন্ত্রিত অতিথি, কলাকুশলী এবং উপস্থিত দর্শক মিলে শখানেক লোক তো হবেই। ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া বললেন, এই সরকার চোর। আপনারা সবাই চোর, আপনাদের নেতা চোর, ইত্যাদি, ইত্যাদি। মন্ত্রীও কম যান না। তিনি সমানতালে উত্তর করতে থাকলেন। সঞ্চালক বয়সে তরুণ, কিছুটা বিব্রত এবং একই সঙ্গে ভীতসন্ত্রস্ত মনে হলো। বাকবিতণ্ডা প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড়ের মতো ধ্বংসের দিকে এগোতে থাকল। কেউ কেউ মুচকি হাসছেন আবার দর্শক সারি থেকে কেউ কেউ তালি বাজাচ্ছেন। শিসও দিচ্ছেন অনেকে। সঞ্চালক তার টকব্যাক বার বার অনুরোধ করতে থাকলেন শো বন্ধ করার জন্য। কিন্তু কে শোনে কার কথা। ক্যামেরাম্যানেরা বোধহয় খুব মজা পাচ্ছিলেন। তারা শো চালিয়ে রাখলেন। উপস্থাপক ঝড়ের তাণ্ডবে তখন থরথর করে কাঁপছেন। মনে হলো কিংকর্তব্যবিমূঢ়। ব্যারিস্টার রফিক মিয়া টেবিলে থাপ্পড় দিয়ে দাঁড়িয়ে গেলেন। মন্ত্রীও ততোধিক সজোরে হুঙ্কার ছেড়ে দাঁড়ালেন। আমি গিয়ে মন্ত্রীর হাত ধরে বললাম, ভাই কী হচ্ছে? তিনি ধীরস্থিরভাবে ফিসফিস করে উত্তর করলেন- সমস্যা নেই। আমি ঠিক আছি। পাগলের সঙ্গে পাগলামি না করলে তার পাগলামি থামে না। বেয়াদবের সঙ্গে বেয়াদবি না করলে মীমাংসা হয় না। ওদিকে ব্যারিস্টার রফিকের সঙ্গে তাদের মহিলা সংসদ সদস্যও দাঁড়িয়ে গেলেন। শুরু হলো অশ্লীলতার মন্ত্রপাঠ। ওই মন্ত্রে সর্বদংশী সাপের বিষও নেমে আসতে বাধ্য। আমন্ত্রিত অতিথি এতক্ষণ যারা মুচকি হাসছিলেন তারা বেশ ভয় পেয়ে গেলেন। আমি সাংবাদিক মনির হায়দারের দিকে লক্ষ্য করলাম। ভয়ে মুখ পাংশুবর্ণ হয়ে গেছে। র্যাবের কমান্ডার সোহায়েলের অবস্থাও তদ্রূপ। সম্ভবত ভয়ে নয়। তিনি ছিলেন যারপরনাই বিব্রত। এ অবস্থায় রোবায়েত আমাকে অনুরোধ করলেন তার চেয়ারে বসার জন্য। আমি তা-ই করলাম। অনুষ্ঠান তখনো দর্শকরা দেখছিল কি না তা বলতে পারব না। কিন্তু চিৎকার-চেঁচামেচিতে কিছুই শোনা যাচ্ছিল না। এরই মধ্যে ঘটল আরেক বিপত্তি। কেউ একজন হয়তো অতি উৎসাহী হয়ে স্টুডিওর মেইন সুইচ অফ করে দিলেন। পুরো স্টুডিও পরিণত হলো নিকষ কালো অন্ধকারের মৃত্যুপুরীতে।

মৃত্যুপুরীর সাময়িক বাসিন্দারা কিন্তু থামলেন না। তারা একে অপরকে বকাঝকা করছেন। সে কী ভাষারে বাবা! কণ্ঠের স্বরেও ছিল পল্টন ময়দানের প্রলয়ঙ্করী হুঙ্কার। কে যে গালাগাল করছেন তা বোঝা যাচ্ছে না। দর্শক সারি থেকে একজন গালি দিয়ে উঠল ওই হীরা '...' শুরু করেছে। ঝগড়ার সময় বিড়ালের গায়ে পানি ঢাললে বিড়াল আরও ঝগড়া করে। কারণ বিড়াল মনে করে অন্য বিড়াল তার গায়ে মুতে দিয়েছে। ওই হীরা আমাদের সবার গায়ে '...' দিয়েছে। একজন বলছে আগামীতে তোরে জেলে ঢোকাব। অন্যজন বলছে তুই আমার '...' ছিঁড়বি। অন্যজন বলছে তোর হাত-পা ভেঙে দেব। উত্তর হলো- সেটা তো পরে। তোরটা এখনই ভেঙে দেব। কে যেন বলল- তোর চোখ বান্দরের মতো। উত্তর এলো- এত বড় কথা। তোরে আজ আর ছাড়ছি না। এরই মধ্যে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে মারাত্দক কটূক্তি করা হলো। উত্তরে বলা হলো- তোর হাত-পা ভেঙে দেব। এ সবই হচ্ছিল অন্ধকারের মধ্যে। তা বোধকরি পাঁচ-সাত মিনিট তো হবেই। অন্ধকারের মধ্যে আমি দুই পক্ষের মাঝামাঝি বসেছিলাম।

এরই মধ্যে বিদ্যুৎ চলে এলো। দেখলাম অতিথিদের সবাই দাঁড়ানো। বোঝা গেল না এতক্ষণ সম্মিলিত ভাষায় কারা কারা কথিত সুকর্মগুলো করছিলেন। বিদ্যুৎ আসার পর বাগযুদ্ধ হস্তযুদ্ধে রূপান্তর নিতে গেল। ইসরাফিল আলম এমপি মন্ত্রীকে থামাতে গেলেন। কিন্তু পেরে উঠলেন না। আমি ব্যারিস্টার রফিকুল ইমলাম মিয়াকে থামাতে গেলাম। কিন্তু পারছিলাম না। বয়স্ক মানুষ হলেও তার গায়ে এখনো যে যথেষ্ট শক্তি রয়েছে তা আমি দিব্যি টের পাচ্ছিলাম। ভয় হলো যদি সত্যি সত্যি হাতাহাতি-জাতীয় কিছু একটা হয়ে যায় তাহলে কলঙ্কের আর শেষ থাকবে না। আর এ উসিলায় টকশোও বন্ধ হয়ে যেতে পারে। ইদানীং টকশো করে আমার আয়-রোজগার ভালোই হচ্ছে। আমি আমার রোজগার বন্ধের চিন্তায়ও পড়ে গেলাম। আমি এবার কূটনীতির আশ্রয় নিলাম। আমি ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়াকে একদম কোলাকুলির মতো গভীর আলিঙ্গনে জড়িয়ে ধরলাম। কানের কাছে মুখ নিয়ে ফিসফিসিয়ে বললাম, ভাই আমাদের মন্ত্রী মহোদয়ের গায়ে কিন্তু অনেক শক্তি। আপনি কোন সাহসে এই বুড়া বয়সে তার সঙ্গে লাফিয়ে লাফিয়ে মারামারি করতে যাচ্ছেন। আমি যদি আপনাকে ছেড়ে দিই আপনি বড়জোর তাকে একটি ঘুষি মারতে পারবেন এবং আপনার যা উচ্চতা তাতে ঘুষি মন্ত্রীর পেটে লাগবে এবং কিছুই হবে না। মন্ত্রী যদি আপনাকে এক ঘুষি মারেন আপনি কিন্তু বাঁচবেন না। কীসের রাজনীতি, কীসের নমিনেশন বা মন্ত্রী হওয়া। আগে প্রাণে বাঁচুন।

তিনি বললেন, আমি তো ওকে মারতে চাই না। ও আমাকে মারতে চায় কেন? তুমি ওকে ফেরাও। মন্ত্রী বোধহয় বুঝলেন প্রতিপক্ষ দুর্বল হয়ে পড়েছে। তিনি শেষ হুঙ্কার ছাড়লেন। ব্যারিস্টার রফিক বললেন, রনি কী করা যায়। আমি বললাম, এখানে দাঁড়িয়ে থাকা বিপজ্জনক। আবার ভয়ে চলে যাওয়াও লজ্জাজনক। চলেন আমি আপনাকে টানতে টানতে স্টুডিওর বাইরে নিয়ে যাই। আমি তা-ই করলাম। ঝড় থামল। কিন্তু যে মুহূর্তে আমি তাকে স্টুডিওর বাইরে নিয়ে গেলাম সঙ্গে মহিলা সংসদ সদস্য হীরাও গেলেন এবং উপস্থিত দর্শকরা সম্মিলিতভাবে করতালি দিলেন। কেন দিলেন, কাকে দিলেন কিছুই বুঝলাম না। অনুষ্ঠানের প্রযোজক বেলায়েতকে বললাম মেহমানদের যত্ন নেওয়ার জন্য এবং সময়মতো পুনরায় নিয়ে আসার জন্য।

এরপর আমরা যে-যার সিটে বসলাম। ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া এবং সংসদ সদস্য হীরাও এলেন। স্পষ্টতই থমথমে পরিবেশ। কারও মুখে কথা নেই। অনুষ্ঠান পুনরায় শুরু হবে কি না সিদ্ধান্ত নিতে পারছিলেন না। আমি রোবায়েতকে বললাম, শুরু করতে হবে। কারণ একটি দুর্ঘটনার মধ্যে অনুষ্ঠানটি হঠাৎ করেই বিরতিতে গেছে। কাজেই সমাপ্তিটা সুন্দর না হলে দেশবাসী বিভ্রান্ত হবে। চ্যানেল কর্তৃপক্ষও দায় এড়াতে পারবে না। আমি আরও বললাম বিরতির পর প্রথম বক্তা হিসেবে আমাকে সুযোগ দেওয়ার জন্য। যা হোক, আমার পরামর্শ রোবায়েত গ্রহণ করলেন। আমি বেশ শান্তভাবে আলোচনা করলাম। চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চনসহ আরও কয়েকজন আমাকে কিছু প্রাসঙ্গিক প্রশ্ন করলেন। আমি উত্তর দিলাম। ফলে অনুষ্ঠানে আবার স্বাভাবিকতা ফিরে এলো। খুব স্বাভাবিকভাবে সংসদ সদস্য হীরা এবং ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া তাদের বক্তব্য রাখলেন। মাননীয় মন্ত্রী শাজাহান খান তার সমাপনী বক্তব্য রাখলেন বেশ শান্তভাবে। অনুষ্ঠান শেষ হলো।

অনুষ্ঠান শেষের আসনটি ছিল বেশ আকর্ষণীয়। আমাদের মন্ত্রী জনাব শাজাহান খান বেশ প্রফুল্ল মনে এবং সাহসী বদনে ডাক দিলেন 'কি ব্যারিস্টার সাহেব। ঝগড়া তো করলেন। কিন্তু কোলাকুলি না করে তো যেতে পারবেন না।' আমি দৌড়ে গিয়ে ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়ার হাত ধরলাম। মন্ত্রী শাজাহান খান প্রথমে ব্যারিস্টার সাহেবের হাত ধরলেন এরপর কোলাকুলি করলেন। অনেক্ষণ কোলাকুলি চলল। আর এভাবেই শেষ হলো গভীর রোমাঞ্চকর একটি অধ্যায়ের।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে