Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ২৭ মে, ২০১৯ , ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬
হাস্যরসে ভরপুর লেখা দিতে লগইন/রেজিষ্টার করুন

হাসিখুশি ক্লাব -> General

এমন কোন ইডিয়ট নেই যে আমাকে বিয়ে করবে

বিয়ের দিনক্ষণ পাকা। এমন পর্যায়ে প্রেমিক প্রেমিকার মধ্যে কথা হচ্ছে — প্রেমিকঃ এখন কাউকে কিছু বলব না, একেবারে বিয়ে করে সবাইকে চমকে দেব। প্রেমিকাঃ আমি শুধু রহমানকে একবার বলব। প্রেমিকঃ এত লোক থাকতে রহমান কেন? প্রেমিকাঃ ও-ই আমাকে বলেছিল, পৃথিবীতে এমন কোন ইডিয়ট নেই যে আমাকে বিয়ে করবে।

এটিএম কার্ডের পাসওয়ার্ড

অপু বলছে তার প্রেমিকাকে, ‘প্রেয়সী আমার, তোমার সঙ্গে আমি আমার সব কথা শেয়ার করতে চাই। আমার সুখ, দুঃখ, হাসি, কান্না…সব!’ প্রেমিকা: শুরুটা তাহলে তোমার এটিএম কার্ডের পাসওয়ার্ড দিয়েই হোক।

দুই মেয়ের ঝগড়া

দুই মেয়ে বাসের সিটে বসা নিয়ে ঝগড়া করছে কন্ডাক্টর: কী ব্যাপার, ঝগড়া করছেন কেন? আপনাদের মধ্যে যে বয়সে বড় সে বসে যান। তারপর আর কী! দুজনেই সারা রাস্তা দাঁড়িয়ে গেলেন!

স্ত্রীকে নিয়ে শপিংয়ে যাবো

অফিসের কর্মচারী আর বসের মধ্যে কথা হচ্ছে- কর্মচারী: স্যার, আজ দুপুরের পর আমাকে কিছুক্ষণের জন্য ছুটি দেবেন? বস: কেন? কর্মচারী: আমার স্ত্রীকে নিয়ে একটু শপিংয়ে যাবো। বস: না, কোনো ছুটি হবে না। কর্মচারী: আপনি আমাকে বাঁচালেন, স্যার। আপনাকে অনেক ধন্যবাদ

বউ অশান্তি করে  

১ম জন: বাড়িতে শান্তি নেই। বউ খালি টাকা চায়। ২য় জন: কত টাকা? ১ম জন: কোনো ঠিক আছে? ১০০, ২০০, ৫০০ বা যখন যা ইচ্ছে। ২য় জন: বাপ রে! এত টাকা নিয়ে কী করে?

বউয়ের অনেক দুঃখ

আকাশকে কাঁদতে দেখে মনির এগিয়ে গিয়ে বললো- মনির: কী কাঁদছিস কেন? আকাশ: বউয়ের দুঃখে! মনির: কেন? কী হয়েছে? আকাশ: আমার বউয়ের অনেক দুঃখ। সে না আমার ওপর রাগ করে বাপের বাড়ি যেতে পারে না। মনির: কেন পারে না? আকাশ: আমি যে ঘরজামাই!

পরীর মত সুন্দর

ভিক্ষুক: আপনাকে পরীর মতো সুন্দর লাগছে। কিছু ভিক্ষা দিন। আমি এক অন্ধ মানুষ। গৃহকর্ত্রী: দেখলে, লোকটা কেমন মিথ্যুক, সে নাকি অন্ধ। স্বামী: সে সত্যিই অন্ধ। স্ত্রী: কী করে বুঝলে? স্বামী: সে তোমাকে পরীর মতো সুন্দর বলল যে।

ছাগলের ডিম দিয়ে ভাত খেয়েছি

শিক্ষক: মনে করো, একটি আম গাছে ১৬টি কলা আছে। সেখান থেকে ১৩টি জাম্বুরা পেড়ে নেওয়া হলো। গাছে কয়টা লেবু বাকি থাকবে? ছাত্র: ৯টি হাতি। শিক্ষক: বাহ! তুমি কিভাবে জানলে? ছাত্র: কারণ আমি দুপুরে ছাগলের ডিম দিয়ে ভাত খেয়েছি!

প্রেমিক-প্রেমিকা!

এক Handsome ছেলে Perfume এর দোকানে গিয়ে দোকানদার কে বলল==> ছেলেঃ- মামা একটা দামি Perfume দেন !!! আজ রাতে আমার Gf এর বাসায় Dinner এর দাওয়াত আছে। বুঝেন ই তো কিছু নিতে হলে কিছু দিতে হয়। আর হ্যাঁ ১ টা নয় ২ টা দিয়েন !!! আমার Gf এর একটা  ছোটো বোনআছে ওর জন্য!!! তাকেও পটাতে হবে !!! না না আরো ১ টা দিয়েন। Gf এর আম্মু কেও তো Impress করতে হবে। আর ১ টা কম দামি Perfume দিয়েন, Gf এর বাসার কাজের মেয়ে কে দিবো। কোনো একদিন কাজে লাগাতে পারবো। Dinner এর টেবিলে Gf এর আব্বু কে আসতে দেখে ছেলে মাথা নিছু করে ফেললো। মাথা যে আর তুলছেই না !!! Gf:- আমি তো জানতাম না যে তোমার এতোটা লজ্জা আছে ??? ছেলেঃ- আর আমিও জানতাম না তোমার আব্বুর Perfume এর দোকান আছে ???

গাধা বা নির্বধো!!!

শিক্ষক : যারা একেবারে গাধা বা নির্বোধ তারা ছাড়া সবাই বসে পড়ো। (সকল ছাত্র বসলেও একজন দাড়িয়ে আছে) শিক্ষক : কিরে, তুই গাধা নাকি নির্বোধ? || || || | || ছাত্র : না স্যার, আপনি একা দাড়িয়ে আছেন এটা ভাল দেখাচ্ছেনা, তাই…

মিসকল 

মন্টু আর মলির মধ্যে ভীষণ প্রেম। দিনভর কথা বলতে বলতে মোবাইলটা তাদের কানের অংশ হয়ে উঠেছে। একদিন মন্টু বলল, ওগো শুনছ, শুনলাম মোবাইলে এত বেশি কথা বললে নাকি অসুখ-বিসুখ করতে পারে। চলো, আমরা এবার নতুন কিছু করি। পুরোনো দিনে ফিরে যাই। এখন থেকে আমরা চিঠি আদান-প্রদান করব। শুনে মলি বলল, হু। তা তো ভালোই বলেছ গো। কিন্তু চিঠি দেব কী করে? মন্টু: কেন? প্রাচীনকালের মতোই। কবুতরের পায়ে বেঁধে! ব্যস। পরদিন থেকে শুরু হলো চিঠি আদান-প্রদান। চিঠি আসে, চিঠি যায়। কবুতর বেচারার ত্রাহি ত্রাহি দশা! একসময় মলির কাছে উড়ে এল কবুতর, কিন্তু পায়ে কোনো চিঠি বাঁধা নেই। নিয়ম ভেঙে মন্টুকে ফোন করে বসল মলি, কী গো, কবুতরের পায়ে তো কিছু বাঁধা নেই। তুমি কিছু লেখোনি? . . . . . . . মন্টু: আহ! বুঝলে না? ওটা মিসকল ছিল!

আমার জন্য নিয়ে আসবেন

এক বেকার লোক অনেকদিন ধরে চাকরি খুঁজছিল । একদিন পত্রিকায় একটা চাকরির বিজ্ঞাপন দেখল। বেতন টেতন দেয়া হবে না , শুধু তিনবেলা খেতে দেয়া হবে । তবে শর্ত আছে , চাকরী প্রার্থীর সাইকেল থাকা লাগবে । . লোকটা ভাবল বেকার ই ত আছি.... যাই গিয়ে দেখি কয়েকদিন খাওয়া দাওয়ার ব্যবস্থা ত অন্তত হবে.... লোকটা সাইকেল নিয়ে চাকরীদাতার বাড়ি গেল । . চাকরীদাতা - আপনিই চাকরী প্রার্থী ? . প্রার্থী - হ্যা । প্লিজ আমাকে চাকরীটা দিন । বড় বিপদে আছি । একটা চাকরীর খুবই প্রয়োজন . চাকরীদাতা - ঠিক আছে তাহলে আজ থেকেই কাজে লেগে পড়ুন প্রার্থী - কিন্তু আমার কাজটা কি ? . চাকরীদাতা - এখান থেকে তিন কিলোমিটার দূরে মসজিদে প্রতিদিন খাবার বিতরন করা হয় । সেখানে তিনবেলা খেয়ে আসবেন আর আসার সময় আমার জন্য নিয়ে আসবেন..............!!!

 < 1 2 3 4 5 >  শেষ ›
Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে